two arrested persons

নিজস্ব সংবাদদাতা, জলপাইগুড়ি: সিগন্যাল ভেঙে নাম্বারপ্লেটহীন মোটরবাইক নিয়ে শহরের জনবহুল রাস্তার মোড়ে ঢুকে গিয়েছিল দুই যুবক। নিয়মমাফিক তাদের আটকে ছিলেন দায়িত্বে থাকা এক মহিলা কনস্টেবল-সহ তিন ট্রাফিক পুলিশকর্মী। সেই অপরাধে “তাদের চাকরি খেয়ে নিয়ে”, “লক আপে ঢুকিয়ে দেওয়ার” হুমকি দেয় ওই দুই বীরপুঙ্গব। সেই ‘হুমকি’তে কাজ না হওয়ায় প্রথমে গালিগালাজ, তার পর মোটরবাইক থেকে নেমে ‘চড়াও’ হয় তারা পুলিশকর্মীদের ওপর। মঙ্গলবার দুপুরে ঘটে যাওয়া দুই বীরপুঙ্গবের এই কীর্তি জলপাইগুড়ি শহরের নাগরিকদের চর্চার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

two traffic guards who were attacked
আক্রান্ত দুই ট্রাফিক গার্ড।

শহরের প্রাণকেন্দ্র কদমতলা মোড় তখন রীতিমতো ব্যস্ত। সেখানেই কর্মরত ছিলেন লেডি কনস্টেবল মিঠু বর্মণ-সহ তিন জন ট্রাফিক গার্ড। সেই সময় সৌরভ সরকার এবং দীপজ্যোতি সাহা নামে ওই দুই যুবক ট্রাফিক ভেঙে উলটো দিক থেকে সেখানে ঢুকে পড়ে। দৌড়ে গিয়ে তাদের আটকান কর্তব্যরত ওই ট্রাফিক গার্ডরা। তখনই তাঁদের চোখে পড়ে মোটরবাইকে নাম্বারপ্লেট লাগানো নেই। সেই প্রশ্ন করতেই বাইকচালক সৌরভ সরকার তাঁদের ওপর চড়াও হন বলে অভিযোগ। পুলিশ সুপারকে ফোন করে চাকরি খেয়ে নেওয়ার হুমকি এবং লক আপে ঢুকিয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েও ক্ষান্ত হয়নি ওই যুবক সৌরভ সরকার। শুরু হয় গালিগালাজ ও ধাক্কাধাক্কি। লেডি কনস্টেবলও নিগ্রহের হাত থেকে রেহাই পাননি। সেখানে বন্ধুর সঙ্গে শামিল হন দীপজ্যোতিও। এর পর তাদের আটক করেন ট্রাফিক গার্ডরা। স্থানীয়রাও এগিয়ে এসে তাদের ঘিরে ধরে। এর পর কোতোয়ালি থানা থেকে পুলিশ গিয়ে তাদের থানায় নিয়ে আসে।

দু’জনকে তল্লাশি করে কিছু নেশার ট্যাবলেট এবং গাঁজা পাওয়া গিয়েছে বলে খবর পুলিশ সূত্রে। ঘটনার সময় তারা নেশাগ্রস্ত ছিল কি না তা-ও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। নাম্বারপ্লেট বিহীন গাড়িটির মালিক কে তা-ও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। জানা গিয়েছে, দু’জনেরই বাড়ি শহরের আদরপাড়ায়। অভিযুক্ত যুবক সৌরভ সরকার আবার থানায় বসে অভিযোগ জানিয়েছে, ওই লেডি কনস্টেবল তাকে চড় মেরেছেন। অপরাধ করলেও তাকে চড় মারতে পারে কি লেডি কনস্টেবল, প্রশ্ন তার। আপাতত দুই শ্রীমান শ্রীঘরে।কোতোয়ালি থানার আইসি জানিয়েছেন, গুরুতর অপরাধ। তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। বুধবার জলপাইগুড়ি আদালতে তোলা হবে তাদের।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here