পণের দাবিতে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে খুনের অভিযোগে ধৃত স্বামী জয়নগরে

0

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, জয়নগর: জয়নগরে পণের দাবিতে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে খুনের অভিযোগে গ্রেফতার স্বামী। ধৃতের কঠিন শাস্তির দাবিতে পুলিশের গাড়ির সামনে বিক্ষোভ মৃতার বাপের বাড়ির লোকজনের।

বিয়ের মাত্র ন’মাসের মধ্যেই দাবিমতো পণের টাকা না মেলায় তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা এক গৃহবধূকে শ্বশুরবাড়িতেই শ্বাসরোধ করে খুন করার অভিযোগ এনেছে মৃতের বাপের বাড়ির লোকজন। আর এই ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ গ্রেফতার করেছে অভিযুক্ত স্বামী সাহাবুল ঢালীকে।

জয়নগর থানার দক্ষিণ বারাসত গ্রাম পঞ্চায়েতের পদ্মেরহাট গ্রামের ঢালীপাড়ার সাহাবুল ঢালীর সঙ্গে ন’মাস আগে দেখাশোনা করে বিয়ে হয়েছিল একই থানা এলাকার জাঙ্গালিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের আইয়ুব আলি সর্দারের মেয়ে বেবি খাতুনের (২২)। বিয়ের দেড় মাস পর থেকেই শুরু হয় বাপের বাড়ি থেকে টাকা আনার জন্য চাপ দেওয়ার পর্ব। শুরুতেই মেয়ের সংসারের কথা ভেবেই বাবা ২০ হাজার টাকা জামাইয়ের দাবিমতো দিয়েছিলেন। আবারও বেবিকে চাপ দেওয়া হয় বাপের বাড়ি থেকে ১০ হাজার টাকা আনার জন্য। বেবি সেই অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে বাপের বাড়িতে গিয়ে আবারও বাবার কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা নিয়ে আসেন।

আইয়ুব আলি সরদার ভেবেছিলেন, সম্ভবত এ বার থেকে অন্তত মেয়ে সুখে সংসার করতে পারবে। কিন্তু ঘটল তাঁর ঠিক উল্টো। গত বৃহস্পতিবার আবারও মেয়েকে এক প্রকার অত্যাচার করেই বাপের বাড়িতে জোর করে পাঠায় অভিযুক্ত জামাই সাহাবুল ঢালী এবং দাবি করা হয় ১ লক্ষ টাকা দিতে হবে বাড়ি ও ব্যবসার জন্য। কিন্তু অত টাকা দেওয়ার সামর্থ্য নেই সামান্য রাজমিস্ত্রির জোগাড়ে আইয়ুব আলি সরদারের। টাকা না নিয়ে বাড়িতে ফিরলে তাঁর ওপর অত্যাচার বাড়বে সেটা বুঝে বেবি আর শ্বশুর বাড়িতে ফিরতে চাইছিল না। কিন্তু তাঁর ননদ এসে তাকে আবার নিয়ে যায় পদ্মের হাটের শ্বশুরবাড়িতে।

এর মধ্যেই পদ্মেরহাট ঢালীপাড়া থেকে ফোনে জাঙ্গালিয়ার বাড়িতে খবর আসে যে, বেবির অবস্থা অবস্থা অত্যন্ত খারাপ। দ্রুত সেখানে আসার জন্য। এই ফোন পেয়ে তাঁরা তড়িঘড়ি সেখানে গিয়ে দেখে যে বাড়ির বারান্দায় সেখানে বেবি অচৈতন্য অবস্থায় পড়ে রয়েছেন। অথচ শ্বশুরবাড়িতে, স্বামী কিংবা শ্বশুরবাড়ির কোন লোকজনকেই দেখা যায়নি।

সেই অবস্থায় তড়িঘড়ি তাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসা হয় পদ্মের হাট গ্রামীণ হাসপাতালে। চিকিৎসকরা ওই গৃহবধূকে দেখেই মৃত বলে ঘোষণা করে দেন। এরপরই মৃতের পরিবারের পক্ষ থেকে পণের দাবিতে শ্বশুরবাড়িতে শ্বাসরুদ্ধ করে খুন করার অভিযোগে স্বামী-সহ শ্বশুরবাড়ির লোকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে। তদন্তে নেমে পুলিশ গ্রেফতার করেছে মৃত ওই গৃহবধূর স্বামী সাহাবুল ঢালীকে।

ধৃতকে বৃহস্পতিবার বারুইপুর মহকুমা আদালতে পাঠানোর জন্য যখন থানা থেকে ডাক্তারি পরীক্ষা করাতে পদ্মেরহাট হাসপাতালের নিয়ে আসা হয় সেই সময় পুলিশের গাড়ি ঘিরে ফেলে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে মৃত ওই গৃহবধূর বাপের বাড়ির লোকজন। তড়িঘড়ি পুলিশ সেখান থেকে গাড়ি ঘুরিয়ে নিয়ে যায় আদালতের পথে।

এ দিকে মৃত গৃহবধূর স্বামী সাহাবুল ঢালীর ফাঁসির দাবিতে দফায় দফায় বিক্ষোভ দেখায় মৃতার পরিজনেরা। পুলিশ এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

আরও পড়ুন: 

টিকাকেন্দ্রের ভিতরে ‘রাজনীতি’ করার অভিযোগে দল থেকে বহিষ্কৃত তৃণমূল নেতা

দু’-চার দিনের মধ্যেই সব স্পষ্ট হয়ে যাবে, আচমকা সাংসদপদ ছাড়ার পর জানালেন অর্পিতা ঘোষ

দৈনিক সর্বোচ্চ পুণ্যার্থীর সংখ্যা বেঁধে দিয়ে চারধাম যাত্রার অনুমতি দিল উত্তরাখণ্ড হাইকোর্ট

সাংসদপদ থেকে ইস্তফা দিলেন অর্পিতা ঘোষ, চিঠি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন