panchayet

কলকাতা: নিরাপত্তা এবং হাইকোর্ট নির্ধারিত ক্ষতিপূরণের ব্যাবস্থা করে আগামী ১৪ মে ভোট গ্রহণ প্রক্রিয়ার কথা জানিয়ে দিল রাজ্য নির্বাচন কমিশন।

হাইকোর্ট এবং সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে আগামী ১৪ মে পঞ্চায়েত নির্বাচনে আর কোনো বাধা রইল না রাজ্য নির্বাচন কমিশনের। তবে মূল শর্ত রইল দু’টি। একদিকে নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে অন্য দিকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতে যাওয়া ৩৪.২ শতাংশ আসনের উপর শর্ত আরোপ করেছে আদালত। ফলে এই দু’টি শর্ত মেনে নির্বাচন কমিশন আগামী সোমবার, অর্থাৎ ১৪ মে বাকি প্রায় ৬৬ শতাংশ আসনে নির্বাচন করানোর কথা জানিয়ে দিল।

নির্বাচন কমিশনের পরিসংখ্যান থেকে স্পষ্ট, রাজ্যের ৬২১টি জেলা পরিষদ, ৬,১৫৭টি পঞ্চায়েত সমিতি এবং ৩১,৮২৭টি গ্রাম পঞ্চায়েতের ভোট গ্রহণ করতে পারে ওই নির্ধারিত দিনেই।

আরও পড়ুন: নিরাপত্তা নিয়ে রায় জানিয়ে দিল হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ

আদালতের এই রায় নিয়ে যথেষ্ট খুশি শাসক এবং বিরোধী শিবির উভয় পক্ষই। কারণ, অবশিষ্ট ৩৪.২ শতাংশ আসনের ভাগ্য সুপ্রিম কোর্টের ৩ জুলাইয়ের শুনানির উপর ঝুলে থাকলেও সিংহভাগ আসনেই ভোট হলে দু’তরফেই আপত্তি নেই। তবে বিরোধীরা এখনও অনড় পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে কমিশনের পরিকল্পনার উপর। বৃহস্পতিবারও রাজ্য নির্বাচন কমিশনের সদর দফতরের সামনে বিক্ষোভ দেখান জাতীয় কংগ্রেস কর্মীরা। এই একটি বিষয়ে আশ্বস্ত করলে যে বিরোধীরাও ভোটে যেতে পিছপা হবে না, তা জানানো হয়েছে সিপিএমের তরফেও। অন্য দিকে তৃণমূলের তরফে পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, আদালতের এই রায়ে মানুষ খুশি।

আরও পড়ুন: ই-মনোনয়ন: সুপ্রিম কোর্টে স্থগিতাদেশ, পরবর্তী শুনানি ৩ জুলাই

সব মিলিয়ে আদালতের আরোপ করা শর্ত মেনে নির্বাচন কমিশনের পরবর্তী পদক্ষেপের দিকেই তাকিয়ে রয়েছে রাজনৈতিক দলগুলি।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here