মিঠুন চক্রবর্তী। ফাইল ছবি

কলকাতা: গত বিধানসভা ভোটের ঠিক মুখেই ব্রিগেডের সভায় বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। নির্বাচনে তিনিই ছিলেন রাজ্য বিজেপির তারকা-প্রচারক। কিন্তু ভোটে দলের বিপর্যয়ের পর বঙ্গ-রাজনীতির ময়দানে তাঁকে আর সে ভাবে সক্রিয় হতে দেখা যায়নি। সোমবার মুরলীধর সেন লেনে রাজ্য বিজেপির সদর দফতরে দলীয় নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠকের পর মিঠুন চক্রবর্তী যা বললেন, তা নিয়ে বঙ্গ-রাজনীতিতে নয়া গুঞ্জন শুরু হয়েছে।

রাতের সাংবাদিক বৈঠকে সেই জল্পনাই উস্কে দিলেন স্বয়ং ‘মহাগুরু’। তিনি বলেন, ‘‘দল আমাকে যে কাজ দিয়েছে, তা করে যাব আমি। আমি রাজনীতি করি না, আমি মানুষ-নীতি করি। বাংলার মানুষের জন্য কাজ করতে চাই এবং সেটা করবও।”

সোমবার সকালেই কলকাতায় পৌঁছেছেন মিঠুন। যদিও কলকাতা বিমানবন্দর থেকে বেরোনোর সময় সাংবাদিকদের সব প্রশ্ন তিনি এড়িয়ে গিয়েছেন। পরে সন্ধ্যা নাগাদ মিঠুন পৌঁছে যান বিজেপির দফতরে। সেখানে রাজ্যের বর্তমান বিজেপি নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। তার পর সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে মিঠুন বলেন, ‘‘শরীর খারাপ থাকায় এত দিন আসতে পারিনি। রাজনীতি রাজনীতির জায়গায় থাকুক। কিন্তু যা খবর পেয়েছি, ভোটের পর যে অশান্তি হয়েছে, তা খুবই দুঃখজনক। তিন থেকে ৭৭ হয়েছে বিজেপি। আমি খুবই খুশি। এক দিনে সব পাল্টে যায় না। কিন্তু বিজেপি যে জায়গায় পৌঁছেছে, আমি খুবই খুশি।’’

বিজেপি সূত্রে খবর, ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনকে নজরে রেখেই আবার বাংলায় পাঠানো হয়েছে অভিনেতাকে। লোকসভা কেন্দ্র ধরে ধরে প্রচার চালানোর যে কর্মসূচি নিয়েছে রাজ্য নেতৃত্ব, সেই সব কর্মসূচিতে কাজে লাগানো হতে পারে মিঠুনকে। যদিও এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে কিছুই জানানো হয়নি গেরুয়া শিবিরের পক্ষ থেকে।

আরও পড়তে পারেন

মুসে ওয়ালাকে খুনের পর গাড়িতেই পিস্তল উঁচিয়ে উৎসব আততায়ীদের, প্রকাশ্যে চাঞ্চল্য ভিডিও

প্রতি ১০ জনে চার জন কোভিড পজিটিভ কলকাতায়, এটা ভালো কিছুরও ইঙ্গিতবাহী

দশ দিন আগেই ছিল দু’হাজারে, সেই দিল্লি এবং মুম্বইয়ে সংক্রমণ নামল চারশোর ঘরে

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন