Connect with us

রাজ্য

কবর খোঁড়ার কাজে যুক্ত প্রান্তিক মানুষদের সম্মাননা প্রদান বাঁকুড়ার ক্লাবের

function of narra blus star club
ইন্দ্রাণী সেন

বাঁকুড়া: এ ভাবেও ভাবা যায়! সচরাচর যা ভাবা যায় না, তা করে দেখালেন বাঁকুড়ার ইন্দাস ব্লক এলাকার নাড়রা ব্লু স্টার ক্লাবের সংগঠকরা। সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষের মৃত্যুর পর যাঁরা বছরের পর বছর কবর খোঁড়ার কাজ করে চলেছেন, সেই সব প্রান্তিক মানুষদের সন্মাননা জানালেন তাঁরা। ‘সবুজ উৎসব’ নামাঙ্কিত অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এই সম্মাননা জানানো হল। বুধবার পবিত্র ঈদ উৎসব উপলক্ষে স্থানীয় স্কুল মাঠে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সমাজসেবী রবিউল হোসেন, নীতীশ সেন, স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান প্রমুখ।

কবর খোঁড়ার সঙ্গে যুক্ত মানুষগুলিকে সম্মাননা জানানোর পাশাপাশি ‘সবুজ উৎসব’-এর মঞ্চ থেকেই এলাকার মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক কৃতীদের সন্মাননা জানানো হয়। এমনকি নাড়রা গ্রামের প্রবীণ নাগরিক ও সামাজিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদেরও সন্মাননা জানান আয়োজক ক্লাবের সদস্যরা।

দীর্ঘ পঁয়ত্রিশ বছর ধরে কবর খোঁড়ার কাজের সঙ্গে যুক্ত শেখ ইদ্রিস। এত বছর পর এই ধরনের সম্মাননা পেয়ে বেজায় খুশি তিনি। তাঁর কথায়, “আজ পাঁয়ত্রিশ-ছত্রিশ বছর ধরে কবর খোঁড়ার কাজ করছি। আজকে এই উপহার পেয়ে খুব ভালো লাগছে।”

আরও পড়ুন অরণ্য ফেরাতে পথে নামল আদ্রা

আয়োজক নাড়রা ব্লু স্টার ক্লাবের সভাপতি, পেশায় স্বাস্থ্যকর্মী শেখ রফিকুল ইসলাম এই সন্মাননা প্রদান অনুষ্ঠান প্রসঙ্গে বলেন, “২০১০ সালে আমাদের ক্লাবের প্রতিষ্ঠা হয়েছে। আজকের এই বিশেষ দিনে ক্লাবের লোগোও প্রকাশিত হল। প্রতি বছর আমরা বিভিন্ন সামাজিক কাজকর্ম করে থাকি। আমাদের শেষযাত্রায় যাঁরা আমাদের সঙ্গ দেন তাঁদের সন্মাননা প্রদান করার প্রস্তাব করা হয়েছিল আমাদের ক্লাবের পক্ষ থেকে। সকলের সন্মতিতে এই কাজ সম্ভব হয়েছে।”

বিশিষ্ট সমাজসেবী রবিউল হোসেন সামাজিক কাজকর্মের সঙ্গে যুক্ত এই সংগঠনের পাশে থাকার জন্য উপস্থিত সাধারণ মানুষকে আহ্বান জানান।

রাজ্য

আক্রান্ত ৬৪৯, বাড়ল সুস্থতার হার, ৫ লক্ষ নমুনা পরীক্ষার নজির রাজ্যের

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ফের রাজ্যে দৈনিক করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা ৬০০-এর ওপরেই থাকল। যদিও পাঁচশোরও বেশি মানুষ করোনামুক্ত হওয়ায় সুস্থতার হারে আরও কিছুটা উন্নতি এসেছে। পাশাপাশি, পাঁচ লক্ষ নমুনা পরীক্ষার গণ্ডিও ছাড়িয়ে গেল রাজ্য।

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে নতুন করে ৬৪৯ জন করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন রাজ্যে। ফলে রাজ্যে এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৮,৮১৯। গত ২৪ ঘণ্টায় ১৬ জনের মৃত্যু হওয়ায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬৯৯।

একই সঙ্গে ৫০৯ জন হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন। ফলে বর্তমানে রাজ্যে মোট করোনামুক্তির সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৩,০৩৭। রাজ্যে সুস্থতার হার বর্তমানে রয়েছে ৬৫.৭৮ শতাংশ। সক্রিয় রোগী রাজ্যে বর্তমানে রয়েছেন ৬,০৮৩ জন।

কলকাতায় গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ২১৮ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণের হদিশ মিলেছে। অর্থাৎ তিন দিন পর শহরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যায় কিছুটা পতন দেখে গেল। ফলে শহরে এখন বর্তমানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬,৪৪০ । যদিও এর মধ্যে জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪,০৪০। ৩৯৪ জনের মৃত্যু হয়েছে কলকাতায়। ফলে শহরে এখন সক্রিয় করোনারোগী রয়েছেন ২,০০৬ জন।

উত্তর ২৪ পরগণায় নতুন করে ১৬২ জনের শরীরে করোনা ধরা পড়েছে। ফলে সেই জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩,২৪৮ ছাড়িয়েছে। এ ছাড়া, হাওড়ায় ৫৬ আর দক্ষিণ ২৪ পরগণায় ৫৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় দার্জিলিং জেলায় ৩৩ আর মালদায় ৩০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। রাজ্যের বাকি জেলায় অবশ্য সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। নতুন করে করোনা-আক্রান্তের খোঁজ মেলেনি বীরভূম, পুরুলিয়া, ঝাড়গ্রাম আর পশ্চিম মেদিনীপুরে।

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে ১০ হাজারের বেশি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। ফলে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত রাজ্যে ৫ লক্ষ ৮ হাজার ১টি নমুনা পরীক্ষা করা হল। রাজ্যে প্রতি দশ লক্ষ মানুষে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৫,৬৪৪ জনের।

Continue Reading

দঃ ২৪ পরগনা

বিডিও অফিসে উম্পুনে ক্ষতিপূরণের ফর্ম জমা দিতে গিয়ে কুলতলিতে পদপিষ্ট একাধিক

ভিড়ের চাপে বেশ কয়েকজন মহিলা মাটিতে পড়ে যান। কেউ আবার তাঁদের উপর দিয়েই চলে যান। ফলে মাটিতে পড়ে থাকা মহিলারা আহত হন।

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, কুলতলিত: ঘূর্ণিঝড় উম্পুনে (Cyclone Amphan) ক্ষতিপূরণের ফর্ম জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে চরম বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হল দক্ষিণ ২৪ পরগনার কুলতলিতে। বৃহস্পতিবার বিডিও অফিসের সামনে হুড়োহুড়িতে সরকারি ভাবে দু’জন মহিলার পদপিষ্ট হওয়ার কথা স্বীকার করা হয়েছে।

বিডিও অফিস সূত্রে জানা গিয়েছে, সন্ধ্যা গায়েন এবং অসীমা হালদার নামে দুই পদপিষ্ট মহিলাকে হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। তবে আবেদনকারীদের দাবি, আরও বেশ কয়েকজন জখম হয়েছেন।

এ দিন বিডিও অফিসের সামনে আবেদনকারীদের ভিড় ক্রমশ লম্বা হতে শুরু করে। সকাল থেকেই লাইনে দাঁড়িয়ে পড়তে শুরু করেন অনেকে। বেলা গড়ালে রোদের তাপে কেউ কেউ অসুস্থ হয়েও পড়েন। ঘটনায় প্রকাশ, তাঁদের মধ্যেই কেউ কেউ আগে নিজের ফর্ম দিতে চান। যা নিয়ে বিতর্ক বাঁধে। শুরু হয়ে যায় হুড়োহুড়ি।

সে সময় ভিড়ের চাপে বেশ কয়েকজন মহিলা মাটিতে পড়ে যান। কেউ আবার তাঁদের উপর দিয়েই চলে যান। ফলে মাটিতে পড়ে থাকা মহিলারা আহত হন। দুই মহিলাকে তৎক্ষণাৎ সেখান থেকে উদ্ধার করে স্থানীয় জামতলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

বিক্ষোভ আগেও!

গত বুধবার বিকেলে কুলতলির দেউলবাড়ি দেবীপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের মাধবপুর গ্রামে ‘উম্পুন দুর্নীতি’র বিরুদ্ধে ক্ষোভ চরমে ওঠে। বিক্ষোভকারীদের দাবি, তালিকায় যাঁদের নাম রয়েছে, তাঁরা ক্ষতিপূরণ পাচ্ছেন না। উল্টে গ্রামের বাইরের কিছু লোক ক্ষতিপূরণ পেয়ে যাচ্ছেন।

এক বিক্ষোভকারী বলেন, “উম্পুনে আমাদের ঘর ভেঙে গিয়েছে। কিন্তু সরকারি ঘোষণা মতো ২০ হাজার টাকার ক্ষতিপূরণ পাইনি। প্রধানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তালিকা জমা দেওয়া হয়েছে। পাওয়া যাবে। কিন্তু কবে”?

উম্পুন ক্ষতিপূরণ

ঘূর্ণিঝড় উম্পুনে যাঁরা চরম ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তাঁদের জন্য ২০ হাজার টাকার ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পশ্চিমবঙ্গে কমপক্ষে ১০ লক্ষ বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে সেই ক্ষতিপূরণ পাওয়া নিয়ে অসংখ্য অভিযোগ উঠে আসে। ‘ক্ষতিপূরণ পাওয়ার জন্য অন্যকে টাকার ভাগ দিতে হচ্ছে’ বলেও মারাত্মক অভিযোগ উঠে আসে।

জুন মাসের মাঝামাঝি মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন, ক্ষতিপূরণ পাওয়ার জন্য ফর্ম কেনার দরকার নেই। টাকা সরাসরি ক্ষতিগ্রস্তের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পৌঁছে যাবে। একই সঙ্গে তিনি বলেন, “অভিযোগ সত্য হিসাবে প্রমাণ হলে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন”।

Continue Reading

দঃ ২৪ পরগনা

দেশের মধ্যে প্রবীণতম, করোনাকে হেলায় হারালেন ডায়মন্ড হারবারের ৯৯ বছরের বৃদ্ধ

খবরঅনলাইন ডেস্ক: তাঁর শরীরে করোনা ধরা পড়ার পর পরিজনরা তাঁর বেঁচে থাকার আশা প্রায় ছেড়েই দিয়েছিলেন। কারণ করোনার সঙ্গেও বার্ধক্যজনিত আরও অসুস্থতা তো রয়েছে।

কিন্তু সবাইকে কার্যত চমকে দিয়ে করোনাকে হেলায় হারালেন ৯৯ বছরের বৃদ্ধ। কাঁকুড়গাছির বেসরকারি নার্সিংহোমে চিকিৎসাধীন করোনা আক্রান্ত ওই বৃদ্ধ শ্রীপতি ন্যায়বান সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। রাজ্য তো বটেই, দেশের মধ্যে সব থেকে প্রবীণ ব্যক্তি তিনি, যিনি করোনাকে হারালেন।

ওই বৃদ্ধর দুই ছেলেও করোনায় আক্রান্ত। ৭২ বছর বয়সি বড়ো ছেলে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি রয়েছেন। আরও এক ছেলে মুকুন্দপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

জানা গিয়েছে, বৃদ্ধের এক ছেলের প্রথম কোভিড ধরা পড়ে। নিউমোনিয়ার উপসর্গ নিয়ে গত ১১ জুন রাতে তাঁকে মুকুন্দপুরের বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করানো হয়। করোনা পরীক্ষা হলে তার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। দশ দিন পর তাঁর আরও এক ছেলেও করোনায় আক্রান্ত হন।

দুই সন্তান আক্রান্ত হওয়ার মধ্যে গত সপ্তাহে অসুস্থ বোধ করেন বৃদ্ধ। গত ২৪ জুন তাঁর নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। বৃদ্ধের মৃদু হাইপারটেনশন ছিল। শীর্ণকায় শরীরে অক্সিজেনের মাত্রাও স্বাভাবিকের থেকে কম ছিল বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা।

এই অবস্থায় বৃদ্ধকে ডায়মন্ড হারবার থেকে কাঁকুড়গাছির বেসরকারি নার্সিংহোমে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে প্রায় সপ্তাহখানেক চিকিৎসাধীন থাকার পরে অবশেষে তাঁকে ছুটি দেওয়া হয়। করোনাকে হারিয়ে বৃদ্ধ বলেন, ‘‘ভালো আছি। শরীরে এখন কোনো অসুবিধা নেই।’’

করোনা যে মারণ ভাইরাস নয় আর করোনা নিয়ে কারও অতিরিক্ত আতঙ্কিত হওয়ারও যে দরকার নেই, এই বৃদ্ধই সেটা বুঝিয়ে দিলেন।

Continue Reading
Advertisement
দেশ2 days ago

কোভিড ১৯ আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ১৮,৫২২, সুস্থ ১৩,০৯৯

ক্রিকেট1 day ago

আইসিসির চেয়ারম্যানের পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন শশাঙ্ক মনোহর, এ বার কি সৌরভ?

ক্রিকেট2 days ago

বর্ণবিদ্বেষের বিরুদ্ধে গর্জে উঠতে আসন্ন টেস্ট সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজের জার্সিতে থাকছে ‘ব্ল্যাক লাইভ্‌স ম্যাটার’

kiran rao, aamir khan and azaad khan
বিনোদন2 days ago

আমির খানের বেশ কয়েকজন সহযোগী করোনা পজিটিভ

DIY
ঘরদোর2 days ago

সময় কাটছে না? ঘরে বসে এই সমস্ত সামগ্রী দিয়ে করুন ডিআইওয়াই আইটেম

ক্রিকেট2 days ago

২০১১ বিশ্বকাপ ফাইনাল: গড়াপেটার অভিযোগে ফৌজদারি তদন্তের নির্দেশ

বিজ্ঞান1 day ago

কোভাক্সিন কী? জেনে নিন বিস্তারিত

বিদেশ2 days ago

ভারত ৫৯টি অ্যাপ নিষিদ্ধ করতেই চিনের জোরালো প্রতিক্রিয়া

নজরে