দিলীপ ঘোষ, অর্পিতা মুখোপাধ্যায়, সৌগত রায়। প্রতিনিধিত্বমূলক গ্রাফিক্স ছবি

কলকাতা: এসএসসি দুর্নীতিতে গ্রেফতার মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের বেলঘরিয়ার আবাসনে না কি যাতায়াত ছিল তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়ের! এমনটাই অভিযোগ বিজেপির কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষের। পাল্টা তৃণমূল সাংসদের চ্যালেঞ্জ, অভিযোগ প্রমাণিত হলে রাজনীতি ছেড়ে দেবেন তিনি।

গত শুক্রবার টালিগঞ্জ এবং বুধবার বেলঘরিয়ার রথতলায় অর্পিতার ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হয়েছে সবমিলিয়ে প্রায় ৫০ কোটি টাকা, ৫ কেজি সোনা এবং প্রচুর সম্পত্তির নথিপত্র। বৃহস্পতিবা তৃণমূল সাংসদকে সরাসরি নিশানা করেন দিলীপ। টুইটারে লেখেন, অর্পিতার আবাসনে প্রায়ই যেতেন তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়।

টুইটারে দিলীপ লেখেন, “বেলঘরিয়ায় আবাসনে অর্পিতার ফ্ল্যাট থেকে ৩৫ কোটি টাকার সম্পত্তি উদ্ধার হয়েছে। ওই আবাসনে তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়েরও যাতায়াত ছিল। সেখানে তাঁর একটি অফিসও রয়েছে। যত সময় যাবে ততই তৃণমূল নেতার নোংরা মুখোশ খুলবে”।

পাল্টা জবাবে সৌগত বলেন, “প্রথমত অর্পিতা মুখোপাধ্যায়কে আমি চিনি না। তাই তাঁর যে ওই আবাসনে কোনো ফ্ল্যাট আছে, তা আমার জানার কথা নয়। রথতলার ক্লাব টাউন আবাসনে যে ফ্ল্যাটটি আমার বলা হচ্ছে, তা আমার নয়। একজন প্রোমোটার কামারহাটি পুরসভার চেয়ারম্যান মারফত আমাকে অফিস হিসেবে ব্যবহারের জন্য দিয়েছে। আমি ওই আবাসনে থাকি না, একটি অফিস রয়েছে মাত্র। আর আমার অফিসটি ব্লক-২তে, আর খবর নিয়ে জানলাম অর্পিতার ফ্ল্যাটটি ব্লক-৫-এ”।

দিলীপের দাবি প্রসঙ্গে তৃণমূল সাংসদ আরও বলেন, “আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে, তা মিথ্যে। দিলীপ ঘোষ যদি নিজের অভিযোগ প্রমাণ করতে পারেন, তা হলে আমি সাংসদ পদ ছেড়ে দেব”।

আরও পড়তে পারেন:

অর্পিতার ফ্ল্যাট থেকে নতুন করে টাকা উদ্ধারের পর তৃণমূলের তরফে বিবৃতি দিলেন কুণাল ঘোষ

প্রায় ১৪ ঘণ্টা জেরার পর ইডির দফতর থেকে মানিক বেরোলেন রাত সাড়ে ১২টায়

গণনা শেষ হল বৃহস্পতিবার ভোরে, অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হওয়া টাকার পরিমাণ কত?

অর্পিতার বেলঘরিয়ার ফ্ল্যাটেও ‘টাকার পাহাড়’, সোনা-রুপো, জমির নথি

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন