সহপাঠীর ঘুষিতে মৃত্যু একাদশ শ্রেণির ছাত্রের, ডায়মন্ড হারবারে চাঞ্চল্য

0

ডায়মন্ড হারবার: করোনার কারণে টানা দু’বছর স্কুলে না গিয়ে কি ক্রমশ হিংসাত্মক হয়ে পড়েছে ছাত্রসমাজ? ডায়মন্ড হারবারের একটি চাঞ্চল্যকর ঘটনায় এমনই প্রশ্ন উঠতে শুরু করল। স্কুলের মধ্যে দুই সহপাঠীর মারামারির ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে একজনের। সোমবার দুপুরে ডায়মন্ড হারবারের ধনবেড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ওই ঘটনা ঘটেছে।

মৃতের নাম মলয় হালদার। বছর ষোলোর মলয় ওই স্কুলেই একাদশ শ্রেণিতে পড়ত। তাকে মারার ঘটনায় অভিযুক্ত ছাত্রকে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

মলয়ের বাড়ি ডায়মন্ড হারবার পুরসভার ১০ নম্বর ওয়ার্ডের রবীন্দ্রনগরে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সে গত কয়েক দিন ধরে জ্বরে ভুগছিল। সুস্থ হওয়ার পর সোমবারই মলয় প্রথম স্কুলে গিয়েছিল। স্কুল সূত্রে জানা গিয়েছে, দ্বিতীয় পিরিয়ডের পর মলয় এবং তার এক সহপাঠী খেলাচ্ছলে মারপিট শুরু করে।

সেই সময় মলয়ের কানের নীচে তার সহপাঠীর একটি ঘুষি এসে লাগে। তার পরেই অচেতন হয়ে পড়ে মলয়। তাকে নিয়ে যাওয়া হয় ডায়মন্ড হারবার মেডিক্যাল কলেজে। সেখানে চিকিৎসকেরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। এর পর মলয়কে স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যান তার পরিবারের সদস্যেরা। সেখানকার চিকিৎসকেরাও জানান, মলয় মারা গিয়েছে।

মলয়ের বাবা শ্যামল হালদার বলেন, ‘‘স্কুলে এত বড়ো ঘটনা ঘটে গেল, অথচ কেউ কিছু জানতেই পারলেন না! স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকারা কী করছিলেন? তাঁদের গাফিলতির জন্যই আমার ছেলের প্রাণ গিয়েছে। স্কুলে কোনো নজরদারি না থাকার কারণেই এত বড়ো ঘটনা ঘটে গিয়েছে। স্কুলকেই এর দায় নিতে হবে।”

এই ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। মলয়ের দেহ পুলিশ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে। এই ঘটনায় অনিচ্ছাকৃত খুনের মামলা দায়ের করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। পাশাপাশি, অভিযুক্ত সহপাঠীকে জিজ্ঞাসাবাদও করছে তারা। স্কুলের ভূমিকা নিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ করেছেন শ্যামাপদ।

আরও পড়তে পারেন:

মরশুমের প্রথম নিম্নচাপের জন্ম, তবুও বৃষ্টি বাড়ার সম্ভাবনা কম কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গে

অনন্য সব কীর্তি রেখে চলে গেলেন চলচ্চিত্রকার তরুণ মজুমদার

শক্তিপরীক্ষায় পাশ শিন্ডে-বিজেপি সরকার, বিরুদ্ধে ভোট ৯৯

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন