ইয়াসের থেকেও বেশি ক্ষয়ক্ষতি, রেকর্ড বৃষ্টিতে ভাসছে গোটা সুন্দরবন, মাথায় হাত গ্রামবাসীদের

0

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’-এর প্রভাবে জলোচ্ছ্বাসে সুন্দরবনে যা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল, তাকেও ছাড়িয়ে গিয়েছে গত কয়েক দিনের রেকর্ড বৃষ্টির প্রভাব। ধানচাষের পাশাপাশি ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে মাছচাষেও। তিন দিনের এই বৃষ্টির পর কার্যত মাথায় হাত গোটা সুন্দরবনের।

বঙ্গোপসাগরের নিম্নচাপটির অবস্থানগত কারণেই এ বার সরাসরি প্রভাব এসে পড়ে দক্ষিণ ২৪ পরগণায়। মঙ্গলবার বিকেল থেকে শুরু হয়েছিল অঝোর বৃষ্টি। সে বৃষ্টি কার্যত ৬০ ঘণ্টা অবিরাম চলার পরে শুক্রবার সকালের দিকে থামে। এই সময়সীমায় সুন্দরবনের কোথাও কোথাও পাঁচশো মিলিমিটার বৃষ্টিও রেকর্ড করে।

Shyamsundar

সুন্দরবনের অনেক বাসিন্দাই বলছেন যে এমন ভয়ংকর বৃষ্টি তাঁরা কোনো দিনও দেখেননি। এই বৃষ্টির ফলে সুন্দরবনের সব নদীই দু’ কুল ছাপিয়ে উপচে পড়েছে। ডুবে গিয়েছে গোটা সুন্দরবনই।

স্থানীয় এক বাসিন্দার কথায়, পাখিরালয়ের অসংখ্য বাড়ি জলের তলায়। কুমিরমারীতে এতটা বাজে অবস্থা যে কমিউনিটি কিচেন চলছে কিছু জায়গায় স্থানীয় ছেলেদের উদ্যোগে। এমনকি ঝড়খালির মতো জায়গা, যেটা প্রত্যন্ত নয়, সেটাও জলে ডুবে গিয়েছে। জলে ডুবে রয়েছে গোসাবাও।

কৃষিকাজ এবং মাছচাষে সরাসরি প্রভাব ফেলেছে এই ব্যাপক বৃষ্টি। সবজির জমি জলের তলায় চলে গিয়েছে। এমনকি ধানের বীজতলাও পুরোপুরি নষ্ট হয়ে গিয়েছে। পুকুর উপচে পড়ায় চাষের সমস্ত মাছও ভেসে গিয়েছে। এর পাশাপাশি সাপের উপদ্রবও বেড়েছে। সব মিলিয়ে খুবই করুণ অবস্থা সুন্দরবনের।

আশার কথা একটাই যে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা এখন আর নেই। তাই জল নেমে যাওয়ার অপেক্ষা শুরু করেছেন বাসিন্দারা। তবে জল নামার পর কী ছবি দেখা যাবে, সেটা ভেবেই এখন শিউরে উঠছেন তাঁরা।

আরও পড়তে পারেন বৃষ্টি কমলেও জল ছাড়ছে একাধিক জলাধার, জেলায় জেলায় বন্যা পরিস্থিতি

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন