Connect with us

রাজ্য

জগদ্ধাত্রী পুজোর জন্য ব্যাপক ভিড়, ট্রেন থেকে পড়ে মৃত্যু ২ যাত্রীর

শেওড়াফুলি: জগদ্ধাত্রী পুজোর জন্য লোকাল ট্রেনে ব্যাপক ভিড়। সেই ভিড়ের ঠেলা সামলাতে না পেরে ট্রেন থেকে পড়ে মৃত্যু হল দুই ব্যক্তির।

পুলিশ সূত্রে খবর, সোমবার রাত সাড়ে ন’টা নাগাদ, শেওড়াফুলি স্টেশনের কাছে হাওড়া-ব্যান্ডেল আপ লোকালে দুর্ঘটনাটি ঘটে। চন্দননগরে জগদ্ধাত্রী পুজোর কারণে ট্রেনে এমনিতেই ভিড় ছিল প্রচুর। তার উপর নিত্যযাত্রীরাও ওই সময় অফিস থেকে ফেরেন। ফলে ট্রেনে ভিড় বেড়েছিল।

সেই ভিড়ের ঠেলা সামলাতে না পেরেই দুর্ঘটনা ঘটে। ট্রেন যখন শেওড়াফুলি স্টেশন ছেড়ে বৈদ্যবাটির দিকে যাচ্ছিল তখন ভিড়ের চাপে ট্রেন থেকে পড়ে যান প্রথম ব্যক্তি। তারপর পরই আরও একজন ভিড়ের চাপে পড়ে যান। দু’জনের পিঠই ছিল ব্যাগ।

প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে,অসম্ভব ভিড় থাকার ফলে ওই দু’জন বগীর ভেতরে ঢুকতে পারেননি। দরজায় কার্যত বাদুড়ঝোলা হলেই যাচ্ছিলেন তাঁরা। স্টেশন ছাড়ার পর কেবিনের কাছে একটি পোস্টের সঙ্গে ধাক্কা লাগে প্রথমজনের। তিনি পড়ে যান। কিছুক্ষণ পর দ্বিতীয় জনও পড়ে যান।

আরও পড়ুন প্রিমিয়ামের টাকা দিতে না পারায় অচল হয়েছে এলআইসি পলিসি? ফের চালু করা যাবে

এরপর খবর দেওয়া হয় জিআরপিতে। তারাই এসে দু’জনকে উদ্ধার করে। যদিও ততক্ষণে মৃত্যু হয় ওই দুই যাত্রীর। তাঁদের দেহ সোমবার রাতেই শ্রীরামপুর ওয়ালস হাসপাতালে পাঠানো হয়। মঙ্গলবার সেখানে ময়নাতদন্তের পর দেহগুলি পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে।

জানা গিয়েছে, মৃত দুই ব্যক্তির বাড়ি চূুঁচুড়া স্টেশনের কাছাকাছি এলাকায়। তবে তাঁদের নাম ও পরিচয় এখনও প্রকাশ করেনি পুলিশ। আজ ময়নাতদন্তের পরই দু’জনের পরিচয় জানা যাবে।

প্রতি বছরই জগদ্ধাত্রী পুজোর সময়ে চন্দননগরগামী ট্রেনগুলিতে ব্যাপক ভিড় হয়। সেই ভিড়ের ঠেলা সামলাতে না পেরে দুর্ঘটনাও ঘটেছে বেশ কয়েকবার। তবুও এর কোনো সুরাহা এখনও পাওয়া যায়নি।

রাজ্য

রেকর্ড সংখ্যক পরীক্ষার দিন আক্রান্তের সংখ্যাতেও নতুন রেকর্ড, রাজ্যে বাড়ল সুস্থতার হারও

খবরঅনলাইন ডেস্ক: এই প্রথম রাজ্যে দৈনিক নমুনা পরীক্ষা ১১ হাজারের গণ্ডি ছাড়িয়ে গেল। স্বাভাবিক ভাবেই রেকর্ড সংখ্যক নমুনা পরীক্ষার দিন, আক্রান্তের সংখ্যাতেও নতুন রেকর্ড তৈরি হল। একই সঙ্গে পাঁচশোর বেশি মানুষ সুস্থ হয়ে ওঠায় সুস্থতার হারে আরও কিছুটা উন্নতি এসেছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে নতুন করে ৬৬৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর ফলে রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যা কুড়ি হাজারের গণ্ডি পেরিয়ে এখন এসে দাঁড়িয়েছে ২০,৪৮৮তে। উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, রাজ্যে বর্তমানে রোগীর সংখ্যা দ্বিগুণ হওয়ার সময়সীমা এখন বেড়ে হয়েছে ২১ দিন।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনামুক্তি ঘটেছে ৫৩৪ জনের। ফলে এখনও পর্যন্ত সম্পূর্ণরূপে করোনাকে জয় করে ফেলেছেন ১৩,৫৭১ জন। ১৮ জনের মৃত্যু হওয়ায় রাজ্যে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭১৭। রাজ্যে সুস্থতার হার বেড়ে হয়েছে ৬৬.২৩ শতাংশ। সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৬,২০০।

কলকাতা ও পার্শ্ববর্তী চার জেলা

গত কয়েক দিনের তুলনায় কলকাতায় নতুন আক্রান্তের সংখ্যা বেশ কিছুটা কম। এ দিন শহরের ১৮২ জন বাসিন্দা নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর ফলে শহরে এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬,৬২২। যদিও কলকাতায় সুস্থতার হার বেশ ভালোই। কারণ এখনও পর্যন্ত ৪,১৪২ মানুষ সুস্থ হয়ে উঠেছেন। কলকাতায় করোনায় মৃতের সংখ্যা ৪০২। ফলে শহরে এখন সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২,০৭৮।

কলকাতার পরেই আক্রান্তের সংখ্যায় দ্বিতীয় আর তৃতীয় স্থানে রয়েছে যথাক্রমে উত্তর ২৪ পরগনা (১৩৪) আর হাওড়া (১০২)। অন্য দিকে দক্ষিণ ২৪ পরগণা আর হুগলিতে আক্রান্ত হয়েছেন যথাক্রমে ৬২ জন করে। এই চার জেলার মধ্যে শুধুমাত্র দক্ষিণ ২৪ পরগণাতেই সক্রিয় রোগীর সংখ্যা আগের দিনের থেকে কমেছে।

দক্ষিণবঙ্গের বাকি জেলা

পূর্ব মেদিনীপুর বাদে দক্ষিণবঙ্গের বাকি জেলায় নতুন আক্রান্তের সংখ্যা দশের কমেই রয়েছে। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্তের খোঁজ মেলেনি ঝাড়গ্রাম, আর বীরভূমে। ঝাড়গ্রাম তো এমনিতেই করোনামুক্ত। অন্য দিকে বীরভূমে মোট আক্রান্তের সংখ্যা তিনশো ছাড়ালেও সুস্থ হয়ে গিয়েছেন ২৮৫ জন।

বর্তমানে পুরুলিয়া আর বাঁকুড়ায় সক্রিয় রোগী রয়েছেন যথাক্রমে ৮ আর ৪৯। পূর্ব আর পশ্চিম বর্ধমানে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৩১ আর ৩২। পূর্ব আর পশ্চিম মেদিনীপুরে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৯৯ আর ৫২। অন্য দিকে নদিয়া আর মুর্শিদাবাদে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা যথাক্রমে ৭৩ আর ৫২।

উত্তরবঙ্গ

উত্তরবঙ্গে মালদা আর দার্জিলিং নিয়ে চিন্তা রয়েছে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের। গত ২৪ ঘণ্টায় দার্জিলিংয়ে ২৬ আর মালদায় ৩৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। দার্জিলিংয়ের সব আক্রান্তই শিলিগুড়ির। এর মধ্যে মালদায় বর্তমানে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২৯৩ আর দার্জিলিংয়ে ১২৫।

আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার, কালিম্পং আর দক্ষিণ দিনাজপুর থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে কোনো করোনা আক্রান্তের সন্ধান মেলেনি। এর মধ্যে করোনামুক্ত হওয়ার পথে অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছে কোচবিহার। কারণ, ওই জেলায় এখন সক্রিয় রোগী রয়েছেন মাত্র এক জন। আলিপুরদুয়ারে সক্রিয় রোগী ৯ জন।

কালিম্পং এখন সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৪ জন। উত্তর আর দক্ষিণ দিনাজপুরে যথাক্রমে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৫৮ আর ৩৫ জন।

নমুনা পরীক্ষার তথ্য

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে ১১,০৫৩টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে, যা এখনও পর্যন্ত দৈনিক সর্বোচ্চ। এর ফলে এখনও পর্যন্ত রাজ্যে মোট ৫ লক্ষ ১৮ হাজার ৫৪টি নমুনা পরীক্ষা হয়ে গেল। রাজ্যে নমুনা পজিটিভ হওয়ার হার বর্তমানে রয়েছে ৩.৯৪ শতাংশ।

Continue Reading

রাজ্য

এ বার মাস্ক না পরলে শাস্তি‍! নতুন নির্দেশিকা রাজ্যের

মাস্ক না পরলে কী হতে পারে?

কলকাতা: এ বার মাস্ক না পরে রাস্তায় বের হলে যেতে হতে পারে আদালতেও!

রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় শুক্রবার নতুন নির্দেশিকা জারি করে বাইরে বেরনোর সময় মাস্ক (Mask) পরার অনুরোধের পাশাপাশি আইনত শাস্তির কথাও জানিয়েছেন।

করোনাভাইরাস (Coronavirus) সংক্রমণ মোকাবিলায় মুখে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক হয়েছে আগেই। তবে কেউ কেউ সেই নিয়ম না মেনে উদাসীন ভাবেই চলাফেরা করছেন। যা করোনা সংক্রমণের আশঙ্কাকে আরও বাড়িয়ে তুলেছে। এমন পরিস্থিতিতে নির্দেশিকা জারি করে সাধারণ মানুষকে মাস্ক-সচেতন করে তোলার উদ্যোগ নিল রাজ্য।

জানা গিয়েছে, ইতিমধ্য়েই জেলা প্রশাসন, পুরসভা এবং পুলিশের কাছে নতুন নির্দেশ পৌঁছে গিয়েছে। ফলে শুক্রবার থেকেই এই নিয়ম চালু হয়ে যাবে।

কী হতে পারে?

মাস্ক না পরে বাইরে বেরোতে দেখলেই পুলিশ ধরবে। এর আগেই বেশ কয়েকজনকে আটক করা হলেও কিছু মানুষের আচরণ বদলায়নি।

মাস্ক না পরার কারণ জানাতে হবে পুলিশকে। মাস্ক পরতে রাজি না হলে রাস্তা থেকে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

মাস্ক না পরলে তা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ হিসাবে গণ্য হবে।

ক্ষেত্র বিশেষে আদালতে পর্যন্ত যেতে হতে পারে। সেখানে গিয়েই মাস্ক না পরার ব্যাখ্য়া দিতে হবে।

আগে কী বলেছিল রাজ্য?

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের শুরুতেই রাজ্য় মাস্ক বাধ্য়তামূলক করে। মাস তিনেক আগে মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা একটি নির্দেশিকায় জানান, রের বাইরে বেরোতে হলে মুখাবরণ থাকতেই হবে। সেই মুখাবরণ মাস্ক হতে পারে, হতে পারে দোপাট্টা বা গামছাও। এমনকি কাপড়ের টুকরো বা রুমালও চলতে পারে, তবে তা যেন নাকমুখ ঢাকার মতো হয়।

মুখ্যসচিব বলেছিলেন, মুখাবরণ থাকলে কোভিড-১৯-এর সংক্রমণ অনেকটাই রোধ করা যায়। তাই সকলেরই মুখাবরণ ব্যবহার করা উচিত।

কেন মাস্ক পরতে হবে?

চিকিৎসকরা জানান, যে হেতু কোভিড ১৯ (COVID 19) মুখের ড্রপলেট থেকে ছড়ায়, সে হেতু মুখাবরণ ব্যবহার করলে এর সংক্রমণ অনেকটাই ঠেকানো যেতে পারে।

মাস্ক ব্যবহারের সঠিক পদ্ধতি:

এ ভাবে মাস্ক না পরাই ভালো

১. মাস্ক পরার আগে ভালো করে সঠিক নিয়ম মেনে হাত ধুতে হবে।

২. মুখ এবং মাস্কের মধ্যে কোনো শূন্যস্থান থাকলে চলবে না।

৩. মাস্ক স্পর্শ করা যাবে না। ছুঁতে হলে ফের সঠিক নিয়মে হাত ধুতে হবে।

৪. একক ব্যবহারযোগ্য মাস্ক পুনরায় ব্যবহার করা যায় না।

৫. মাস্ক খোলার সময় পিছনের দিক থেকে খুলতে হবে। সামনের দিকে মোটেই হাত দেওয়া যাবে না। তা করতে হলে সঠিক নিয়মে হাত ধুতে হবে।

পড়তে পারেন: ১০টি ওয়াশেবল মাস্ক দেখে নিন

Continue Reading

রাজ্য

কলকাতা-সহ গোটা দক্ষিণবঙ্গে সন্ধ্যার মধ্যে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা

thunderstorm

খবরঅনলাইন ডেস্ক: বৃষ্টির অভাবে গত কয়েক দিনে সর্বোচ্চ পারদ চড়ছিল হুহু করে। সেই অসহনীয় পরিস্থিতি থেকে কিছুটা স্বস্তি শুক্রবার সন্ধ্যার মধ্যেই মিলতে পারে কলকাতা-সহ গোটা দক্ষিণবঙ্গে।

দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জায়গায় শুক্রবার সন্ধ্যার মধ্যে ঝড়বৃষ্টি হতে পারে। বিক্ষিপ্ত ভাবে কোথাও কোথাও ভারী বৃষ্টিরও সম্ভাবনা রয়েছে। কলকাতায় মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহের শনিবার আর রবিবার কলকাতায় প্রবল বর্ষণ হয়। সোমবার কলকাতায় বৃষ্টি না হলেও দক্ষিণবঙ্গের বাকি জায়গায় বৃষ্টি হয়। কিন্তু তার পর থেকেই বৃষ্টি কার্যত উধাও। বৃষ্টি কমে যাওয়ার ফলে ক্রমশ বাড়তে শুরু করে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা।

বৃহস্পতিবার কলকাতায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা পৌঁছে যায় ৩৯ ডিগ্রির ঘরে। জুলাইয়ে এই রকম পারদবৃদ্ধি শেষ কবে হয়েছিল কার্যত মনেই পড়ে না। তবে ওই দিন সন্ধ্যাতেও দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে টুকটাক বৃষ্টি হয়, যদিও কলকাতার ভাগ্যে কিছুই জোটেনি।

অবশেষে শুক্রবার থেকে দক্ষিণবঙ্গে ফের সক্রিয় হওয়ার ইঙ্গিত দিচ্ছে বর্ষা। তারই ফলস্বরূপ এ দিন সন্ধ্যায় বৃষ্টির সম্ভাবনা। ইতিমধ্যেই ঝাড়খণ্ড আর বিহার বজ্রগর্ভ মেঘ তৈরি হয়ে গিয়েছে। ধীরে ধীরে তা বাংলার দিকেই এগিয়ে আসছে।

শুক্রবার বিকেল থেকে রাতের মধ্যে দক্ষিণবঙ্গের সব জেলা আর উত্তরবঙ্গের মালদা আর দক্ষিণ দিনাজপুরে ঝড়বৃষ্টি হতে পারে।

Continue Reading
Advertisement
বিনোদন8 hours ago

‘সড়ক ২’ পোস্টার: ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাতের অভিযোগে মহেশ ভাট, আলিয়া ভাটের বিরুদ্ধে মামলা

রাজ্য9 hours ago

রেকর্ড সংখ্যক পরীক্ষার দিন আক্রান্তের সংখ্যাতেও নতুন রেকর্ড, রাজ্যে বাড়ল সুস্থতার হারও

দেশ9 hours ago

নতুন নিয়মে খুলছে তাজমহল!

wfh
ঘরদোর10 hours ago

ওয়ার্ক ফ্রম হোম করছেন? কাজের গুণমান বাড়াতে এই পরামর্শ মেনে চলুন

দেশ10 hours ago

আতঙ্ক বাড়িয়ে ফের কাঁপল দিল্লি

শিল্প-বাণিজ্য10 hours ago

কোভিড-১৯ মহামারি ভারতীয়দের সঞ্চয়ের অভ্যেস বদলে দিয়েছে: সমীক্ষা

fat
শরীরস্বাস্থ্য10 hours ago

কোমরের পেছনের মেদ কমান এই ব্যায়ামগুলির সাহায্যে

বিদেশ11 hours ago

নরেন্দ্র মোদীর ‘বিস্তারবাদী’ মন্তব্যের পর চিনের কড়া প্রতিক্রিয়া

নজরে