Connect with us

দঃ ২৪ পরগনা

রাজ্যে ‘উম্পুন’ মোকাবিলায় প্রস্তুতি, সাইক্লোন শেল্টারে মাস্ক, স্যানিটাইজার

খবর অনলাইন ডেস্ক: এখনও পর্যন্ত যা খবর, তাতে জানা গিয়েছে ঘূর্ণিঝড় ‘উম্পুন’ (Amphan – তাইল্যান্ডের দেওয়া নামের ইংরেজি বানান অনুযায়ী উচ্চারণ ‘আমফান’ হলেও, কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, এই নামের উচ্চারণ ‘উম্পুন’) পশ্চিমবঙ্গের দিকেই ধেয়ে আসছে। তাই এই করোনাজনিত (coronavirus) পরিস্থিতিতে সেই ঘূর্ণিঝড়ের মোকাবিলায় প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে রাজ্য প্রশাসন।

রাজ্যের উপকূলবর্তী জেলাগুলির সাইক্লোন শেল্টারে হাজার হাজার গ্রামবাসীকে আশ্রয় দিতে হতে পারে, এই আন্দাজ করে সেই সব সেন্টারে মাস্ক, স্যানিটাইজার আর সাবান মজুত করা শুরু হয়ে গিয়েছে।

পূর্ব মেদিনীপুর (East Medinipur) জেলার কাঁথির (Contai) এসডিও শুভময় ভট্টাচার্য বলেন, “কোভিড ১৯ (covid 19) অতিমারির কথা মাথায় রেখে এই প্রথম আমরা মাস্ক, স্যানিটাইজারের মতো জিনিসগুলো সংগ্রহ করে রাখছি। সব সাইক্লোন শেল্টারে এগুলো মজুত করা হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়ের আগে গ্রামবাসীদের এই সাইক্লোন শেল্টারগুলোতে আশ্রয় দিতে হবে। সেখানে যাতে কোনো রোগ না ছড়ায় তা সুনিশ্চিত করতেই এই ব্যবস্থা করা হচ্ছে।”

উল্লেখ্য, পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথি মহকুমার জনসংখ্যা ১৬ লক্ষের মতো। ‘বুলবুল’-এর সময় সেখানে ৪৫ হাজার লোককে সরিয়ে নিয়ে যেতে হয়েছিল।

আরও পড়ুন: উম্পুন লাইভ: গতিপথ মেনে চললে রাজ্যের ইতিহাসে অন্যতম বিধ্বংসী ঘূর্ণিঝড় হতে পারে উম্পুন

‘উম্পুন’ সম্পর্কে রবিবার সকালে যা খবর পাওয়া গিয়েছে, তাতে দেখা যাচ্ছে, এই ঘূর্ণিঝড় ‘চরম অতি প্রবল’ রূপ নিয়ে বুধবার নাগাদ দিঘার কাছে ‘ল্যান্ডফল’ করতে পারে।

২০১৯-এর ‘বুলবুল’-এ মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল দক্ষিণ ২৪ পরগণার (South 24 Paraganas) কাকদ্বীপ ব্লক। কাকদ্বীপের বিডিও দিব্যেন্দু সরকার বলেন, “এ বারের পরিস্থিতি ভিন্ন। কোভিড ১৯-এর জন্য আমাদের শারীরিক দূরত্বও বজায় রাখতে হবে। এর জন্য সাইক্লোন সেন্টারের সংখ্যাও বাড়ানো হচ্ছে। বিভিন্ন স্কুলবাড়িকে সাইক্লোন শেল্টার করা হচ্ছে। এক জায়গায় যাতে খুব ভিড় না হয়ে যায়, তার জন্যই এই ব্যবস্থা।”

কাকদ্বীপে ১১টি সাইক্লোন শেল্টার ছাড়াও ৬৪টি স্কুলবাড়িকে চিহ্নিত করা হয়েছে, যেগুলিকে সম্ভাব্য সাইক্লোন শেল্টার হিসাবে কাজে লাগানো যেতে পারে।

দিব্যেন্দুবাবু জানান, সাইক্লোন শেল্টার ও স্কুলবাড়িগুলিতে খাবার ও পানীয় জল ছাড়াও মাস্ক, স্যানিটাইজার আর সাবান মজুত করা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই ৫০০ থেকে ৮০০ মাস্ক মজুত করা হয়েছে। কোভিড ১৯ পরিস্থিতিতে আজকাল বেশির ভাগ মানুষই মাস্ক ব্যবহার করেন। কারণ সরকার মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করেছে। সুতরাং যাঁদের মাস্ক নেও তাঁদেরই শুধু মাস্ক দেওয়া হবে। মাস্ক ২০০ বোতল স্যানিটাইজারও মজুত করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

পশ্চিমবঙ্গে তিনটি উপকূলবর্তী জেলা – উত্তর ২৪ পরগণা, দক্ষিণ ২৪ পরগণা এবং পূর্ব মেদিনীপুর। রাজ্যে ঘূর্ণিঝড় আঘাত করলে সেই আঘাত সব চেয়ে বেশি সইতে হয় এই তিন জেলাকে।

দঃ ২৪ পরগনা

‘গরিবের প্রাপ্য টাকা হজম করে দিচ্ছেন তৃণমূল নেতৃত্ব’, অভিযোগ শমীক লাহিড়ির

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, জয়নগর: করোনাভাইরাস লকডাউনের মধ্যেও উম্পুন ত্রাণ দুর্নীতি নিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে বামফ্রন্ট, বিজেপি এবং কংগ্রেসের মতো বিরোধী দলগুলি। বৃহস্পতিবার তেমনই একটি বিক্ষোভ সমাবেশ এবং প্রতিবাদসভা অনুষ্ঠিত হল দক্ষিণ ২৪ পরগনার জয়নগরে।

এ দিন দুপুরে জয়নগর-১ বিডিও অফিস বহড়ুতে সিপিএমের উদ্যোগে একগুচ্ছ দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ এবং প্রতিবাদসভা হয়। সভার মূল বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন দলের জেলা সম্পাদক শমীক লাহিড়ি।

দাবি-দাওয়া

ঘূর্ণিঝড় উম্পুনকে জাতীয় বিপর্যয় হিসাবে ঘোষণা, উম্পুনে ক্ষতিগ্রস্ত সমস্ত মানুষকে সরকারি সাহায্য, একশো দিনের কাজ, পরিযায়ী শ্রমিকদের একশো দিনের কাজ এবং স্বচ্ছ্ব পদ্ধতিতে ক্ষতিপূরণের দাবি তোলা হয়ে এ দিনের অনুষ্ঠানে।

সিপিএমের অভিযোগ

শমীক লাহিড়ি বলেন, “প্রশাসনকে কাজে লাগিয়ে গরিব মানুষের প্রাপ্য টাকা হজম করে দিচ্ছেন তৃণমূল নেতৃত্ব । আমরা চাই উম্পুনে ক্ষতিগ্রস্তরা সবাই ক্ষতিপূরণ পাক”।

সিপিএম সদস্য অপূর্ব প্রামানিকের নেতৃত্বে পাঁচ জনের একটি প্রতিনিধি দল জয়নগর-১ ব্লকের যুগ্ম বিডিও বিপ্লব পালের কাছে ডেপুটেশন পেশ করেন। ব্লকের যুগ্ম বিডিও বিপ্লব পাল দাবি গুলি বিবেচনা করার আশ্বাস দিয়েছেন বলে জানান সিপিএম নেতৃত্ব।

দুর্নীতিরোধে মুখ্যমন্ত্রী

প্রসঙ্গত, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একাধিক বার বলেছেন, দলমত নির্বিশেষে ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে ত্রাণ পৌঁছে দিতে হবে। এ নিয়ে কোনো দুর্নীতি বরদাস্ত করা হবে না। ত্রাণ নিয়ে কোনো নেতা দুর্নীতি করলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশের পর গ্রাম পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি স্তরের অসংখ্য তৃণমূল নেতাকে শোকজ করা হয়। এ বিষয়ে দলীয় পর্যায়েও তদন্ত চলছে বলে জানা গিয়েছে।

বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি অবশ্য শাসক দলের এহেন পদক্ষেপে ‘ড্যামেজ কন্ট্রোল’-এর ইঙ্গিত দেখছেন। তাদের বক্তব্য, দুর্নীতি যে হচ্ছেই, সেটা স্বীকার করে নিচ্ছে শাসক দল।

Continue Reading

দঃ ২৪ পরগনা

বিডিও অফিসে উম্পুনে ক্ষতিপূরণের ফর্ম জমা দিতে গিয়ে কুলতলিতে পদপিষ্ট একাধিক

ভিড়ের চাপে বেশ কয়েকজন মহিলা মাটিতে পড়ে যান। কেউ আবার তাঁদের উপর দিয়েই চলে যান। ফলে মাটিতে পড়ে থাকা মহিলারা আহত হন।

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, কুলতলিত: ঘূর্ণিঝড় উম্পুনে (Cyclone Amphan) ক্ষতিপূরণের ফর্ম জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে চরম বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হল দক্ষিণ ২৪ পরগনার কুলতলিতে। বৃহস্পতিবার বিডিও অফিসের সামনে হুড়োহুড়িতে সরকারি ভাবে দু’জন মহিলার পদপিষ্ট হওয়ার কথা স্বীকার করা হয়েছে।

বিডিও অফিস সূত্রে জানা গিয়েছে, সন্ধ্যা গায়েন এবং অসীমা হালদার নামে দুই পদপিষ্ট মহিলাকে হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। তবে আবেদনকারীদের দাবি, আরও বেশ কয়েকজন জখম হয়েছেন।

এ দিন বিডিও অফিসের সামনে আবেদনকারীদের ভিড় ক্রমশ লম্বা হতে শুরু করে। সকাল থেকেই লাইনে দাঁড়িয়ে পড়তে শুরু করেন অনেকে। বেলা গড়ালে রোদের তাপে কেউ কেউ অসুস্থ হয়েও পড়েন। ঘটনায় প্রকাশ, তাঁদের মধ্যেই কেউ কেউ আগে নিজের ফর্ম দিতে চান। যা নিয়ে বিতর্ক বাঁধে। শুরু হয়ে যায় হুড়োহুড়ি।

সে সময় ভিড়ের চাপে বেশ কয়েকজন মহিলা মাটিতে পড়ে যান। কেউ আবার তাঁদের উপর দিয়েই চলে যান। ফলে মাটিতে পড়ে থাকা মহিলারা আহত হন। দুই মহিলাকে তৎক্ষণাৎ সেখান থেকে উদ্ধার করে স্থানীয় জামতলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

বিক্ষোভ আগেও!

গত বুধবার বিকেলে কুলতলির দেউলবাড়ি দেবীপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের মাধবপুর গ্রামে ‘উম্পুন দুর্নীতি’র বিরুদ্ধে ক্ষোভ চরমে ওঠে। বিক্ষোভকারীদের দাবি, তালিকায় যাঁদের নাম রয়েছে, তাঁরা ক্ষতিপূরণ পাচ্ছেন না। উল্টে গ্রামের বাইরের কিছু লোক ক্ষতিপূরণ পেয়ে যাচ্ছেন।

এক বিক্ষোভকারী বলেন, “উম্পুনে আমাদের ঘর ভেঙে গিয়েছে। কিন্তু সরকারি ঘোষণা মতো ২০ হাজার টাকার ক্ষতিপূরণ পাইনি। প্রধানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তালিকা জমা দেওয়া হয়েছে। পাওয়া যাবে। কিন্তু কবে”?

উম্পুন ক্ষতিপূরণ

ঘূর্ণিঝড় উম্পুনে যাঁরা চরম ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তাঁদের জন্য ২০ হাজার টাকার ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পশ্চিমবঙ্গে কমপক্ষে ১০ লক্ষ বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে সেই ক্ষতিপূরণ পাওয়া নিয়ে অসংখ্য অভিযোগ উঠে আসে। ‘ক্ষতিপূরণ পাওয়ার জন্য অন্যকে টাকার ভাগ দিতে হচ্ছে’ বলেও মারাত্মক অভিযোগ উঠে আসে।

জুন মাসের মাঝামাঝি মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন, ক্ষতিপূরণ পাওয়ার জন্য ফর্ম কেনার দরকার নেই। টাকা সরাসরি ক্ষতিগ্রস্তের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পৌঁছে যাবে। একই সঙ্গে তিনি বলেন, “অভিযোগ সত্য হিসাবে প্রমাণ হলে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন”।

Continue Reading

দঃ ২৪ পরগনা

দেশের মধ্যে প্রবীণতম, করোনাকে হেলায় হারালেন ডায়মন্ড হারবারের ৯৯ বছরের বৃদ্ধ

খবরঅনলাইন ডেস্ক: তাঁর শরীরে করোনা ধরা পড়ার পর পরিজনরা তাঁর বেঁচে থাকার আশা প্রায় ছেড়েই দিয়েছিলেন। কারণ করোনার সঙ্গেও বার্ধক্যজনিত আরও অসুস্থতা তো রয়েছে।

কিন্তু সবাইকে কার্যত চমকে দিয়ে করোনাকে হেলায় হারালেন ৯৯ বছরের বৃদ্ধ। কাঁকুড়গাছির বেসরকারি নার্সিংহোমে চিকিৎসাধীন করোনা আক্রান্ত ওই বৃদ্ধ শ্রীপতি ন্যায়বান সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। রাজ্য তো বটেই, দেশের মধ্যে সব থেকে প্রবীণ ব্যক্তি তিনি, যিনি করোনাকে হারালেন।

ওই বৃদ্ধর দুই ছেলেও করোনায় আক্রান্ত। ৭২ বছর বয়সি বড়ো ছেলে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি রয়েছেন। আরও এক ছেলে মুকুন্দপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

জানা গিয়েছে, বৃদ্ধের এক ছেলের প্রথম কোভিড ধরা পড়ে। নিউমোনিয়ার উপসর্গ নিয়ে গত ১১ জুন রাতে তাঁকে মুকুন্দপুরের বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করানো হয়। করোনা পরীক্ষা হলে তার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। দশ দিন পর তাঁর আরও এক ছেলেও করোনায় আক্রান্ত হন।

দুই সন্তান আক্রান্ত হওয়ার মধ্যে গত সপ্তাহে অসুস্থ বোধ করেন বৃদ্ধ। গত ২৪ জুন তাঁর নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। বৃদ্ধের মৃদু হাইপারটেনশন ছিল। শীর্ণকায় শরীরে অক্সিজেনের মাত্রাও স্বাভাবিকের থেকে কম ছিল বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা।

এই অবস্থায় বৃদ্ধকে ডায়মন্ড হারবার থেকে কাঁকুড়গাছির বেসরকারি নার্সিংহোমে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে প্রায় সপ্তাহখানেক চিকিৎসাধীন থাকার পরে অবশেষে তাঁকে ছুটি দেওয়া হয়। করোনাকে হারিয়ে বৃদ্ধ বলেন, ‘‘ভালো আছি। শরীরে এখন কোনো অসুবিধা নেই।’’

করোনা যে মারণ ভাইরাস নয় আর করোনা নিয়ে কারও অতিরিক্ত আতঙ্কিত হওয়ারও যে দরকার নেই, এই বৃদ্ধই সেটা বুঝিয়ে দিলেন।

Continue Reading
Advertisement

কেনাকাটা

কেনাকাটা3 days ago

ঘরের একঘেয়েমি আর ভালো লাগছে না? ঘরে বসেই ঘরের দেওয়ালকে বানান অন্য রকম

খবরঅনলাইন ডেস্ক : একে লকডাউন তার ওপর ঘরে থাকার একঘেয়েমি। মনটাকে বিষাদে ভরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের রদবদল করুন। জিনিসপত্র এ-দিক থেকে...

কেনাকাটা5 days ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

কেনাকাটা6 days ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক : লকডাউনের মধ্যে আনলক হলেও খুব দরকার ছাড়া বাইরে না বেরোনোই ভালো। আর বাইরে বেরোলেও নিউ নর্মালের সব...

কেনাকাটা7 days ago

হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ৩১ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

অনলাইনে খুচরো বিক্রেতা অ্যামাজন ক্রেতার চাহিদার কথা মাথায় রেখে ঢেলে সাজিয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সম্ভার।

নজরে