sri binay maharaj in front of vaibhav
smita das
স্মিতা দাস

বহু নামী মানুষের উপস্থিতিতে বৃহস্পতিবার উদ্বোধন হল ফ্যামিলি রেস্টুরেন্ট ‘বৈভব’। স্থান সিঁথির মোড়। এমন অনেক রেস্তোরাঁই তো আকছার খোলা হচ্ছে। তাই খবর এটা নয়। খবর হল প্রতিদিন রেস্তোঁরা বন্ধ হওয়ার পর এদের উদ্দেশ্য কী সেটাই।

এই রেস্তোরাঁ খোলার মূল উদ্দেশ্য হল পথশিশু বা দুঃস্থ মানুষদের প্রতি দিন অন্তত এক বেলার খাবার জোগানো নিখরচায়। রাত দশটার পর রেস্তোরাঁর মালিক উদ্বৃত্ত খাবার নিয়ে বেরিয়ে পড়বেন, নিজে হাতে সেই খাবার তলে দেবেন পথবাসীদের মুখে।

‘বৈভব’-এর মালিক জ্যোতিষগুরু শ্রী বিনয় মহারাজ। তিনি জ্যোতিষচর্চার সঙ্গে সমাজসেবাটাও বহু দিন ধরে মন দিয়ে করে আসছেন।

কেন এমন চিন্তা ভাবনা করলেন?

খবর অনলাইনকে তিনি বলেন, তিনি চলতে ফিরতে রাস্তায় বহু সময়েই দেখেছেন পথের ধারে শিশুরা, বয়স্করা জঞ্জাল থেকে খাবার কুড়িয়ে খাচ্ছে। সেই দৃশ্য তাঁর মনকে নাড়া দিয়েছিল। তখন ঠিক করেছিলেন যে কোনো ভাবে এদের পাশে দাঁড়াতে হবে। এর পরই এই সিদ্ধান্ত।

বিনয়বাবু বলেন, এ ছাড়াও তিনি বহু দিন ধরেই বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত। যারা এমন কিছু সমাজসেবামূলক কাজ করে থাকেন। তা ছাড়া তিনি নিজেও বন্যায়, খরায় প্রাকৃতিক দুর্যোগে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ান। নানা ভাবে তাঁদের সাহায্য করার চেষ্টা করেন।

আরও বলেন, শুধু যে পথ শিশুদের প্রতিদিন খাবার দেওয়া হবে তাই নয়। প্রতি মাসেই অনাথাশ্রম, বৃদ্ধাবাস, বিভিন্ন জায়গার আবাসিকদের এখানে এনে বিনামূল্যে খাবার পরিবেশন করা হবে। কারণ তাঁদের সাধ্য নেই, কিন্তু সাধ তো আছে। তাই সমাজের মধ্যে থেকে সমাজের সেই সব মানুষের সাধ পূরণ করা কর্তব্য বলে মনে করেন বিনয়বাবু।

সিঁথি এলাকার কাউন্সিলার বাসব চন্দ্র ঘোষ খবর অনলাইনকে বলেন, তিনি রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হয়ে ওঠার আগে থেকেই নিজে সমাজসেবামূলক কাজ করতেন। সেই সূত্রেই আর পাড়ার মানুষ হিসেবেও বিনয়বাবুর সঙ্গে পরিচয়। তার পর এমন একটা উদ্যোগ বিনয়বাবু নিয়েছেন। এতে স্বাভাবিক ভাবেই গর্বিত তিনি। তিনি সর্বতোভাবে সাহায্য করবেন।

sri binay maharaj and councillor sri basab chandra ghosh
‘বৈভব’-এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে শ্রী বিনয় মহারাজ (একেবারে ডান দিকে) এবং বাসব চন্দ্র ঘোষ (ডান দিক থেকে দ্বিতীয়)।

এর পরে আর কী পরিকল্পনা আছে তাঁদের?

বাসববাবু বলেন, তিনি প্রতি বছর গণবিবাহ করান, তাতেও সহযোগিতা করেন বিনয়বাবু। এ বার তাঁদের ইচ্ছা অনাথ বাবামাদের নিখরচায় আশ্রয় দেওয়া। তার জন্য যৌথ উদ্যোগে একটা বৃদ্ধাবাস তৈরির পরিকল্পনা আছে। তার জন্য জায়গাও দেখা হয়ে গিয়েছে। কাজ শুরু হবে খুব তাড়াতাড়ি।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন টলিউডের অভিনেতা সোহেল দত্ত। তিনি বলেন, এক জন বাঙালি এমন একটা উদ্যোগ নিয়েছেন এটাই বড়ো ব্যাপার। রেস্তোরাঁ আর পাশাপাশি এমন একটা সদ্বিচ্ছা, বাঙালি হিসেবে খুবই গর্বের বিষয়। পাশপাশি তিনি তাঁর আসন্ন ডেবিউ ফিল্ম ‘ক্লাসরুম’ নিয়েও দু চার কথা বলেন। যদিও ছবির ট্রেলার মুক্তি পায়নি। তাই ছবির বিষয় নিয়ে কিছু না বললেও এটা যে থ্রিলার ছবি, আর সবাইকে হলে গিয়ে তা দেখতে হবে সে কথা বলতে ভুল করেননি সোহেল।

এই রেস্তোরাঁর বিশেষত্ব কী? কেন মানুষ আসবে এখানে?

বিনয়বাবু বলেন, “আমাদের উদ্যোগটাই বিশেষত্ব। কারণ রেস্তোরাঁ খোলা হয়েছে অর্থের জোগান বা মাধ্যম হিসেবে। মূল উদ্দেশ্য ব্যবসা নয়, সমাজসেবা। সেটাই বিশেষত্ব। এটা মানুষের এখানে আসার জন্য যথেষ্ট কারণ। তা ছাড়া এখানের খাবারের মান, তার পরিবেশ ইত্যাদির পাশাপাশি খাবারের মূল্য সবই মানুষের এখানের আসার জন্য ঠিকঠাক”।

কী কী ধরনের খাবার পাওয়া যাবে?

তিনি বলেন ভারতীয় নানান পদের সঙ্গে মোগলাই, তন্দুরি, চাইনিজ নানান পদও পাওয়া যাবে। সঙ্গে রয়েছে হোম ডেলিভারির সুবিধেও।

‘বৈভব’ দ্য ফ্যামিলি রেস্টুরেন্টের জায়গাটা হল বিটি রোডে সিঁথি মোড় বাসস্টপে। ডানলপের দিকে যেতে ডান দিকে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here