hilsa fishesh presented to teachers

নিজস্ব প্রতিনিধি, বারুইপুর: কিছু দিন আগেও ইলিশ ছিল আলালের ঘরের দুলাল। সেই দুর্মূল্য ইলিশ এখন দেদার সস্তায় বিকোচ্ছে। তাই শিক্ষক দিবসের এক অনুষ্ঠানে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের উপহার হিসাবে দেওয়া হল রুপোলি ইলিশ। এবং আরও শুনলে জিভে জল আসবেই – একটা নয়, চার থেকে পাঁচটা করে ইলিশ। অভিনব উপহার হাতে পেয়ে খুশি শিক্ষক-শিক্ষিকারা।

subrata halder presents hilsa fishes
শিক্ষিকাদের হাতে ইলিশ মাছ তুলে দিচ্ছেন সুব্রত হালদার।

শিক্ষক দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার দুপুরে বারুইপুরে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল বারুইপুর তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাথমিক দক্ষিণ চক্র। ওই অনুষ্ঠানে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের হাতে ইলিশ-উপহার তুলে দেন প্রাথমিক দক্ষিণ চক্রের সভাপতি সুব্রত হালদার।

শুধু উপহার নয়, পেট পুরে পাত জুড়ে যত খুশি ইলিশ মাছের নানা পদ খাওয়ার আয়োজন করা হয়েছিল। ইলিশ তেল থেকে শুরু করে ইলিশ ভাজা, ইলিশ পাতুরি, ইলিশ ভাপা ইত্যাদি নানা লোভনীয় পদ। পাত ভরে ভুরিভোজ।

কেন এই অভিনব উদ্যোগ? সুব্রতবাবু জানালেন, শিক্ষক-শিক্ষিকাদের হাতে এই দিনে ছাত্রছাত্রীরা নানা উপহার তুলে দিয়ে সন্মানিত করে। এখানে আমরা শিক্ষক-শিক্ষিকাদের হাতে রুপোলি ইলিশ তুলে দিয়ে সন্মানিত করলাম। শুধু তাদের জন্যই এই আয়োজন।

এই অনুষ্ঠানে ১০০ জন শিক্ষক-শিক্ষিকাকে সন্মানিত করা হয়। এই অভিনব উপহার পেয়ে শিক্ষক-শিক্ষিকারা বেজায় খুশি। শিক্ষিকা লিপিকাদেবী, স্মিতাদেবী বললেন, “শুধু যে উপহার হিসাবে ইলিশ পেলাম তা-ই নয়, ইলিশের নানা পদের ভূরিভোজও করলাম। সত্যি একেবারে অন্য রকম অনুষ্ঠান।”

অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি সর্বপল্লি রাধাকৃষ্ণনের ছবিতে মাল্যদান করা হয়। ছোটো মেয়েরা প্রদীপ জ্বালিয়ে সন্মান জানায়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট শিক্ষক নির্মল করণ, পুরসভার ভাইস চেয়ারম্যান গৌতম দাস, প্রাক্তন পুরপিতা বিভাস সর্দার-সহ অন্যরা।

নিরক্ষর অভিভাবকদের হাতে বর্ণ পরিচয়, খাতা।

varna parichay presented to illiterate guardians
নিরক্ষর অভিভাবকদের হাতে দেওয়া হল বর্ণ পরিচয়।

এরই পাশাপাশি মহামায়াপুর আদর্শ বিদ্যাপীঠ স্কুলে নিরক্ষর অভিভাবকদের হাতে বর্ণ পরিচয়, খাতা তুলে দিয়ে সাক্ষর করার প্রতিশ্রুতি দিল ছাত্রছাত্রীরা। নিজেদের নিরক্ষর অভিভাবকদের আজ এই বিশেষ দিনে সাক্ষর করার এই রকম সুযোগ পেয়ে খুশি তারা। প্রতি শনিবার এই সব নিরক্ষর অভিভাবককে বিশেষ প্রশিক্ষণ দিয়ে সাক্ষর করার অঙ্গীকার নিয়েছে এই মহামায়াপুর আদর্শ বিদ্যাপীঠ ।

 

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন