প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: কুয়াশা এবং মেঘের আস্তরণের ফলে বেশ কিছুটা বেড়ে গেল কলকাতা এবং পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। তবে এতে চিন্তিত হওয়ার কিছুই নেই। ২৪ ঘণ্টা পর থেকেই আরও জোরালো দাপটে হাজির হতে পারে শীত। তবে পশ্চিমাঞ্চল এবং উত্তরবঙ্গের সমতল এখন প্রবল ঠান্ডার কবজায়।

বুধবার কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৫.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বৃহস্পতিবার, সেটা ১.৮ ডিগ্রি বেড়ে হয়েছে ১৭.৪। বুধবার রাত থেকে হঠাৎ করে কলকাতার আকাশে মেঘ ঢুকতে শুরু করে। এর ফলেই বেশি নামতে পারেনি সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। অন্য দিকে পশ্চিমাঞ্চলে আকাশ পরিষ্কার থাকায় হু হু করে সেখানে নামছে পারদ।

বৃহস্পতিবার দক্ষিণবঙ্গের শীতলতম স্থান ছিল পুরুলিয়া। সেখানে পারদ নেমে গিয়েছে সাড়ে ১০-এ। শীত বাড়ছে বর্ধমান, বীরভূম, বাঁকুড়া, পশ্চিম মেদিনীপুরেও। এ দিন আসানসোলের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৩.৭ ডিগ্রি। বোলপুরের তাপমাত্রা নেমেছে ১২.৯-এ। বর্ধমান এবং বাঁকুড়ার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল যথাক্রমে ১৪.৮ এবং ১৪.৯ ডিগ্রি।

আরও পড়ুন অজি পেসারদের গতি, ভুল শটের খেসারত, বেসামাল ভারতীয় ব্যাটিং

বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা ওয়েদার আল্টিমার পূর্বাভাস, আগামী কয়েক দিন পারদ ক্রমশ নামবে। জোর শীত অনুভূত হতে পারে কলকাতাতেও। ওয়েদার আল্টিমার কর্ণধার রবীন্দ্র গোয়েঙ্কা বলেন, “বৃহস্পতিবার দুপুরের পর থেকেই উত্তুরে হাওয়ার দাপট বাড়বে। শুক্রবার সকাল থেকে কোনো মেঘ থাকবে না। ফলে তাপমাত্রা অনেকটাই নামবে।” কলকাতার পারদ ১৩-১৪ ডিগ্রির কাছাকাছি নেমে যেতে পারে বলে জানাচ্ছেন তিনি।

প্রবল শীত উত্তরবঙ্গে

এ দিকে শীতের দাপট বাড়ছে উত্তরবঙ্গেও। বুধবার মরশুমে প্রথম বার দশের নীচে নেমেছিল শিলিগুড়ির সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। এ দিন কালিম্পং-এর তাপমাত্রাও নামল দশের নীচে।

দার্জিলিং-এ এ দিন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৪ ডিগ্রি। কালিম্পং এবং শিলিগুড়িতে তাপমাত্রা ছিল যথাক্রমে ৯.৫ এবং ৯.৩ ডিগ্রি। কোচবিহারে তাপমাত্রা নেমেছে ১০.১ ডিগ্রি। জলপাইগুড়িতে এ দিন তাপমাত্রা ছিল ১১ ডিগ্রি। পাহাড় এবং ডুয়ার্স সন্নিহিত অঞ্চলে শীত আরও বাড়বে বলে জানানো হয়েছে।

তবে মালদা এবং বালুরঘাটে তাপমাত্রা এখনও বেশিই রয়েছে। সেখানে ১৫ ডিগ্রি তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here