খবরঅনলাইন ডেস্ক: করোনার করাল গ্রাসে পড়ে পর্যটন ব্যাবসা পুরোপুরি ভেঙে পড়েছিল। গত কয়েক মাস হল সেই ধাক্কা কাটিয়ে উঠে ক্রমশ সুদিন দেখতে শুরু করেছে রাজ্যের পর্যটন। কিন্তু এরই মধ্যে ফের বাজ পড়ল। রাজ্যের প্রথম দফার নির্বাচন পড়েছে ২৭ মার্চ, অর্থাৎ দোলের আগের দিন।

দোলে যে যে জায়গায় ভিড় সব থেকে বেশি হয়, সেখানেই নির্বাচন। অর্থাৎ, পুরুলিয়া, ঝাড়গ্রাম, বাঁকুড়ার একাংশ। পাশাপাশি দিঘা, মন্দারমণি, তাজপুরের মতো জায়গাতেই ভোট পড়েছে ওই দিনই।

Loading videos...

রাজ্যের পর্যটন ব্যবসায়ীদের দাবি ইতিমধ্যেই হোটেল বুকিং বাতিল হতে শুরু করেছে। স্থানীয় পুলিশের তরফে নির্দেশ এসে গিয়েছে গাড়ি অধিগ্রহণ করার, সব নির্বাচনের ক্ষেত্রেই যা খুবই পরিচিত চিত্র। ভোট মিটলে ফের ছেড়ে দেওয়া হবে গাড়িগুলিকে।

বুকিং বাতিলের জেরে প্রভূত আর্থিক ক্ষতির মধ্যে পড়েছে হোটেল-রিসর্ট কর্তৃপক্ষ, ট্র্যাভেল এজেন্সি, ট্র্যাভেল এজেন্ট-সহ পর্যটন ব্যাবসার সঙ্গে যুক্ত সকলেই। এই পরিপ্রেক্ষিতে ২৭ মার্চ রাজ্যের কেন্দ্রগুলিতে ভোট পিছিয়ে দেওয়ার দাবি নিয়ে কলকাতায় নির্বাচন কমিশনের দফতরে লিখিত ভাবে আর্জি জানাল ট্র্যাভেল এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশন অফ বেঙ্গল (TAAB)।

সংগঠনের দাবি, ভোটের কারণে পর্যটকদের বুকিং বাতিলের ফলে কম করে ৫০ কোটি টাকা ক্ষতির সম্মুখীন তাঁরা। ট্যাবের সাধারণ সম্পাদক নীলাঞ্জন বসু এই প্রসঙ্গেই বলেন, “অতিমারির কারণে পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, ঝাড়গ্রামের পর্যটনে ব্যাপক প্রভাব পড়েছিল। আমরা তাই দোলের দিকেই তাকিয়েছিলাম, পর্যটন ব্যবসায়ে লাভের আশায়। লক্ষাধিক মানুষ এই সময়ে হোটেল বুক করেছিলেন। সেগুলো বাতিল হয়ে গেলে কী বিপুল আর্থিক ক্ষতি হবে তা আমরা ধারণাও করতে পারছি না।”

লিখিত আর্জিতে আরও জানানো হয়েছে যে ভোটের কাজ থেকে কেন্দ্র এবং রাজ্য পর্যটন দফতর স্বীকৃত গাড়িগুলোকে যাতে অন্তত রেহাই দেওয়া হয়। ট্যাবের এই লিখিত আর্জির কোনো প্রতিক্রিয়া এখনও নির্বাচন কমিশনের তরফে পাওয়া যায়নি।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

আচরণবিধি ভঙ্গ! পেট্রোল পাম্প থেকে নরেন্দ্র মোদীর ছবি সরানোর নির্দেশ নির্বাচন কমিশনের

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.