TMC

কলকাতা: পঞ্চায়েত নির্বাচনের মনোনয়ন পেশ নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে বেশখানিকটা ব্যাকফুটে চলে গিয়েছে শাসক দল। দলীয় আইনজীবী তথা সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়কে পুরো দায়িত্ব ছেড়ে দিয়ে যে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি, সে বিষয়ে আড়ালে-আবডালে মুখ খুলতে শুরু করেছেন একাংশের তৃণমূল নেতৃত্ব। এরই মধ্যে দলের লিগ্যাল সেলে ঘটে গেল বড়োসড়ো পরিবর্তন।

এত দিন তৃণমূল কংগ্রেসের লিগ্যাল সেলের আহ্বায়ক ছিলেন পন্তু দেবরায়। গত মঙ্গলবার তাঁকে ওই পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক পার্থ চট্টোপাধ্যায়। নতুন আহ্বায়ক করা হয়েছে ভাস্কর বৈশ্যকে।

হাই কোর্টে কর্মবিরতি নিয়েও পন্তুবাবুকে দলীয় ভাবে সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল বলে শোনা যায়। এক টানা কর্মবিরতি অব্যাহত থাকলেও শাসক দলের লিগ্যাল সেল কেন কোনো সক্রিয়তা দেখাতে পারছে না, এমন প্রশ্নও উঠেছিল। তখন থেকেই একটি মহলে গুঞ্জন চলছিল যে, কলকাতা হাইকোর্টের আইনজীবীদের উপর শাসক দলের প্রভাব ক্রমশ ক্ষীণ হয়ে পড়ছে। যার নেচিবাচক ফল ভুগতে হতে পারে ভবিষ্যতে।

তবে এই গুঞ্জনের সঙ্গে দলীয় সিদ্ধান্তের কোনো মিল নাও থাকতে পারে। কারণ, পার্থবাবু নতুন আহ্বায়কের নাম ঘোষণা করে জানিয়েছেন, এটা নিতান্তই একটি দলীয় সিদ্ধান্ত।

যদিও হাইকোর্টের রাজ্য সরকার-পন্থী একাংশের আইনজীবী মনে করেন, পঞ্চায়েত ভোট বা মনোনয়ন নিয়ে বর্তমানে বিজেপির লিগ্যাল সেল যে ধরনের সক্রিয়তা দেখাচ্ছে, তার ধারেকাছে পৌঁছতে পারছে না তৃণমূলের এই শাখা। বিজেপির তরফে সুপ্রিম কোর্ট থেকে হাইকোর্টে সমানে ছুটে বেড়াচ্ছে তাদের লিগ্যাল সেল। কিন্তু তৃণমূলের তরফে কী করা হয়েছে, তা দেখতে পাচ্ছেন না দলীয় নেতৃত্ব।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here