বিধায়কের হাত ধরে এক হাজার বিজেপি কর্মী তৃণমূলে যোগ দিলেন কুলতলিতে

0
প্রায় এক হাজার বিজেপি কর্মী তৃণমূলের পতাকা তুলে নেন।

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, কুলতলি: ভোট-পর্ব মিটে যেতে শুরু হয়ে গেল দলবদল। তৃণমূলের বিপুল জয়ের পরে অন্য দল থেকে রাজ্যের শাসক দলে যোগদানের হিড়িক লেগে গিয়েছে। দীর্ঘ ৪৪ বছর পর এই প্রথম সরকার পক্ষের বিধায়ক পেয়েছে কুলতলি। স্বাভাবিক ভাবে সেখানেও দলবদলের বান ডেকেছে!

সুন্দরবনের পিছিয়ে পড়া কুলতলি বিধানসভায় এ বার বিপুল ভোটে জয়লাভ করে বিধায়ক হন কুলতলির ভূমিপুত্র গণেশচন্দ্র মণ্ডল। ১০ বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা সিপিএম এ বারে তৃতীয় স্থানে নেমে যায়। বিজেপি এখানে দ্বিতীয় স্থানে থাকে। কিন্তু তৃণমূলের জয়ের পরে কুলতলিতে বিরোধী দল থেকে কর্মীরা দলেদলে ঘাসফুল শিবিরে আসতে শুরু করেন।

Shyamsundar
[বিধায়কের উপস্থিতিতে যোগদান পর্ব]

তৃণমূলের দাবি, বুধবার সকালে কুলতলি বিধানসভার গোপালগঞ্জ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রায় এক হাজার বিজেপি কর্মী তাদের পতাকা তুলে নেন। এ দিন সানকিজাহান খেয়াঘাটের মাঠে এক অনুষ্ঠানে এঁদের হাতে তৃণমূলের দলীয় পতাকা তুলে দিলেন কুলতলির বিধায়ক।

তিনি বলেন, “কুলতলির উন্নয়নের স্বার্থে আসুন না দলমত নির্বিশেষে এক হয়ে কাজ করি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্বপ্নকে স্বার্থক করি”।

কুলতলির প্রাক্তন তৃণমূল ব্লক সভাপতি বর্তমানে বিজেপি নেতা গোপাল মাঝি বলেন, “তৃণমূলের কর্মীদের আবার তৃণমূলের পতাকা হাতে দিয়ে বিজেপির বদনাম করতে চাইছে ওরা”। বিজেপির ব্লক যুব সভাপতি উত্তম হালদার বলেন, “এটা একটা নাটক ছাড়া কিছু নয়। মানুষকে ভয় দেখিয়ে কোনো কাজে সফল হওয়া যায় না”।

আরও পড়তে পারেন: লালারস সংগ্রহ করে বিনা টেস্টেই ভুয়ো রিপোর্টের ব্যবসা, শিলিগুড়িতে ধৃত ১

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন