Mukul Roy
ছবি: শ্রীধর মারামের টুইটার থেকে প্রাপ্ত

ওয়েবডেস্ক: উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী সিদ্ধার্থনাথ সিং কলকাতায় আসছেন আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর। কেন্দ্রের নতুন প্রকল্প আয়ুষ্মান ভারত নিয়ে তিনি একটি সভায় বক্তব্য রাখবেন। তবে লোকসভা ভোট যত এগিয়ে আসছে কি কেন্দ্র কি রাজ্য, সমস্ত কর্মসূচিতেই উঠে আসছে রাজনৈতিক প্রসঙ্গ। ধারণা করা হচ্ছে, সিদ্ধার্থনাথের বক্তব্যও সেই তালিকার বাইরে থাকবে না।

এ রাজ্যের রাজনীতি সচেতন মানুষের কাছে সিদ্ধার্থনাথ সিং কোনো অচেনা নাম নয়। বঙ্গ-বিজেপির দায়িত্বপ্রাপ্ত হিসাবে গত ২০১৪ লোকসভা নির্বাচনে সিদ্ধার্থনাথ বেশ পরিচিত মুখ হয়ে উঠেছিলেন বৈদ্যুতিন সংবাদ মাধ্যমের দৌলতে। তবে ২০১৫-র একটি জনসভায় তাঁর বহুচর্চিত “ভাগ মুকুল ভাগ” বক্তব্য নিয়ে কম আলোড়ন হয়নি। সে সময় মুকুলবাবু ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ।

এই বক্তব্যকে ভারে বাড়িয়ে তিনি ২০১৬ সালে বিধানসভা ভোটের আগে তুলেছিলেন “ভাগ মমতা ভাগ স্লোগান”। যদিও সিদ্ধার্থনাথের অনুমান সে বার বিন্দু মাত্রও মেলেনি। বিধানসভা ভোটে আসন সংখ্যা বাড়িয়ে সে বার ফের ক্ষমতায় আসে তৃণমূল।

তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বা মুকুলবাবুর উদ্দেশে বলিউডের হিন্দি ছবি ‘ভাগ মিলখা ভাগ’-এর অনুকরণে সিদ্ধার্থনাথের বক্তব্য আদালত পর্যন্ত গড়ায়। কিন্তু জল মাত্রই থেমে থাকার নয়। মুকুলবাবুর রাজনৈতিক কেরিয়ারও গড়াতে গড়াতে বিজেপির রাজ্য কার্যালয় ৬, মুরলীধর সেন লেনে এসে ঠেকে। বর্তমানে রাজ্য বিজেপির রাজ্য নেতার তালিকার প্রথম সারিতেই আছে মুকুলবাবুর নাম। সদ্য সদ্য তিনি বিজেপিতে যোগ দিয়েই দলের জাতীয় কর্মসমিতির বৈঠকে পর্যন্ত আমন্ত্রিত হয়েছিলেন।


আরও পড়ুন: তেলঙ্গনায় এককাট্টা বিরোধীরা, রাষ্ট্রপতি শাসনের দাবি নিয়ে দরবার রাজ্যপালের কাছে

গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে মুকুলবাবুর ঘাড়ে ছিল প্রভূত দায়িত্ব। একই ভাবে আগামী বছরের লোকসভা নির্বাচনে দলের সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ যে ২২ আসনে জয়ের টার্গেট বেঁধে দিয়েছেন, সেখানেও বড়োসড়ো ভূমিকা থাকবে মুকুলবাবুর। ফলে সিদ্ধার্থনাথের কলকাতা সফরে তাঁর উদ্দেশে “ভাগ” স্লোগান পুনরুচ্চারিত হওয়ার কোনো সম্ভাবনাই না থাকলেও তৃণমূলী-কটাক্ষের অবকাশ থেকেই যাচ্ছে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন