Jail
আর্থিক প্রতারণার অভিযোগে গ্রেফতার তিন। প্রতীকী ছবি

কলকাতা: আর্থিক প্রতারণার অভিযোগে গ্রেফতার বিধায়কের আপ্তসহায়ক। সরকারি চাকরি এবং অন্য়ান্য সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগে রাজ্য পুলিশের দুর্নীতিদমন শাখার হাতে গ্রেফতার নদিয়ার তেহট্টের তৃণমূল বিধায়কের আপ্তসহায়ক-সহ তিনজন।

শুক্রবার দক্ষিণ ২৪ পরগনার রায়দিঘির একটি হোটেল থেকে গ্রেফতার করা হয় অভিযুক্তদের। বিধায়কের আপ্তসহায়ক প্রবীর কয়াল ছাড়াও শ্যামল কয়াল এবং সুনীল মণ্ডল নামে তিনজনকে গ্রেফতার করে দুর্নীতি দমন শাখা।

স্থানীয় সূত্রে অভিযোগ, কখনও রেশনের ডিলারশিপ, কখনও ফুড ইন্সপেক্টর, কখনও বা প্রাথমিক শিক্ষক পদে চাকরির টোপ দিয়ে বহু মানুষের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগ ওঠে নদিয়ার তেহট্টের বিধায়ক তাপস সাহার আপ্ত সহায়ক প্রবীর কয়ালের বিরুদ্ধে। যদিও বিধায়কের দাবি, এলাকার এক দলীয় নেত্রীর ষড়যন্ত্রেই এ সব হচ্ছে। আপ্তসহায়কের সঙ্গে তাঁর কোনো সম্পর্ক ছিল না বলেই দাবি করেছেন বিধায়ক।

উল্লেখ্য, গত ২০১৬ সাল থেকে তাপস সাহা ছিলেন পলাশিপাড়ার বিধায়ক। তবে বর্তমানে তিনি তেহট্টের বিধায়ক। তাঁর আপ্তসহায়ক হিসাবে কাজ করতেন প্রবীর। সেই সময় থেকে চাকরি দেওয়ার নামে প্রবীর আর্থিক দুর্নীতি করতেন বলে অভিযোগ। তেহট্টের খাসপুর বয়ারবাদা এলাকার বাসিন্দা-সহ তিন জনই সম্প্রতি অভিযোগ ওঠার পর গা-ঢাকা দিয়েছিলেন বলে জানা যায়।

ধৃতদের শনিবার ব্যাঙ্কশাল আদালতে তোলার কথা। ধৃতদের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের ভাবনা তদন্তকারীদের। প্রতারণা চক্রের সঙ্গে আর কে বা কারা জড়িত, ধৃতদের জেরা করে সে তথ্য পাওয়া সম্ভব হবে বলেই মনে করা হচ্ছে। অন্য দিকে, এই ঘটনার প্রেক্ষিতে সংবাদ মাধ্যমের কাছে তাপস জানিয়েছেন, অভিযোগ প্রমাণিত হলে তিনি বিধায়ক পদ ছেড়ে দেবেন।

আরও পড়তে পারেন: 

ওবিসি সংরক্ষণে বড়োসড়ো রদবদলের সুপারিশ, বাস্তবায়নে রাজনৈতিক আলোচনা শুরু কেন্দ্রের

তীব্র গরমের পর ভারী বৃষ্টি দক্ষিণবঙ্গের কিছু জায়গায়, সর্বনিম্ন তাপমাত্রাতেও চমক

গত সপ্তাহে ছিল ৬৫ শতাংশ, বর্তমানে দেশের নতুন সংক্রমণের সাড়ে ৬৮ শতাংশই দিল্লি-হরিয়ানা-উত্তরপ্রদেশে

ফনী, উম্পুন, ইয়াসের মাসেই ফের বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ!

সম্পত্তি গোপন মামলায় দোষী সাব্যস্ত, বরিস বেকারের আড়াই বছরের কারাদণ্ড

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন