Teachers

সমীর মাহাত, ঝাড়গ্রাম: এ দিন ঝাড়গ্রামের বেলপাহাড়ির ডাকাইশোল এমএসকে কেন্দ্রে শিক্ষক দিবস পালনের পর এক অভিনব ঘটনা ঘটে। কেন্দ্রের শিক্ষকদের দু:স্থতার কথা জানাজানি হতেই ছাত্র-ছাত্রী ও উপস্থিত অভিভাবকেরা শিক্ষকদের অর্থ সাহায্য দিতে শুরু করেন। অনুষ্ঠান শেষে শিক্ষক, অভিভাবক ও বিনপুর-২ ব্লকের এসইও শরৎচন্দ্র মাহাতো রাস্তার ‘মাগন’ শুরু করেন।

জানা গিয়েছে তাঁদের এই ‘মাগন’ পর্ব চলবে দুর্গাপুজো পর্যন্ত। সংগৃহীত অর্থ স্থানীয় ব্লক অফিসে জমা করা হবে, পরে তা চিকিৎসা, বিবাহ-সহ বিভিন্ন বিশেষ কাজে দু:স্থ শিক্ষকদের দেওয়া হবে। উল্লেখ্য সর্বশিক্ষা মিশনের সহযোগিতায় এ রাজ্যে  বাম আমলে গড়ে ওঠে শিশু শিক্ষা কেন্দ্র (এসএসকে) ও মাধ্যমিক শিক্ষা কেন্দ্র (এমএসকে)। কেন্দ্রগুলির শিক্ষক-শিক্ষিকাদের সাম্মানিক হল ৫,৯৫৪ টাকা (এসএসকে) ও ৮,৯৩০, ৯৬৭৫, ১০, ৪০০ টাকা (এমএসকে)। একাংশের শিক্ষক-শিক্ষিকাদের দাবি তাঁরা দু:স্থ!


আরও পড়ুন: শিক্ষক দিবস ২০১৮: সোশ্যাল মিডিয়া উপচে পড়ছে সর্বপল্লি রাধাকৃষ্ণাণের প্রতি শ্রদ্ধার্ঘ্যে


অবশ্য এই এলাকার শিক্ষকেরা জানাচ্ছেন, “আমরা বিদ্যালয়ের ১০টা – ৪টা সময়টুকু বাদ দিয়ে আমাদের নিজেদের সংসার চালানোর জন্য বাধ্য হয়ে কেউ শালপাতা, কেন্দুপাতা, ছাতু, পিঁপড়ের ডিম সংগ্রহ করে হাটে বিক্রি করে, কেউ বা পার্ট টাইম গাড়ি চালিয়ে ইত্যাদি বাড়তি টাকা আয় করে সংসার চালাই। আমরা সরকার নির্ধারিত ন্যূনতম মজুরিও পাই না, অথচ সাধারণ শিক্ষকদের মতো কাজ করতে হয়। কোনো সরকারি সুযোগ-সুবিধা ছাড়াই। অন্যান্য ক্ষেত্রে বেতন বৃদ্ধির পর অবশিষ্ট কিছু থাকলে তবেই আমরা পাই”।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন