উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, জয়নগর: নামখানার পর আবার সুন্দরবনের নদী বাঁধে ভাঙন। গত শুক্রবার রাতের প্রবল ঝড় ও বৃষ্টিতে সুন্দরবনের হোগল নদীর ভাঙনে বাসন্তীর সজিনাতলা, মঠগরান ও চন্দ্রকোনা এলাকার ২০০ ফুট নদীবাঁধ ভেঙে প্রায় ২ হাজার একর চাষের জমি ও মাছ-চিংড়ি চাষের পুকুর ডুবে গিয়েছে। বাসিন্দারা জানিয়েছেন, নোনা জলে মাছ দ্রুত মরে যাচ্ছে।

এই এলাকার চাষিরা মূলত ধান ও সবজি চাষ করেছিলেন। নদীর জল ঢুকে সব শেষ করে দিল বলে তাঁরা জানালেন। শনিবার সকাল থেকে যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে বাঁধ মেরামতির কাজ শুরু হলেও জোয়ারের জলে সব ভেস্তে যায়। ঘটনাস্থলে যান জয়নগরের বিদায়ী সাংসদ প্রতিমা মণ্ডল, বিডিও সৌগত সাহা, পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি কামারুজ্জামান লস্কর-সহ সেচ দফতরের আধিকারিকরা।

বিডিও বলেন, “সেচ দফতর কাজ করছে ওখানে। কয়েকটি বাড়ি ওখানে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের ত্রাণ কেন্দ্রে রাখা হয়েছে”।

[ আরও পড়ুন: সাগরে ব্যাপক জলোচ্ছ্বাস, প্লাবিত দক্ষিণ ২৪ পরগণার বিস্তীর্ণ এলাকা ]

বিদায়ী সাংসদ প্রতিমা মণ্ডল বলেন, “এই সময়ে সাধারণ মানুষের পাশে থাকা উচিত। তাই ওদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছি”।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here