Connect with us

দঃ ২৪ পরগনা

উম্পুন কবলিত সুন্দরবনে ম্যানগ্রোভ বসাতে এগিয়ে এল বেসরকারি সংস্থা

সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি সুন্দরবনে ম্যানগ্রোভের চারা বসাতে এগিয়ে এল এক বেসরকারি সংস্থা।

Published

on

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায় ,গোসাবা: ঘূর্ণিঝড় উম্পুনে (Cyclone Amphan) প্রচুর ম্যানগ্রোভ (Mangrove) নষ্ট হয়ে গিয়েছে সুন্দরবনে (Sundarbans)। সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি সুন্দরবনে ম্যানগ্রোভের চারা বসাতে এগিয়ে এল এক বেসরকারি সংস্থা।

সুন্দরবন ফাউন্ডেশন সংস্থার উদ্যোগে এক লক্ষ ম্যানগ্রোভের চারা বসানোর কাজ চলছে এখন সুন্দরবনে। এই সংস্থার চেয়ারম্যান প্রসেনজিৎ মণ্ডল জানালেন,”আপাতত গোসাবার বালি-২ গ্রাম পঞ্চায়েতের বিদ্যা জঙ্গলের কাছে বিদ্যাধরীর চরে এক লক্ষ ম্যানগ্রোভের চারা লাগানোর ব্যবস্থা করেছি। ইতিমধ্যে ৪০-৪৫ হাজার চারা বসানো হয়ে গিয়েছে। এই কাজে গ্রামের মহিলাদের মজুরির ভিত্তিতে কাজে লাগানো হয়েছে। গ্রামের ২৫-৩০ জন মহিলাকে দৈনিক ১৫০ টাকা করে মজুরি দিয়ে এই গাছ লাগানো হচ্ছে”।

তিনি বলেন, এতে যেমন গ্রামের মহিলাদের একাধারে রুজি-রোজগার হচ্ছে, অন্য দিকে সুন্দরবনে ম্যানগ্রোভ ও লাগানোর কাজ দ্রুত হচ্ছে।

প্রসেনজিতের এই কাজে খুশি খোদ প্রশাসনিক আধিকারিক। কয়েকদিন আগে সরকারি উদ্দ্যোগে গোসাবার বিডিও সৌরভ মিত্র নিজ হাতে ম্যানগ্রোভের চারা বসিয়েছেন। তিনি বলেন,সুন্দরবনকে বাঁচাতে এ ভাবে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। ম্যানগ্রোভের চারা বসাতে হবে আরও বেশি বেশি করে। কারণ ম্যানগ্রোভ নদীর বাঁধকে ভাঙনের মুখ থেকে রক্ষা করবে। রক্ষা করবে সুন্দরবনকে।

প্রসঙ্গত, দীর্ঘদিন ধরেই সরকারি উদ্যোগে ম্যানগ্রোভ লাগানোর কাজ চলছে সুন্দরবনে। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে সুন্দরবন এলাকায় প্রচুর গাছপালার ক্ষয়ক্ষতি হয়। বহু গাছ উপড়ে যায় ঝড়ের তাণ্ডবে। তাই দ্রুত নতুন করে গাছ লাগাতে নেমে পড়ে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা প্রশাসন। এক দিকে যেমন রাস্তার পাশে সোনাঝুড়ি, কৃষ্ণচূড়ার মতো গাছ লাগানোর কাজ শুরু হয়েছে, তেমনই সুন্দরবনের বিস্তীর্ণ এলাকা বিশেষ করে নদীর চর, নদীবাঁধগুলিতে ম্যানগ্রোভ লাগানোর কাজও শুরু হয়। উম্পুনের দাপটে চরম ক্ষতি হলে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ম্যানগ্রোভের চারা বসানোর কথা ঘোষণা করেন।

দঃ ২৪ পরগনা

ঝোপঝাড়ে ভরেছে পৈতৃক ভিটে, নি‌ঃশব্দেই কেটে গেল হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের ৩১তম মৃত্যুদিন

ভিটের কিছু অংশ আবার বেআইনি দখল অথবা বিক্রি হয়ে গেছে বলে অভিযোগ।

Published

on

hemanta mukherjee

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, জয়নগর: প্রবাদপ্রতীম সংগীত শিল্পী হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের জন্ম শতবর্ষ গত বছর আমরা পার করেছি। শনিবার ছিল এই মহান শিল্পীর ৩১তম মৃত্যুদিবস। দক্ষিণ ২৪ পরগনার বহড়ু গ্রামের দক্ষিণ পাড়ায় পৈতৃক বাসস্থান কিংবদন্তি সঙ্গীত শিল্পী হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের। এখন বাড়ির আর কিছু অবশিষ্ট নেই। জঙ্গল হয়ে পড়ে আছে। কিছু অংশ আবার বেআইনি দখল অথবা বিক্রি হয়ে গেছে বলে অভিযোগ।

এই শিল্পীর পৈতৃক ভিটাতে হেমন্তের মূর্তি, জায়গাটাতে তাঁর নামাঙ্কিত মিউজিয়াম ও শিশুদের জন্য পার্ক এবং শিল্পীর নামাঙ্কিত রাস্তা তৈরি করার দাবি জানালেন হেমন্তের ভ্রাতৃবধূ ৮২ বছরের গায়ত্রী মুখোপাধ্যায়। এ দিন গায়ত্রী মুখোপাধ্যায় ও তাঁর পুত্রবধূ ঝর্না মুখোপাধ্যায় দেখালেন হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের পৈতৃক বসতবাড়ি যেখানে ছিল, সেটি এখন জঙ্গলে ঘেরা । নানা গাছপালায় ভরতি।

[হেমন্ত মুখোপাধ্যায়]

সকালবেলাতেই ঢোকা যায় না। আশ্চর্য লাগে এখানে কোথাও এতোটুকু কিছু নেই যা দেখে বোঝা যাবে এটি মহানশিল্পীর পৈতৃক ভিটা। রাস্তা পেরিয়ে যে গঙ্গার অবশেষরূপী যে বড়ো দিঘি আছে, সেটিও এই শিল্পীর পরিবারের। কিন্তু শিল্পীর পৈতৃক ভিটের মতো তাও আজ অবহেলিত।

এ ভাবে সরকারি উদ্যোগের অভাবে আজও অবহেলিত শিল্পীর গ্রাম বহড়ু। স্থানীয় মানুষ জানালেন, গত বছর জন্ম শতবর্ষে বহড়ুর প্রাচীন শ্যামসুন্দর লাইব্রেরি তাঁদের নিজ উদ্যোগে লাইব্রেরির ভেতর হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের একটি আবক্ষ মূর্তি বসিয়েছেন। তা ছাড়া বহড়ু এলাকায় হেমন্তের নামাঙ্কিত আর কোনো স্মৃতি চিহ্ন নেই। গ্রামবাসী হিসেবে তাঁরা চান, বহড়ু স্টেশনে তাঁর নামাঙ্কিত স্মৃতি ফলক, তাঁর জন্মভিটায় শিশুদের পার্ক, মিউজিয়াম ও মূর্তি স্থাপন করতে। যাতে সঙ্গীতপ্রেমী, ইতিহাসপ্রেমী বহু মানুষ এলাকায় এসে এই মহান শিল্পীর বসত ভিটেকে দেখে যেতে পারেন।

[গায়ত্রী মুখোপাধ্যায়]

তাঁরা বলেন, সরকার উদ্যোগ নিয়ে এগুলো করলে মহান শিল্পীকে শ্রদ্ধা জানানো হবে। তবে তাঁর ৩১তম মৃত্যু দিবসে শনিবার বহড়ুতে কোনো অনুষ্ঠান দেখতে পাওয়া যায়নি সরকারি তরফে। এ দিন পঞ্চায়েত অফিসে বসে এ ব্যাপারে বহড়ু ক্ষেত্র গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান স্নেহাশিস নাইয়া বলেন, “এই মহান শিল্পীর জন্য কিছু করতে পারলে অবশ্যই আমার ভালো লাগবে। তবে আগামী বছরে এই মহান শিল্পীর পৈতৃক ভিটায় মূর্তি বসানো, মিউজিয়াম করার ইচ্ছে রয়েছে , এর জন্য শিল্পীর পরিবার থেকে সরকারকে লিখিত অনুমতি দিতে হবে। অনুমতি পেলেই শিল্পীর পৈতৃক ভিটেতে কাজ শুরু হবে”।

একই সঙ্গে তিনি বলেন, “তবে আর কয়েক মাসের মধ্যেই বহড়ু ক্ষেত্র তলাতে হেমন্তের নামাঙ্কিত একটি পার্ক চালু করা হবে। আর রাস্তার নামকরণ নিয়ে সেরকম কোনো সিদ্ধান্ত এখনও নেওয়া সম্ভব হয়নি। আমরা চাইছি সরকারি ভাবে হেমন্ত মুখোপাধ্যায়ের মতো শিল্পীকে স্মরণ করে তাঁর নামাঙ্কিত অনেককিছুই এলাকায় স্থাপন করতে। এখান দেখা যাক কী হয়”।

আরও পড়তে পারেন: প্রগতিশীল সামাজিক-রাজনৈতিক সাংবাদিকতার অন্যতম প্রবর্তক ও পথপ্রদর্শক ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর

Continue Reading

দঃ ২৪ পরগনা

সুন্দরবনে ম্যানগ্রোভ রোপণে এ বার পরিবেশ-বান্ধব ‘জিও-জুট’ পদ্ধতি

পরিবেশ-বান্ধব এই পদ্ধতি সুন্দরবনে প্রথম।

Published

on

চলছে জিও-জুট পদ্ধতিতে ম্যানগ্রোভ রোপণ। নিজস্ব ছবি

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, সুন্দরবন: সুন্দরবনের ম্যানগ্রোভ অর‌ণ্যকে বাঁচাতে রাজ্য সরকার পাঁচ কোটি ম্যানগ্রোভ রোপণের কাজ শুরু করেছে। আর সেই ক্ষেত্রে দ্রুত ম্যানগ্রোভ রোপণে সাফল্যে এনে দিয়েছে ‘জিয়ো-জুট’‌ পদ্ধতি।

পরিবেশ -বান্ধব এই পদ্ধতি সুন্দরবনে এই প্রথম। এত দিন ম্যানগ্রোভ চারাগাছ তৈরি করতে প্লাস্টিকের ঠোঙা ব্যবহার করা হচ্ছিল। তাতে চারার বৃদ্ধি কম ঘটছিল। এ বার চটের তৈরি প্যাকেট (জিয়ো-জুট) ব্যবহার করে সাফল্য পাওয়া গিয়েছে। অল্পদিনেই গাছের বৃদ্ধি ঘটেছে দ্বিগুণ।

এই সাফল্যে বেজায় খুশি দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলা প্রশাসনের কর্তারা। এত দিন প্লাস্টিক ব্যবহারের কারণে এমনিতেই সুন্দরবন দূষিত হচ্ছিল। প্রাকৃতিক ভারসাম্যের কথা মাথায় রেখে ‘জিয়ো-জুটে’র মাধ্যমে নদী বাঁধের চরে চলতি বছরে ম্যানগ্রোভ চারা তৈরির কাজ করানো হয়েছে ‘জিয়ো-জুটে’র সাহায্যে। আর তাতেই সাফল্য পাওয়া গেছে অভাবনীয়।

পরিবেশবিদদের মতে, চটের প্যাকেটে তৈরি করা চারা সরাসরি তুলে চট-সহ বসিয়ে দিতে হবে। পরে চট পচে গিয়ে গাছের সার হিসাবেও ব্যবহার হবে। তাতে গাছ ও স্বাস্থ্যকর হবে এবং দ্রুত বৃদ্ধি ঘটবে।

‘জিয়ো-জুটের’ প্রসঙ্গে জেলারইজিএ’র দফতরের এক আধিকারিক বলেন, “সুন্দরবনে এই প্রথম পরীক্ষা মূলক ভাবে ‘ইকো-ফ্রেন্ডলি গ্রিন নার্সারি (জিয়ো-জুট) ব্যবহার করে ম্যানগ্রোভ নার্সারি করানো হয়েছে। এতে আমরা একশো শতাংশ সফল হয়েছি”।

তাঁর মতে, আগে প্ল্যাস্টিক পটে চারা তৈরি করা হতো। রোপণযোগ্য চারা তৈরি করতে সময় লাগত প্রায় ছ’মাস। জিয়ো-জুটে তৈরি চারা এক মাসের রোপণের উপযুক্ত হয়ে গিয়েছে। এই চারা বেশ সুস্থ সবল। তা ছাড়া বৃদ্ধিও ভালো।

আরও পড়তে পারেন: উম্পুন কেড়েছে পাখির আশ্রয়, সুন্দরবনের ম্যানগ্রোভে কৃত্রিম বাসা তৈরি করছে সরকার

সুন্দরবনের ক্যানিং-১ ব্লকের নিকারী ঘাটা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার মাতলা নদীর চরে, গোসাবা ব্লকের রাঙাবেলিয়া ও ছোট মোল্লাখালিতে এই ‘জিয়ো-জুট’ ব্যবহারের মাধ্যমে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা এই চারগাছ তৈরির কাজ চালাচ্ছেন। এতে এক দিকে যেমন পরিবেশের দূষণ কমছে, অন্য দিকে সুন্দরবনের মহিলাদের কর্মসংস্থানও হচ্ছে।

Continue Reading

দঃ ২৪ পরগনা

সুন্দরবন সেই তিমিরেই! ৫টি দ্বীপে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিল ‘গড়িয়া সহমর্মী’

বাতাসে যখন পুজোর গন্ধ, তখন কেমন আছেন কুমিরমারি, মোল্লাখালি, সাতজেলিয়া, রাঙাবেলিয়া, লাহিড়ীপুরের অসহায় আত্মজনেরা?

Published

on

সুন্দরবনের প্রত্যন্ত অঞ্চলে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ 'সহমর্মী'র তরফে।

সুব্রত গোস্বামী

“কস্তুরী-মৃগের নিজের দেহের মধ্যেই আছে কস্তুরী আবাস। কিন্তু সে মনে করে যে কস্তুরীর সুগন্ধ বাইরে থেকে ভেসে আসছে। তাই সে অস্থিরভাবে চারিদিকে ঘুরে বেড়ায়।”

এই প্রতিবেদন লেখার সময় মনে হল, সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণণের এই কথাই এই প্রতিবেদনের সূচনামুখ হিসাবে সুপ্রযুক্ত। আসলে মানুষের হৃদয়ের মধ্যেই আছেন ঈশ্বর/আল্লা/যিশু। কিন্তু আমরা এই ঈশ্বরের আরাধনা না করে মন্দির, মসজিদ, গির্জায় ঘুরে বেড়াই পরমেশ্বরের সন্ধানে।

এই ঈশ্বরের আরাধনায় ‘গড়িয়া সহমর্মী’ শনিবার আবার পৌঁছে গিয়েছিল সুন্দরবনের প্রত্যন্ত অঞ্চলে। এই নিয়ে বেশ কয়েক বার ‘সহমর্মী’ পৌঁছে গেল সুন্দরবনে। বাতাসে যখন পুজোর গন্ধ, তখন কেমন আছেন কুমিরমারি, মোল্লাখালি, সাতজেলিয়া, রাঙাবেলিয়া, লাহিড়ীপুরের অসহায় আত্মজনেরা?

‘সহমর্মী’র ৩৫ জন ক্যাডেট আগের দিন রাতেই পৌঁছে গিয়েছিলেন গদখালি। সেখান থেকে শনিবার ভোরে ৪টি লঞ্চে ১৮৫৬৪ কিলো খাদ্যসামগ্রী নিয়ে রওনা হয়ে যান সুন্দরবনের ৫টি দ্বীপের উদ্দেশে। সেই সব দ্বীপে পৌঁছে দেখা গেল, ঘূর্ণিঝড় উম্পুন এবং সেই সঙ্গে করোনার কারণে টানা লকডাউন, এই জোড়া আঘাতের ঘা এখনও দগদগে সুন্দরবনের শরীরে।

অসহায় আত্মজনের হাতে তুলে দেওয়া হল খাদ্যসামগ্রী।

যতই আশ্বিন আসুক, ভোরে শিউলি ফুটুক, তাদের অবস্থার কোনো উন্নতি চোখে পড়ল না। একটু খাবারের জন্য ক্ষুধার্ত অসহায় আত্মজনেরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জঙ্গলে যাচ্ছেন মাছ, মধু, কাঁকড়া সংগ্রহ করতে। প্রায় প্রতি সপ্তাহেই বাঘ বা কুমিরের আক্রমণে জীবন হারাচ্ছেন এই মানুষেরা।

‘গড়িয়া সহমর্মী’র উদ্যোগে ও কগনিজ্যান্ট-এর (Cognizant) আর্থিক সহায়তায় এই সমস্ত অসহায় আত্মজনের হাতে তুলে দেওয়া হল খাদ্যসামগ্রী। ১৪২৮টি পরিবারের হাতে দেওয়া হল চাল, ডাল, আটা, তেল, চিনি, ছোলা, নুন, মশলা, চিঁড়ে ও সোয়াবিন।

দেবীপক্ষের শুরুতে এ ভাবেই ‘গড়িয়া সহমর্মী’ জীবন্ত ঈশ্বরদের চরণে নিবেদন করল পুজোর নৈবেদ্য। ‘মা’ সবাই কে ভালো রাখুন, রইল এই কামনা।

খবর অনলাইনে আরও পড়তে পারেন

জাতীয় গড়ের তুলনায় রাজ্যে সুস্থতার হার অনেকটাই বেশি, কেন্দ্রের প্রশংসা

Continue Reading
Advertisement
Uncategorized3 hours ago

সরষের তেল থেকে এলপিজি হয়ে ড্রাইভিং লাইসেন্স, কাল থেকে যে ১০টি নিয়ম বদলে যাচ্ছে

Coronavirus durga puja
দেশ3 hours ago

ওনামেই বিপদ বাড়ল কেরলের, পুজোর আগে শিক্ষা নিতে হবে পশ্চিমবঙ্গকে

Uttar Pradesh Police
দেশ4 hours ago

আটকে রাখা হল পরিবারকে, ঘেঁষতে দেওয়া হল না সংবাদমাধ্যমকে, হাতরাসের তরুণীর শেষকৃত্য করল পুলিশ

corona
দেশ4 hours ago

নতুন আক্রান্তের সংখ্যা কিছুটা বাড়লেও সুস্থ হলেন আরও বেশি মানুষ, সক্রিয় রোগী আরও কমল ভারতে

দেশ4 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৮০৪৭২, সুস্থ ৮৬৪২৮

mamata banerjee and sonia gandhi
রাজ্য4 hours ago

নয়া কৃষি আইন রুখতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি কংগ্রেসের

suresh raina
ক্রিকেট5 hours ago

সংঘাত চরমে, ওয়েবসাইট থেকে সুরেশ রায়নার নাম মুছে দিল চেন্নাই সুপারকিংস

Rapes in India
দেশ5 hours ago

দৈনিক ৮৭টি ধর্ষণের ঘটনা ভারতে, চাঞ্চল্যকর তথ্য এনসিআরবির

দেশ4 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৮০৪৭২, সুস্থ ৮৬৪২৮

দেশ3 days ago

জল্পনার অবসান! নীতীশ কুমারের দলে যোগ দিলেন বিহারের প্রাক্তন ডিজি

north bengal rain
রাজ্য2 days ago

অতিবৃষ্টির হাত থেকে অবশেষে রেহাই পেল উত্তরবঙ্গ, আপাতত স্বস্তি

covid peak india
দেশ1 day ago

১৮ সেপ্টেম্বরের পর থেকে সক্রিয় রোগীর গ্রাফ নিম্নমুখী, কোভিডের চূড়া কি অবশেষে পেরোল ভারত?

Ration Card and Aadhaar Number
প্রযুক্তি2 days ago

অনলাইনে সত্যিই কি রেশন কার্ডে আধার লিঙ্ক করা যায়?

coronavirus
দেশ1 day ago

দেশে নতুন কোভিড-আক্রান্তের সংখ্যা গত ২৮ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন, ব্যাপক পতন মৃত্যুর সংখ্যাতেও

ganges cruise
কলকাতা2 days ago

মাত্র ৩৯ টাকায় গঙ্গাবক্ষে উপভোগ করুন ‘হেরিটেজ ক্রুজ’

low pressure west bengal rain
রাজ্য2 days ago

অক্টোবরের দ্বিতীয় সপ্তাহে আসতে পারে নিম্নচাপ, তত দিন বিক্ষিপ্ত বৃষ্টিই ভরসা দক্ষিণবঙ্গের

কেনাকাটা

কেনাকাটা13 hours ago

পুজো কালেকশনের ৮টি ব্যাগ, দাম ২১৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : এই বছরের পুজো মানে শুধুই পুজো নয়। এ হল নিউ নর্মাল পুজো। অর্থাৎ খালি আনন্দ করলে...

কেনাকাটা2 days ago

পছন্দসই নতুন ধরনের গয়নার কালেকশন, দাম ১৪৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজোর সময় পোশাকের সঙ্গে মানানসই গয়না পরতে কার না মন চায়। তার জন্য নতুন গয়না কেনার...

কেনাকাটা5 days ago

নতুন কালেকশনের ১০টি জুতো, ১৯৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজো এসে গিয়েছে। কেনাকাটি করে ফেলার এটিই সঠিক সময়। সে জামা হোক বা জুতো। তাই দেরি...

কেনাকাটা6 days ago

পুজো কালেকশনে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে চোখ ধাঁধানো ১০টি শাড়ি

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজোর কালেকশনের নতুন ধরনের কিছু শাড়ি যদি নাগালের মধ্যে পাওয়া যায় তা হলে মন্দ হয় না। তাও...

কেনাকাটা1 week ago

মহিলাদের পোশাকের পুজোর ১০টি কালেকশন, দাম ৮০০ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : পুজো তো এসে গেল। অন্যান্য বছরের মতো না হলেও পুজো তো পুজোই। তাই কিছু হলেও তো নতুন...

কেনাকাটা2 weeks ago

সংসারের খুঁটিনাটি সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এই জিনিসগুলির তুলনা নেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিজের ও ঘরের প্রয়োজনে এমন অনেক কিছুই থাকে যেগুলি না থাকলে প্রতি দিনের জীবনে বেশ কিছু সমস্যার...

কেনাকাটা2 weeks ago

ঘরের জায়গা বাঁচাতে চান? এই জিনিসগুলি খুবই কাজে লাগবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ঘরের মধ্যে অল্প জায়গায় সব জিনিস অগোছালো হয়ে থাকে। এই নিয়ে বারে বারেই নিজেদের মধ্যে ঝগড়া লেগে...

কেনাকাটা3 weeks ago

রান্নাঘরের জনপ্রিয় কয়েকটি জরুরি সামগ্রী, আপনার কাছেও আছে তো?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরের এমন কিছু সামগ্রী আছে যেগুলি থাকলে কাজ করাও যেমন সহজ হয়ে যায়, তেমন সময়ও অনেক কম খরচ...

কেনাকাটা3 weeks ago

ওজন কমাতে ও রোগ প্রতিরোধশক্তি বাড়াতে গ্রিন টি

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ওজন কমাতে, ত্বকের জেল্লা বাড়াতে ও করোনা আবহে যেটি সব থেকে বেশি দরকার সেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা...

কেনাকাটা3 weeks ago

ইউটিউব চ্যানেল করবেন? এই ৮টি সামগ্রী খুবই কাজের

বহু মানুষকে স্বাবলম্বী করতে ইউটিউব খুব বড়ো একটি প্ল্যাটফর্ম।

নজরে