TMC Jhargram

সমীর মাহাত, ঝাড়গ্রাম: একদিকে যখন মুখ্যমন্ত্রীর ঝাড়গ্রাম সফর নিয়ে রাজনৈতিক, প্রশাসনিক স্তরে ব্যস্ততা তুঙ্গে, ঠিক সেই সময়ই ঝাড়গ্রামের সাঁকরাইল ব্লকের রোহিণীতে পথ অবরোধ করল তৃণমূল শিবির।

বিজেপির হাতে তাঁরা আক্রান্ত, অভিযুক্তদের পুলিশ গ্রেফতার করছে না, এই অভিযোগেই এ দিনের পথ অবরোধ কর্মসূচি। উল্লেখ্য, “আক্রান্ত আমরা” এই প্ল্যাকার্ড সামনে রেখে আজ ২৫ নভেম্বর ঝাড়গ্রাম জেলার সাঁকরাইল ব্লকের রোহিণী থেকে রগড়া যাওয়ার রাস্তার তৃণমূলিরা রাস্তা অবরোধ করে বসে পড়ে। প্রসঙ্গত, কয়েক দিন আগে সেখান কার পঞ্চায়েত সমিতির বোর্ড গঠন হয়েছে। সমিতিতে এ বারে বিজেপি ১১টি ও তৃণমূল ১০টি আসনে জয় লাভ করে। স্বভাবতই বোর্ড গঠন করে বিজেপি। তার পর থেকেই এলাকায় রাজনৈতিক উত্তেজনার পারদ চড়ে।

তৃণমূল স্থানীয় নেতৃত্বর অভিযোগ, এই ঘটনায় আক্রান্ত হয়ে দলের দুই জন পিজি হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। অভিযুক্তদের সম্পর্কে তথ্য দিলেও পুলিশ তাদের গ্রেফতার করছে না।ফলে আমাদের দল ও সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে। পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী আগেই বার্তা দিয়েছেন যে, বন্‌ধ, অবরোধ করে স্বাভাবিক জনজীবনকে সমস্যায় ফেলা তাঁর সরকার পছন্দ করে না। অথচ শাসক শিবির থেকেই পথ অবরোধ! যা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে প্রশ্ন উঠেছে। মহলের মতে, আর যাই হোক, ঝাড়গ্রামের বিভিন্ন প্রান্তে বিক্ষিপ্ত ভাবে রাজনৈতিক অস্থিরতা বাড়ছে। পুলিশ-প্রশাসন এখন থে‌কে সক্রিয় না হলে, সাধারণ মানুষের সমস্যা বাড়বে।

এ ব্যাপারে বিজেপির ঝাড়গ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক সঞ্জিত মাহাত বলেন, বোর্ড গঠনের সময় থেকে তৃণমূলই প্রথমে ঝামেলা তৈরি করে। আমাদেরও ১০ জন সমর্থক হাসপাতাল চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বিজেপিকে অভিযোগ করার বদলে, সেখানকার মানুষ কী বলছে, শোনা দরকার।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here