উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, কুলতলি: পুলিশের তৎপরতায় উদ্ধার সুন্দরবনের জঙ্গল থেকে ১৭ জন বাংলাদেশী মৎস্যজীবী। এ বারে সুন্দরবনের জঙ্গল থেকে ১৭ জন মৎস্যজীবীকে উদ্ধার করল মৈপীঠ উপকূল থানার পুলিশ। সুন্দরবনের কেঁদো দ্বীপের জঙ্গলে গাছ থেকে মৈপীঠ উপকূলতলার পুলিশ ১৭ জন বাংলাদেশী মৎস্যজীবীকে উদ্ধার করা হয় রবিবার।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বাংলাদেশের পাথরঘাটা থেকে গত ১৫ আগস্ট সাগরে মাছ ধরার উদ্দেশ্যে রওনা দেয় ১০টি ট্রলার। আবহাওয়ার অবনতি হওয়ায় গভীর সমুদ্রে তাদের ট্রলার ডুবে যায়। এফবি ভাই ভাই এক রতন মোল্লার ট্রলারটিতে মোট ১৯ জন মৎস্যজীবী ছিলেন। দু’জন ভেসে যান, বাকিরা একটি ভেলা বানিয়ে দু’দিন ধরে ভাসতে ভাসতে ভারতবর্ষের নদী উপকূলে চলে আসেন। সুন্দরবনের কেঁদো দ্বীপের চরে বাঘের ভয়ে দু’দিন তাঁরা গাছের উপরে ছিলেন।

সেখান থেকেই তাঁরা কোনো মৎস্যজীবীর সাহায্য পাওয়া যায় কি না তা চেষ্টা করছিলেন। রাতের অন্ধকারে গাছের উপরে রাত কাটান ওই ১৭ জন মৎস্যজীবী। রবিবার সকালে একটি ট্রলারকে দেখতে পান। ভারতীয় ওই ট্রলার বাংলাদেশী মৎস্যজীবীদের দেখতে পেয়ে তড়িঘড়ি মৈপীঠ উপকূল থানায় খবর দেয়। খবর পেয়ে মৈপীঠ উপকূল থানার ওসি মধুসূদন পালের নেতৃত্বে পুলিশ ওই ১৭ জন বাংলাদেশী মৎস্যজীবিকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে থানায়।

তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ জানতে পারে কী ঘটনা ঘটেছিল। সোমবার তাঁদের আইনি প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়েই বাংলাদেশে ফিরিয়ে দেওয়া হবে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেল। উদ্ধার হওয়া মৎস্যজীবীরা হলেন, জলিল মুন্সি, মহম্মদ ফরহাদ হোসেন, করিম হাওলাদার, আবুল হাওলাদার, বাবলুয়া খান, বিল্লাল হাওলাদার, বীর হাওলাদার, মহম্মদ সজীব ফরাজী, বশির বিশ্বাস, কাদের হাওলাদার,হেলাল হাওলাদার, জাকির হাওলাদার, নঈম মুন্সী, শুকুর হাওলাদার, মো. জয়নাল আবেদীন, জলিল মির্জা ও আফান হাওলাদার। এখন তাঁরা চান নিজেদের দেশে ফিরতে।

আরও পড়তে পারেন:

ফের দুর্ঘটনার কবলে শুভেন্দু অধিকারীর কনভয়, সেই একই এলাকায় গাড়িতে ধাক্কা ১০ চাকা লরির

এ বার পুজোর অনুদান বেড়ে ৬০ হাজার টাকা, ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

বিজেপি-তে যোগ দিলেই পাশে ঘেষবে না সিবিআই, ইডি! মুখ্যমন্ত্রী পদের ‘প্রস্তাব’ মণীশ সিসোদিয়াকে

শীর্ষ বিজেপি নেতার উপর আইএস-এর হামলার ছক! আত্মঘাতী হামলাকারী আটক রাশিয়ায়

আপ তো সুবিধাবাদী, কিন্তু কংগ্রেসের আচরণ? মণীশ সিসোদিয়াকে নিয়ে সিবিআই তদন্ত প্রসঙ্গে ওমর আবদুল্লা

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন