adhir ranjan chowdhury

কলকাতা: পশ্চিমবঙ্গের প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীররঞ্জন চৌধুরীকে পদ থেকে সরাতে উঠেপড়ে লেগেছেন দলেরই একাংশ। এআইসিসি পর্যবেক্ষক গৌরব গগৈ কলকাতায় এলে তাঁর কানে তুলে দেওয়া হয়েছে এমনই বার্তা। তা ছাড়া বিগত সাড়ে চার বছর সভাপতিপদে থেকে দলের ভাঙন রোধে সক্রিয় ভূমিকা নিতে না পারার অভিযোগও খতিয়ে দেখছে হাইকম্যান্ড। পাশাপাশি অধীরবাবুর বিরুদ্ধে রয়েছে ব্যক্তিগত স্বজনপোষণের অভিযোগ। সব মিলিয়ে আগামী আগস্টেই তাঁকে ছাড়তে হতে পারে ওই পদ। তা হলে তাঁর জায়গায় আসছেন কে?

এখনও পর্যন্ত প্রদেশ সভাপতিপদের দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন দলের প্রবীণ নেতৃত্বই। নতুন কোনো মুখ উঠে না আসার কারণে প্রাক্তন সভাপতি প্রদীপ ভট্টাচার্য বা সোমেন মিত্রের নাম নিয়েও আলোচনা চলছে। পাশাপাশি উঠে এসেছে দলের প্রাক্তন সাংসদ দীপা দাশমুন্সি এবং প্রণব-পুত্র অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়ের নাম। তবে পুরো বিষয়টি নির্ভর করছে হাইকমান্ডের সিদ্ধান্তের উপর। কিন্তু অধীরবাবু যে সরছেন, সে নিয়ে প্রায় নিশ্চিত বিধানভবন।

তবে অধীরবাবুর অপসারণের নেপথ্যে অন্য বেশ কয়েকটি কারণকেও সমান ভাবে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। প্রথমত, তিনি অ্যাডহক হিসাবে ওই পদে সাড়ে চার বছর দায়িত্ব পালন করেছেন। দ্বিতীয়ত, সামনে লোকসভা ভোটে নির্বাচনী কর্মকাণ্ডে আরও বেশি সময় দেওয়ার তাগিদে অধীরবাবু নিজেই না কি ওই পদ ছাড়তে চেয়েছেন। এবং তৃতীয় গুঞ্জনটি হল তাঁর স্ত্রী অতসী চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে। অতসীদেবীর মতো করেই দল চালানোর গুরুতর অভিযোগ নিয়ে এসেছেন কংগ্রেসের একাংশ। তাঁদের অভিযোগ, প্রদেশ সভাপতি নিজের ধ্যানধারণার থেকে অতিমাত্রায় নির্ভর করছেন অতসীদেবীর উপর। এর আগে ওই অংশটি দলের নেতাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের অভিযোগ তুলেছিলেন তাঁর বিরুদ্ধে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here