ছবি: ইউটিউব থেকে

কলকাতা: বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজ্য রাজনীতি তোলপাড়। বিজেপি যতই এই ঘটনার দায় এড়িয়ে তৃণমূলকে কাঠগড়ায় তুলুক না কেন, ঘুরে ফিরে এই ঘটনা তাড়া করে বেড়াচ্ছে তাদের। বাংলা দখলের স্বপ্নে তারা যখন বিভোর, তখন বাংলার ‘আইকন’কে এ রকম অপমান বাঙালি যে মেনে নেবে না, সেটা ভালো করেই বুঝতে পারছে তারা। তাই তো বৃহস্পতিবার সকালে উত্তরপ্রদেশের সভা থেকে নরেন্দ্র মোদীকে বলতে হয়েছে, তিনি নিজে বিদ্যাসাগরের পঞ্চধাতুর মূর্তি গড়ে দেবেন। সেই মূর্তি হবে কি হবে না, সেটা পরে জানা যাবে, কিন্তু ইতিমধ্যেই দয়ার সাগরকে রাজনীতিতে নামাল বিজেপি।

বলা যেতে পারে গেরুয়া শিবিরের হয়ে প্রচার সারলেন বিদ্যাসাগর। ব্যাপারটা বুঝতে অসুবিধা হচ্ছে? তা হলে খোলসা করা যাক।

বৃহস্পতিবার সকালে দলের কর্মী, সমর্থকদের নিয়ে প্রচারে বেরিয়ে ছিলেন যাদবপুরের বিজেপি প্রার্থী অনুপম হাজরা। তবে এ দিন তাঁর প্রচার ছিল অন্য রকম। গোটা প্রচারটিই তিনি সারলেন বিদ্যাসাগরকে নিয়ে।

‘বিদ্যাসাগর’কে নিয়ে প্রচারে অনুপম হাজরা।

আরও পড়ুন সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে না এনডিএ? সনিয়া গান্ধীর পদক্ষেপে শুরু জল্পনা

এ দিন সকালে যাদবপুর ৮বি বাসস্ট্যান্ড চত্বর থেকে প্রচার শুরু করেন বিজেপি প্রার্থী। প্রচারের শুরুতেই তাঁর সঙ্গে ছিলেন ছদ্মবেশী বিদ্যাসাগর। তাঁকে সঙ্গে নিয়েই এলাকায় ঘুরে প্রচার সারেন অনুপম। রাস্তার ধারে ডাব খেয়ে গলা ভিজিয়ে নেন তাঁরা। ফের এগিয়ে যান প্রচারের উদ্দেশ্যে। এরই মধ্যে, মূর্তি ভাঙা নিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে ওঠা যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করারও চেষ্টা করেন অনুপম। তাঁর সাফ কথা, “যার বর্ণপরিচয় পড়ে আমরা পড়তে শিখেছি, আজ তিনি আক্রান্ত। তাঁকেই অপমান করা হচ্ছে। তাঁর মূর্তি ভেঙে তা নিয়ে রাজনীতি করছে শাসকদল।”

রাজনৈতিক ভাবে অন্যতম হাইভোল্টেজ কেন্দ্র যাদবপুর। এখানে চিরাচরিত ভাবে লড়াই বাম এবং তৃণমূলে। বিজেপি কখনোই সে ভাবে দাগ কাটতে পারেনি। আর এ বারও বিজেপি রাজ্যের যে ক’টা আসন সম্ভাবনাময় মনে করছে, তার মধ্যে যাদবপুর নেই। এখন দেখার বিদ্যাসাগরকে ভোট প্রচারে নামিয়ে কোনো রাজনৈতিক ফায়দা বিজেপি আদৌ তুলতে পারে কি না।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here