ক্যানিং থেকে বাসন্তী যাওয়ার ফেরিঘাটের রাস্তার বেহাল দশা, সেতুর দাবি নিত্যযাত্রীদের

0

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, জয়নগর: বেহাল রাস্তায় নাজেহাল সাধারণ মানুষ। সুন্দরবনের ক্যানিং মহকুমার ক্যানিং থেকে বাসন্তী যাওয়ার মধ্যবর্তী ফেরিঘাটের রাস্তার বেহাল দশা।

ফেরিঘাটে যাওয়ার জন্য এখনও সেতু তৈরির দিকে তাকিয়ে আছেন নিত্যযাত্রীরা। ক্যানিং থেকে বাসন্তী যাওয়ার মধ্যবর্তীএই ফেরিঘাটের রাস্তার শোচনীয় অবস্থা। এবড়োখেবড়ো তো বটেই তাঁরপাশাপাশি জল সংলগ্ন হওয়ায় প্রায়শই জলকাদায় একাকার হয়ে পথচলার অযোগ্য হয়ে ওঠে। কিন্তু এই রাস্তাটিই ক্যানিং থেকে বাসন্তী যাওয়ার একমাত্র সংযোগকারী রুট। এই পথটির গুরুত্ব অনেকটাই বেশি স্থানীয়দের কাছে। প্রত্যেকদিন এই পথ দিয়ে অসংখ্য যাত্রী যাতায়াত করেন। নিজেদের গন্তব্যস্থলে যাওয়ার একমাত্র সহজ পথ হিসেবে ফেরিঘাটের জুড়ি মেলা ভার। কিন্তু প্রশাসনিক অবহেলায় রাস্তাটি জরাজীর্ণ অবস্থায় পরিণত হয়েছে।

পথ বাঁধানো তো দূরে থাক,পথকে সুন্দর রাখতে যে সমস্ত পদক্ষেপ সরকারি তরফে করা উচিত,সেখানেও রয়েছে বড় রকমের ফাঁক। নিত্যযাত্রীদের অভিযোগ, পথশ্রী প্রকল্পের অধীনে থাকা রাস্তাগুলো নির্মাণ-পুনর্নির্মাণের কাজ চলছে বহাল তবিয়তে। কিন্তু ফেরিঘাটে যাওয়ার এত গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটির দিকে নজর পড়ে না কোনো পক্ষের। কোনো সময় জল পেরিয়ে আবার কখনও পায়ে কাদা মেখে ফেরিতে উঠতে হয় যাত্রীদের।

amazon

কোনো রকমে রাস্তাটি পার হওয়ার তাড়নায় ঠেলাঠেলিতে প্রায়শই বাকবিতণ্ডার মধ্যে জড়িয়ে পড়েন নিত্যযাত্রীরা। সব থেকে বেশি অসুবিধার সন্মুখীন হন যাতায়াতকারী মহিলারা। বাচ্চা কোলে নিয়ে ,মালপত্র বহন করে ফেরিতে উঠতে গিয়ে প্রায় সময় দূর্ঘটনার সম্মুখীন হতে হয়। এই সমস্যা থেকে রেহাই পেতে বহুবার প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েছেন সাধারণ নাগরিকরা। কিন্তু কোনো সমস্যার সুরাহা হয়নি। স্থানীয় বাসিন্দারা জানালেন, কয়েক বছর আগে যেমন ছিল বর্তমানে একই আছে। উল্টে যত দিন যাচ্ছে পরিস্থিতি আরও বেহাল হচ্ছে। আমরা চাই যত দ্রুত সম্ভব এই জেটি ঘাটটি বাঁধানো হোক, অথবা ফেরিঘাটে যাওয়ার জন্য সেতু নির্মাণ করা হোক।

এ ব্যাপারে ক্যানিং মহকুমা প্রশাসন সূত্রে জানা গেল, দ্রুত ওই রাস্তা সংস্কারের ব্যাপারে খোঁজ খবর নিয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ করা হবে।

আরও পড়তে পারেন: বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নপূরণের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে বাংলাদেশ, বললেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন