function of narra blus star club
নাড়রা ব্লু স্টার ক্লাবের অনুষ্ঠানে সম্মাননা প্রদান। নিজস্ব চিত্র।
ইন্দ্রাণী সেন

বাঁকুড়া: এ ভাবেও ভাবা যায়! সচরাচর যা ভাবা যায় না, তা করে দেখালেন বাঁকুড়ার ইন্দাস ব্লক এলাকার নাড়রা ব্লু স্টার ক্লাবের সংগঠকরা। সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষের মৃত্যুর পর যাঁরা বছরের পর বছর কবর খোঁড়ার কাজ করে চলেছেন, সেই সব প্রান্তিক মানুষদের সন্মাননা জানালেন তাঁরা। ‘সবুজ উৎসব’ নামাঙ্কিত অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এই সম্মাননা জানানো হল। বুধবার পবিত্র ঈদ উৎসব উপলক্ষে স্থানীয় স্কুল মাঠে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সমাজসেবী রবিউল হোসেন, নীতীশ সেন, স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান প্রমুখ।

কবর খোঁড়ার সঙ্গে যুক্ত মানুষগুলিকে সম্মাননা জানানোর পাশাপাশি ‘সবুজ উৎসব’-এর মঞ্চ থেকেই এলাকার মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক কৃতীদের সন্মাননা জানানো হয়। এমনকি নাড়রা গ্রামের প্রবীণ নাগরিক ও সামাজিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদেরও সন্মাননা জানান আয়োজক ক্লাবের সদস্যরা।

দীর্ঘ পঁয়ত্রিশ বছর ধরে কবর খোঁড়ার কাজের সঙ্গে যুক্ত শেখ ইদ্রিস। এত বছর পর এই ধরনের সম্মাননা পেয়ে বেজায় খুশি তিনি। তাঁর কথায়, “আজ পাঁয়ত্রিশ-ছত্রিশ বছর ধরে কবর খোঁড়ার কাজ করছি। আজকে এই উপহার পেয়ে খুব ভালো লাগছে।”

আরও পড়ুন অরণ্য ফেরাতে পথে নামল আদ্রা

আয়োজক নাড়রা ব্লু স্টার ক্লাবের সভাপতি, পেশায় স্বাস্থ্যকর্মী শেখ রফিকুল ইসলাম এই সন্মাননা প্রদান অনুষ্ঠান প্রসঙ্গে বলেন, “২০১০ সালে আমাদের ক্লাবের প্রতিষ্ঠা হয়েছে। আজকের এই বিশেষ দিনে ক্লাবের লোগোও প্রকাশিত হল। প্রতি বছর আমরা বিভিন্ন সামাজিক কাজকর্ম করে থাকি। আমাদের শেষযাত্রায় যাঁরা আমাদের সঙ্গ দেন তাঁদের সন্মাননা প্রদান করার প্রস্তাব করা হয়েছিল আমাদের ক্লাবের পক্ষ থেকে। সকলের সন্মতিতে এই কাজ সম্ভব হয়েছে।”

বিশিষ্ট সমাজসেবী রবিউল হোসেন সামাজিক কাজকর্মের সঙ্গে যুক্ত এই সংগঠনের পাশে থাকার জন্য উপস্থিত সাধারণ মানুষকে আহ্বান জানান।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here