সংক্রান্তির আগেই কিছুটা কমল শীতের দাপট

0

কলকাতা: পূর্বাভাসে বলা হয়েছে পৌষ সংক্রান্তি থেকে শীত অনেকটাই কমে যাবে দক্ষিণবঙ্গে। সেই দিকেই এগোনোর ইঙ্গিত দিল শীত। কারণ মঙ্গলবার কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জায়গায় বাড়ল সর্বনিম্ন তাপমাত্রা।

এ দিন কলকাতায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১২.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তাপমাত্রাটি স্বাভাবিকের থেকে দুই ডিগ্রি কম থাকলেও সোমবারের থেকে তা কিছুটা বেড়েছে। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় তা আরও বাড়তে পারে।

Loading videos...

দক্ষিণবঙ্গের অধিকাংশ জায়গায় জব্বর শীত এখনও অনুভূত হলেও তাপমাত্রাটি সোমবারের থেকে বেড়েছে। কাঁথিতে সোমবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৫.৮। এ দিন তা বেড়ে হয়েছে ৬ ডিগ্রি। যদিও এ দিনও দার্জিলিংয়ের পরেই রাজ্যের দ্বিতীয় শীতলতম জায়গা হিসেবেই থাকল কাঁথি। শৈলশহর কালিম্পংয়ে তাপমাত্রা ছিল ৬.৫ ডিগ্রি।

তাপমাত্রার নিরিখে আসানসোল, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, শ্রীনিকেতনকে পেছনে ফেলে দিয়েছে বর্ধমান। বর্ধমানে এ দিন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৮.৮ ডিগ্রি। শ্রীনিকেতন (৯.১) ছাড়া উল্লিখিত বাকি তিন জায়গার তাপমাত্রা দশের ওপরে।

আবার ব্যাপক ঠান্ডা এখনও রয়েছে কলকাতার উপকণ্ঠের ব্যারাকপুরে (৯.৫)।

তবে এ বার থেকে ধাপে ধাপে বাড়বে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৭ ডিগ্রি পর্যন্ত পৌঁছোতে পারে। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছুঁতে পারে ২৯-৩০ ডিগ্রি। এই সময়ে শীতের দাপট কমতে পারে পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলিতেও। সেখানে তাপমাত্রা ২৮ থেকে ১৩-১৪ ডিগ্রির ঘরে থাকতে পারে।

এটা পুরোটাই ঘটবে একের পর এক পশ্চিমী ঝঞ্ঝা হানা দেওয়ার কারণে। এই মুহূর্তে উত্তর ভারতে একটি ঝঞ্ঝা হানা দিয়েছে। এটা কাটার পর পরেই দু’ দিনের মধ্যে আরও একটা ঝঞ্ঝা আসছে। এই ঝঞ্ঝাগুলির ফলে উত্তর ভারতে আরও এক বার প্রবল তুষারপাত হবে। অন্য দিকে উত্তুরে হাওয়া বাধাপ্রাপ্ত হওয়ার ফলে দক্ষিণবঙ্গে বাড়বে পারদ ।

আরও পড়ুন গরমের রাজ্যে তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নীচে, দেখা গেল বরফও

তবে শীতের বিদায়বেলা এখনই আসছে না। কারণ পশ্চিমী ঝঞ্ঝার প্রভাব মুক্ত হলেই আবার তাপমাত্রা কমবে দক্ষিণবঙ্গে। প্রজাতন্ত্র দিবসের সময়ে জম্পেশ ঠান্ডাই দক্ষিণবঙ্গে থাকবে বলে মনে করা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.