জলপাইগুড়ি

নিজস্ব সংবাদদাতা, জলপাইগুড়ি: বিজেপির জেলাশাসক দফতর ঘেরাও কর্মসূচিকে ঘিরে উত্তেজনা ছড়াল জলপাইগুড়িতে।মঙ্গলবার প্রায় হাজার ছয়েক কর্মী-সমর্থককে নিয়ে রাস্তায় নামে বিজেপি। রাজ্যের শাসকদল এবং পুলিশের বিরুদ্ধে “যৌথ সন্ত্রাস”-এর অভিযোগ এনে জলপাইগুড়ি শহর জুড়ে বিক্ষোভ মিছিল হয়। মিছিলের নেতৃত্ব দেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ-সহ অন্যান্য রাজ্য এবং জেলা নেতারা। এই কর্মসূচিকে ঘিরে ত্রিস্তরীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা রেখেছিল পুলিশ। সশস্ত্র পুলিশ, র‍্যাফ, কমব্যাট ফোর্স, জলকামান বাদ ছিল না কিছুই।

বিজেপির মিছিল জেলাশাসকের দফতরে যাওয়ার মুখে পুলিশের দেওয়া দ্বিতীয় ব্যারিকেডটি ভাঙার চেষ্টা করলে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। পুলিশ এবং বিজেপি কর্মীদের মধ্যে ব্যাপক ধ্বস্তাধস্তি হয়। ঘটনায় চারজন বিজেপি কর্মী, তিনজন পুলিশ কর্মী অল্পবিস্তর আহত হন। এর পর তৃতীয় ব্যারিকেডের সামনে এসে রাস্তার মধ্যেই ধর্নায় বসে পড়েন বিজেপি কর্মীরা। পাঁচজন প্রতিনিধি নিজেদের দাবি নিয়েয়ে জেলাশাসক শিল্পা গৌরিসারিয়াকে স্মারকলিপি দেন।

দিলীপ ঘোষ

এ দিকে ধর্ণামঞ্চে দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে রাখা দিলীপ ঘোষের বক্তব্য নিয়েও বিতর্ক তৈরি হয়েছে। তিনি বলেন ” নির্বাচনের সময় তাড়িয়ে তাড়িয়ে গুন্ডাদের মেরেছি। সারা পশ্চিমবঙ্গে এ রকম করতে পারি।তৃণমূল নেতারা বাড়ি ফিরতে পারবে না”।

রাজ্যের মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষকেও পরোক্ষে কোমর ভেঙে দেওয়ার হুমকি দেন তিনি। কর্মীদের “পরামর্শ” দেন, “মিথ্যা মামলায় বিজেপি কর্মীদের গ্রেফতার করতে গ্রামে পুলিশ এলে, তাদের গাড়ি আটকে রাখুন, পুলিশকে  বেধে রাখুন”। তাঁর বক্তব্যে বেজায় উৎসাহিত হন বিজেপি কর্মীরা।

এ দিকে এই বক্তব্যের পরই পালটা তোপ দেগেছে শাসকদল। জলপাইগুড়ি তৃণমূল সভাপতি সৌরভ চক্রবর্তীর অভিযোগ, “উস্কানিমূলক” বক্তব্য রেখে উত্তরবঙ্গের শান্ত পরিবেশ নষ্ট করতে চাইছেন দিলীপ ঘোষ। তাঁর কটাক্ষ, দিলীপ ঘোষের মতো “গেঁড়েগুন্ডারা” এমনই কথা বলে থাকেন। বিজেপির রাজ্য সভাপতির বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ারও হুমকি দিয়েছেন তৃণমূল জেলা সভাপতি।

সূত্রের খবর, ইতিমধ্যে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার দিকে এগোচ্ছে জেলা পুলিশও। কেউ অভিযোগ না জানালে “স্বতপ্রণোদিত” মামলা রুজু করা হতে পারে। জলপাইগুড়ির পুলিশ সুপার অমিতাভ মাইতি জানিয়েছেন, দিলীপ ঘোষের বক্তব্যের ভিডিও ফুটেজ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তারপর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here