farmer

হাওড়া: আগামী মাস থেকে কৃষিঋণের সুদে এক ধাক্কায় বড়ো ছাড় দিচ্ছে রাজ্য সরকার। ডিসেম্বর মাস থেকে কৃষিঋণে সুদের হারে ২ শতাংশ করে ছাড় দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। পাশাপাশি স্বনির্ভর গোষ্ঠীর জন্য ঋণে বরাদ্দের পরিমাণ বাড়ানো হচ্ছে।

আগামী আর্থিক বছরে কৃষিঋণের পরিমাণও অনেকটাই বাড়ানো হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। চলতি আর্থিক বছরের তুলনায় কৃষিঋণে প্রায় ২ হাজার ৮০০ কোটি টাকা বৃদ্ধি করা হয়েছে। স্বনির্ভর গোষ্ঠীর জন্যও বাড়তি ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে সমবায় দফতর। এ ব্যাপারের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য দফতরের আধিকারিকদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এত দিন কৃষকরা ৭ শতাংশ হারে কৃষিঋণ পেতেন। তাঁরা এই ঋণ শোধ করে দিলে সরকার ৩ শতাংশ সুদের টাকা ফিরিয়ে দিত। এর ফলে কৃষককে মাত্র ৪ শতাংশ হারে সুদ দিতে হত। এ বার থেকে সরকার ৫ শতাংশ সুদের টাকা কৃষককে ঋণ পরিশোধের সময় ফিরিয়ে দেবে। এতে কৃষককে মাত্র ২ শতাংশ হারে সুদ দিতে হবে। সমবায় দফতরের অফিসারদের দাবি, এত কম শতাংশ হারে সুদ দেশের অন্য কোনো রাজ্যে দেওয়া হয় না।

চলতি আর্থিক বছরে রাজ্য সমবায় দফতর ৫ হাজার ২০০ কোটি টাকা কৃষিঋণ দিয়েছে। আগামী আর্থিক বছরে কৃষিঋণ বাবদ ৮ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। অর্থাৎ গত বছরের তুলনায় ২ হাজার ৮০০ কোটি টাকা বেশি কৃষিঋণ দেওয়া হবে।

সমবায় দফতর সূত্রের খবর, চলতি আর্থিক বছরে স্বনির্ভর গোষ্ঠীকে ১ হাজার কোটি টাকা ঋণ দেওয়া হয়েছিল। আগামী আর্থিক বছরে আরও ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে। অর্থাৎ আগামী আর্থিক বছরে ১২০০ কোটি টাকা স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলির জন্য বরাদ্দ করেছে রাজ্য সরকার।

আর পড়ুন : কলকাতার কাছেই গড়ে উঠছে অটিজম টাউনশিপ

লোকসভা ভোটের কথা মাথায় রেখেই কি এই উদ্যোগ রাজ্য সরকারের? রাজনৈতিক মহল তেমনটাই মনে করছে। গ্রামীণ ভোটারদের উপরই রাজ্যের ফলাফল অনেকটাই নির্ভর করে। সেই কারণে কৃষক ও মহিলাদের এই সুবিধা দিচ্ছে রাজ্য সরকার।

যদিও সময়বায় মন্ত্রী অরূপ রায় তেমনটা মনে করেন না। তাঁর দাবি, ‘‘ এটি রাজ্যে উন্নয়ন কর্মযজ্ঞেরই অঙ্গ। বাংলার কৃষক ও গরিব মানুষের জন্য মুখ্যমন্ত্রী নানা রকম প্রকল্প নিয়েছেন। কৃষকরা যাতে মহাজনদের কাছে চড়া হারে ঋণ নিত বাধ্য না হন, তার জন্য রাজ্য সরকার আরও দুই শতাংশ সুদ কমিয়ে দিয়েছে।’’

সূত্র : বর্তমান পত্রিকা

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here