প্রতীকী ছবি

দার্জিলিং: গত কয়েক বছরে নানা সমস্যায় বারবার দার্জিলিং-এর টয় ট্রেন পরিষেবা ধাক্কা খেয়েছে। গত বছর পাহাড়ে আন্দোলনের জেরে জুলাইয়ে সোনাদা এবং গয়াবাড়ি স্টেশন দু’টি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। ফলে কয়েক দিন বন্ধ রাখতে হয়েছিল পরিষেবা। চলতি বছরে বর্ষায় ধসের কারণেও টানা দু’ মাস বন্ধ ছিল পরিষেবা। তা ছাড়াও গত কয়েক বছরে প্রযুক্তিগত কারণে একাধিক বার ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ায় যাত্রী নিরাপত্তা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছিল।

টয় ট্রেন পরিষেবাকে কী ভাবে আগের গৌরবে ফিরিয়ে দেওয়া যায় সে ব্যাপারে ইউনেস্কোর কাছে পরিকল্পনা চেয়েছিল উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেল। সুষ্ঠু ভাবে টয় ট্রেন চালানোর বিষয়েও পরামর্শ চাওয়া হয়েছিল। সেই ব্যাপারেই খসড়া একটি পরিকল্পনা রেলকর্তাদের হাতে তুলে দিয়েছে ইউনেস্কোর প্রতিনিধিরা।

আরও পড়ুন শেয়াল মেরে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট, ভাইরাল হতেই গ্রেফতার যুবক

এই ব্যাপারে কার্শিয়াং-এ চার দিনব্যাপী একটি কর্মশালা আয়োজিত হয়। সেখানেই এই পরিকল্পনা জমা দেয় ইউনেস্কো। সেটি দেখার পরে লাইন, স্টেশন সংরক্ষণের মতো বেশ কয়েকটি কাজে হাত দেবে রেল কর্তৃপক্ষ। এমনই জানিয়েছেন রেলের আধিকারিকরা।

ইউনেস্কোর তরফে দার্জিলিং হিমালয়ান রেলওয়েকে (ডিএইচআর) হেরিটেজ তকমা দেওয়া হয়েছিল। তাই ওই সংস্থাকেই গত বছর বলা হয়েছিল ঐতিহ্য বজায় রেখে কী ভাবে টয় ট্রেন পরিষেবার সার্বিক উন্নয়ন ঘটানো সম্ভব তার একটি পরিকল্পনা তৈরি করতে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here