মোর্চার ডাকা বন্‌ধে সরকারি দফতরে উপস্থিতি ‘স্বাভাবিক’, দাবি গৌতম দেবের

0

দার্জিলিং : সামান্য কয়েকটি বিক্ষিপ্ত ঘটনা ঘটলেও দার্জিলিং, কালিম্পং, মিরিক আর কার্শিয়াং-এর সরকারি অফিসগুলিতে উপস্থিতি হার ‘স্বাভাবিক’, জানালেন রাজ্য পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব। গোর্খাল্যান্ডের দাবিতে সোমবার থেকে পাহাড়ে অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্‌ধের ডাক দেয় গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার। মোর্চা দাবি করছে, এ দিনের বন্ধ সফল হয়েছে।

গৌতমবাবু জানিয়েছেন, সাধারণ মানুষ বন্‌ধ সমর্থন করেননি। তা অগ্রাহ্য করে তাঁরা অফিস, আদালত, স্কুল, কলেজে এসেছেন। দার্জিলিং-এর জেলাশাসক জয়শি দাশগুপ্তের দাবি, পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণই রয়েছে। সবটাই এক দম স্বাভাবিক। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য আগে থেকেই বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল। পুলিশি নজরদারির ব্যবস্থা করা হয়েছিল পর্যটন দফতর-সহ সরকারি দফতরগুলির সামনে। পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণ ও স্বাভাবিক রাখতে র‍্যাফও নামানো হয়েছিল। পাশাপাশি সেনার সাহায্যও নেওয়া হয়েছে।

Loading videos...

গৌতমবাবু জানান, প্রশাসন আইন মেনেই সব কাজ করেছে। পর্যটক ও সাধারণ মানুষের যাতে কোনো রকম সমস্যা না হয় তার জন্য যাবতীয় ব্যবস্থা করা হয়েছিল। কেউ কোনো রকম উত্তেজনা সৃষ্টি করার চেষ্টা করলেই তাকে আটক করার নির্দেশও দেওয়া হয়েছিল।

অন্য দিকে মোর্চার সাধারণ সম্পাদক রোশন গিরি দাবি করেন, বন্‌ধ সফল হয়েছে। সাধারণ মানুষ বন্‌ধের ডাকে স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে সাড়া দিয়েছেন। সরকার পক্ষ ১০০% উপস্থিতি দাবি করলেও তা ঠিক নয়।

এ দিকে পুলিশ জানিয়েছে, দার্জিলিং, কার্শিয়াং ও কালিম্পং-এর পিডব্লুডি অফিস, পঞ্চায়েত অফিসে ভাঙচুর করার অভিযোগে ৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। কিন্তু রোশন গিরির দাবি, এই অভিযোগ অমূলক। দলকে কালিমালিপ্ত করার জন্য এগুলি মিথ্যা অভিযোগ।

সরকারের পক্ষ থেকে আগেই সরকারি কর্মচারীদের সতর্ক করে দেওয়া হয়েছিল। বলা হয়েছিল, বন্‌ধের দিন উপস্থিতি না থাকলে চাকরি থেকে ছাঁটাই করে দেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.