কলকাতা: পাহাড়ে ফুটল জোড়াফুল। মিরিক পুরসভা দখল করল তৃণমূল কংগ্রেস। সেই সঙ্গে দার্জিলিং, কার্শিয়াং-এও খাতা খুলেছে শাসক দল।

তিন দশক পর এই প্রথম পাহাড়ে সমতলের কোনো দল জিতল। মিরিক পুরসভা যে তৃণমূল দখল করবে সেটা আগেই আন্দাজ করা গিয়েছিল। কিছু দিন আগেই মিরিককে মহকুমা করার কথা ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মিরিকের মানুষ সেই পুরষ্কারই দিলেন শাসকদলকে। মিরিকের ন’টি ওয়ার্ডের মধ্যে ছ’টি দখল করেছে তৃণমূল, গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা জিতেছে মাত্র তিনটে আসন।

অন্য দিকে দার্জিলিং, কার্শিয়াং এবং কালিম্পং-এও খাতা খুলেছে তৃণমূল কংগ্রেস। তিনটি পুরসভাই জনমুক্তি মোর্চার দখলে গেলেও, দার্জিলিং-এ একটি, কালিম্পঙে ২টি এবং কার্শিয়াং-এ কুড়ির মধ্যে তিনটে ওয়ার্ড পেয়েছে তৃণমূল। দার্জিলিং-এ ৩২টি আসনের মধ্যে ৩১টি এবং কার্শিয়াং-এ ১৭টি পেয়েছে মোর্চা। কালিম্পং-এ ২৩টি আসনের মধ্যে মোর্চা জিতেছে ১৮টিতে, হরকাবাহাদুর ছেত্রীর জন আন্দোলন পার্টি (জাপ) ২টি আসনে এবং নির্দল ১টি আসনে।

সমতলে অবশ্য দাপট অব্যাহত শাসক দলের। অধীর গড়ে ফের ফাটল ধরিয়ে রায়গঞ্জ পুরসভা দখল করেছে শাসক দল। পুরসভার ২৭টি ওয়ার্ডের মধ্যে তৃণমূল জিতেছে ২৪টি ওয়ার্ড, কংগ্রেস জিতেছে দু’টি এবং বিজেপি একটি ওয়ার্ড। নতুন আত্মপ্রকাশ করা ডোমকল পুরসভা বিরোধীশূন্য। ২১টি ওয়ার্ডের মধ্যে ২০টি তৃণমূলের দখলে, ১টি বামদের হাতে। আদতে বাম-কংগ্রেস জোট ৩টি আসনে জেতে। কিন্তু জয়ের পরেই ৯ এবং ২০ নম্বর ওয়ার্ডের জয়ী জোটপ্রার্থীরা তৃণমূলে যোগ দেন।

অন্য দিকে পুজালি পুরসভাও দখল করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। পুজালির ১৬টি ওয়ার্ডের মধ্যে শাসকদল জিতেছে ১২টি ওয়ার্ড, বিজেপি দু’টি ওয়ার্ড জিতেছে। কংগ্রেস এবং নির্দল পেয়েছে একটি করে ওয়ার্ড। পুজালি পুরসভার সব ক’টি আসনেই দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে বিজেপি। সাতটি পুরসভার একটি ওয়ার্ডও জিততে না পেরে প্রায় নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছে বামেরা।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন