‘রামকথা’ নিয়ে ডিগবাজি মদন মিত্রের

Madan Mitra
ফাইল ছবি

ওয়েবডেস্ক: আগামী বুধবার হওয়ার কথা ছিল রামকথার। কিন্তু পিছু হঠলেন উদ্যোক্তা মদন মিত্র। তৃণমূলের প্রাক্তন বিধায়ক তথা রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী অনুষ্ঠান বাতিলের সাফাই দিতে গিয়ে ডিগবাজিও খেলেন!

নিজের পরিকল্পনার কথা ফলাও করে নিজেই জানিয়েছিলেন মদন। বলেছিলেন, ভবানীপুরে নিজের বাড়িতেই রামভক্তদের নিয়ে রামনাম করবেন তিনি। কিছুটা হলেও দলীয় নীতির বিপক্ষে চলে যাবে না তো তাঁর এই উদ্যোগ? বলেছিলেন, “রাম-লক্ষ্ণণ বুকে আছে ভয়টা আমার কী”? তা হলে কেন বাতিল হল রামকথা?

আগের দিনের মন্তব্য থেকে একশো আশি ডিগ্রি ঘুরে মদনের সাফাই, “যে দিন ‘জয় শ্রীরাম’ বলে খুন-খারাপি বন্ধ হবে, সে দিন রামকথা হবে। আমি যদি এখন রামকথা করি, তা হলে ওই হিংসার রাজনীতিকেই মদত দেওয়া হবে। তাই আমি ঠিক করেছি মা-মাটি-মানুষের পুজো করব”। এ ব্যাপারে তিনি রবীন্দ্রনাথের ‘বিসর্জন’, চন্ডাশোক ইত্যাদি উদাহরণ তুলে ধরেন।

অথচ, আগে তাঁর যুক্তি ছিল, রাম বিজেপির পণ্য নয়। রাম নামে জয়ধ্বনি দিতে তাঁর কোনও কুন্ঠা নেই বলেও জানিয়েছেন তিনি। তিনি শুধুই তৃণমূলের নেতা নন, এ দেশের একজন নাগরিকও। তবে এমন একটা আয়োজনের কথা শুনে দলের একাধিক নেতা বলতে দ্বিধা করেননি, এটা মদনের ব্যক্তিগত উদ্যোগ।

অথচ অনুষ্ঠানের ঠিক আগের দিন মদন জানান, “এ ব্যাপারে দলের সঙ্গে ঠিক কথা বলা হয়ে ওঠেনি। আমি যা করব দলের অনুমতি নিয়েই করব”।

[ আরও পড়ুন: “আমার সামনে সমস্ত রাস্তা খোলা”, মদনের মন্তব্যে নতুন জল্পনা! ]

অন্য দিকে মদন-ঘনিষ্ঠ কেউ কেউ বলছেন, ভাটপাড়া উপনির্বাচনে তৃণমূলের প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে হেরে যাওয়ার পর দলের সঙ্গে দূরত্ব বাড়ছে তাঁর। সে কারণেই সম্ভবত, দু‌ঃসময়ে রামনাম আঁকড়ে ধরে নিজের মহিমাটাও ঝালিয়ে নিতে চাইছিলেন তিনি। কিন্তু রামের হাতে থাকলেও বিধি বাম!

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.