toilet
সামসাল বেগমের বাগদান থেকে বিয়েকে ইতিমধ্যে সকলে ‘টয়লেট এক প্রেম কথা’ বলছেন, ছবি: নিজস্ব
payel samanta
পায়েল সামন্ত

বিয়ের কার্ডে ‘ইজ্জতঘর’-এর ছবি ছাপিয়ে তিনি দৃষ্টান্ত হয়ে উঠেছেন। জানেন কি, এই ‘ইজ্জতঘর’ আসলে শৌচাগার! এমনকি, তাঁর বিয়েও ছিল ‘নির্মল’ বিয়ে। যে কারণে মুর্শিদাবাদের বড়ঞা ব্লকের একঘরিয়া গ্রামের সামসাল বেগমের বাগদান থেকে বিয়েকে ইতিমধ্যে সকলে ‘টয়লেট- এক প্রেম কথা’ বলছেন। ব্যাপারটা কি সত্যিই তাই?

মানুষের অভ্যাস পাল্টানো সবচেয়ে কঠিন কাজ। অন্তত এ কথাটা অক্ষয় কুমার অভিনীত ‘টয়লেট- এক প্রেম কথা’ সিনেমা দেখে দেশবাসী বুঝে গিয়েছেন। তবে স্বচ্ছ ভারত অভিযানের প্রচারে এই ছবিটি ভারতীয় চলচ্চিত্র দুনিয়ার মতো দেশবাসীর মনেও বেশ প্রভাব ফেলেছিল।

 

toilet
‘নির্মল’ বিয়ের কার্ড, ছবি: নিজস্ব

আরও পড়ুন: স্বপ্না বর্মণের মায়ের হার ছিনতাই

কিন্তু সত্যিই মানুষের বদভ্যাস পাল্টানো খুব কঠিন। পাকাবাড়ি এমনকি শৌচাগার থাকা সত্ত্বেও প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে তাই প্রকৃতির মধ্যেই গিয়ে বসতে হয়। গ্রামবাংলার ছবি এখনও কিন্তু এটাই। লড়াই ছিল এই অভ্যেস, থুড়ি বদভ্যাসটা পাল্টানোর। মুর্শিদাবাদ জেলা প্রশাসনের তরফে গ্রামের বুকে কাজটা হচ্ছিল গ্রামের স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মেয়েদের সাহায্য নিয়েই। সেই লড়াইয়ে গ্রামের এই মেয়েদের রীতিমতো হেনস্থাও হতে হয়েছে। কিন্তু তাও সামসাল বেগমের মতো নির্ভীক মেয়েদের লড়াই থামেনি। বরং কলেজের গণ্ডি না পেরনো সামসাল বেগম নিজের বিয়ের কার্ডে শৌচাগারের ছবি ছাপিয়ে প্রমাণ করে দিলেন, এ ভাবেও কাজ করা যায়!

‘টয়লেট- এক প্রেম কথা’ সিনেমাটি তাঁর দেখা হয়নি। কিন্তু তিনি শুনেছেন সবটাই। খবর অনলাইনকে তিনি বললেন, “নির্মল গ্রাম তৈরি করতে এতদিন আশেপাশের মানুষকে সচেতন করতে হত। তাই সেই কাজটিই করেছি বিয়ের কার্ডে ইজ্জতঘরের ছবি ছাপিয়ে।“ প্রশাসনের তরফে বিয়ের দিন উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম বিডিও শ্যামলকান্তি শিকারি। বিয়ের আসরেও সচেতনতার প্রচারে এই আধিকারিক উপস্থিত আত্মীয়স্বজনদের মধ্যে লিফলেট বিলি করেছেন।

toilet
সামসালের ‘ইজ্জতঘর’, ছবি: নিজস্ব

এ বার সামসালের সঙ্গী হলেন বিয়ের পাত্র তাউসেফ রেজা আহমেদ। বিয়ের কার্ডে শৌচাগারের ছবি ছাপাতে তিনিও আপত্তি জানাননি। বিয়ের পর খবর অনলাইনকে জানালেন, “আমার নিজের বাড়িতে টয়লেট আছে। তাই সামসাল এ বিয়েতে রাজি হয়েছে।“ হ্যাঁ, এমনটাই বিষয়। টয়লেট না থাকলে সেই বাড়িতে সামসাল বিয়ে করতেনই না। দেখাশোনার আগে ঘটককে এমনই বলা হয়েছিল।

তবে সামসালের বিয়ে হল আর মিশন নির্মল বাংলার নটেগাছটি মুড়োল, এমন ভাবার কারণ নেই। সামসাল বেশ প্রত্যয়ী কণ্ঠে বলেন, “এ বার শ্বশুরবাড়ি থেকে এই কাজ করব। সঙ্গে পাব স্বামীকে।”

samsal begum
সামসাল বেগমের মতো নির্ভীক মেয়েদের লড়াই থামেনি, ছবি: নিজস্ব

ভবিষ্যতে সামসালের কাজ কী ভাবে এগোবে? সামসালের নতুন বর বলেন, “সামসালকে আগেও সাহায্য করেছি। আবারও করব। সেটাই আমার লক্ষ্য। নির্মল বাংলায় মেয়েদের ইজ্জত রক্ষায় ইজ্জতঘরের প্রচার করব।  “

এ বার বলুন তো, জয়ারূপী ভূমি পেরনেকরকে যে ভাবে সিনেমায় কেশবরূপী অক্ষয় সাহায্য করেছিলেন, তার সঙ্গে মিল পেলেন?

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন