মুকুলের গেমপ্ল্যান ভেস্তে দিয়ে অভিষেকের মাস্টারস্ট্রোক?

0
Abhishek Banerjee and Mukul Roy
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: তারকেশ্বর বিধানসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত দু’টি গ্রাম পঞ্চায়েতের দখল তৃণমূলের হাতে থেকে বিজেপির হাতে চলে এসেছে বলে দাবি করেছিলেন মুকুল রায়। গত মঙ্গলবার রাজ্য সদর দফতরে তিনি বেশ কয়েকজনকে হাজির করে দাবি করেন, তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্যরা বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। কিন্তু পর দিনই ছবিটা আমূল বদলে গেল তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাংবাদিক বৈঠকের পর। এ দিন তিনি চাঁপাডাঙা এবং তালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যদের সঙ্গে নিয়েই তৃণমূল ভবন থেকে সাংবাদিক বৈঠক করেন।

এ দিন অভিষেক সাংবাদিক বৈঠকে স্পষ্টতই জানিয়ে দেন, তালপুর ও চাঁপাডাঙা গ্রাম পঞ্চায়েত তৃণমূল কংগ্রেসের দখলেই রয়েছেন। চাঁপাডাঙা গ্রাম পঞ্চায়েতের ২৭ জন সদস্য তৃণমূলেই আছেন। তিনি বলেন, “এখানে দলবদলের কোনো বিষয় নেই। এঁরা তৃণমূলেই ছিলেন, জানিয়েছেন তাঁরা তৃণমূলেই আছেন। তবে বেশ কয়েক দিন বন্দুকের নলের সামনে দাঁড় করিয়ে দল বদল করছে বিজেপি। কেই আবার টাকার লোভে এ সব করছে। তৃণমূলের সঙ্গে যাঁরা ছিলেন, তাঁরা আছেন। যাঁরা ভুল বুঝে চলে গিয়েছিলেন, তাঁদেরও স্বাগত। কিন্তু যাঁরা টাকার লোভে দলবদল করেছেন, তাঁদের জন্য তৃণমূলের দরজা বন্ধ”।

এ দিন অভিষেক কড়াভাষায় সমালোচনা করেন মুকুলের। তিনি বলেন, “এখন নারদা-সারদা থেকে পিঠ বাঁচাতে আর দিল্লির নেতাদের কাছে নম্বর বাড়ানোর জন্য মুকুল রায় বলছেন, সিঙ্গুর আন্দোলন ভুল ছিল। ওই আন্দোলন সঠিক না থাকলে সুপ্রিম কোর্ট কৃষকের জমি ফেরতের নির্দেশ দিল কেন? এমন মন্তব্য করে তিনি আদতে সুপ্রিম কোর্টেকে অবমাননা করছেন। আর এতই যদি মনে হয় সিঙ্গুর আন্দোলন ভুল ছিল, তা হলে তখন দল ছাড়লেন না কেন”?

মঙ্গলবারের দলবদল প্রসঙ্গে অভিষেকের কটাক্ষ, “চারটে লোককে ধরে নিয়ে এসে বলছে, পুরো গ্রাম পঞ্চায়েতের দখল নিয়ে নিয়েছে বিজেপি। সাংবাদিকদের তো প্রশ্ন করা উচিত ছিল, আপনার পিছনে মাত্র চারটে লোক, পুরো গ্রাম পঞ্চায়েত কী ভাবে দখল করলেন? আসলে কিছু মিডিয়া বিজেপির মতো করেই চলছে। কোনো তথ্য সঠিক কি না, তা সংবাদ মাধ্যমের যাচাই করে খবর পরিবেশন করা প্রয়োজন”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here