Madan Mitra
প্রচারে মদন মিত্র। ছবি: ইউটিউব থেকে

ওয়েবডেস্ক: রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী মদন মিত্র ফের সংবাদ শিরোনামে। দমদম লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী সৌগত রায়ের হয়ে প্রচারে বেরিয়ে তিনি ভোটারদের উদ্দেশে হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগ।

গত বছরের শেষ দিকে শোনা গিয়েছিল, কলকাতা দক্ষিণে সুব্রত বকসি অথবা বাঁকুড়ায় মুনমুন সেনের পরিবর্তে তাঁকে লোকসভায় প্রার্থী করতে পারে তৃণমূল। সে সময় থেকেই মদনবাবুকে বেশ সক্রিয় ভাবে রাজনীতিতে ফিরতে দেখা যায়। দলের সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে তাঁকে প্রায়শই দেখা যেত। তা যাই হোক, এ বারের লোকসভায় নিজে প্রার্থী না-হলেও দমদমের দলীয় প্রার্থী সৌগত রায়ের হয়ে প্রচারে বেরিয়েছিলেন মদন। সেই প্রচার শোভাযাত্রা থেকেই তাঁর বিরুদ্ধে ভোটারদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

জানা গিয়েছে, টেলিভিশনের ‘রাণী রাসমণি’ সিরিয়ালে রাজা রাজ চন্দ্রের ভূমিকায় বাংলাদেশি অভিনেতা গাজি আবদুন নুরকে নিয়ে প্রচারে বেরিয়েছিলেন মদনবাবু। প্রচার গাড়ি থেকে মাইকে মদনবাবু বলেছেন, ”আমাদের অধ্যাপক সৌগত রায় পিছনে রয়েছেন। ভাল থাকবেন। ভোট দিতে যাবেন কিন্তু। আমরা এসে নিয়ে নেব। কোনও চিন্তা নেই, কেন্দ্রীয় বাহিনী কতদিন, ২৩ মে যতদিন। ভাল থাকবেন”।

এমনিতে বাংলাদেশের আরেক অভিনেতা ফিরদৌস তৃণমূলের প্রচারে অংশ নেওয়ায় তাঁর বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। একই ভাবে নুরও ইতিমধ্যে ফোন পেয়েছেন কলকাতায় বাংলাদেশের উপদূতাবাস থেকে। তিনি প্রচারে অংশ নিয়েছিলেন কি না, সে বিষয়ে জানতে চাওয়া হয়েছে তাঁর কাছে।

মঙ্গলবার ফিরদৌসের এ ঘটনা সামনে আসার পর অভিনেতা নুর টাইমস অব ইন্ডিয়াকে জানিয়েছেন, মদন মিত্র তাঁর দাদার মতো। তাঁর সঙ্গে রাজনৈতিক কোনো সম্পর্ক নেই। তবে নির্বাচনী প্রচারে অংশ নেওয়ার কথা অস্বীকার করেন তিনি। নুরের যুক্তি, “আমাকে নিয়ে সংবাদমাধ্যমে এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় যে বিতর্কের ঝড় উঠেছে তা একেবারেই অনুচিত। কারণ আমি কোনো জনসভা বা কর্মিসভায় রাজনৈতিক প্রচারে যাইনি”।

জানা গিয়েছে, এর আগেও ভবানীপুর এলাকায় নুরকে দেখা গিয়েছিল তৃণমূলের মিছিলে।

[ আরও পড়ুন: শহরে ফের রহস্যমৃত্যু বৃদ্ধার ]

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here