কলকাতা: সরকারি স্কুলের শিক্ষকরা কোনো গৃহশিক্ষকতা বা কোনো রকম কোচিং সেন্টারের সঙ্গে যুক্ত থাকতে পারবেন না। নতুন করে নির্দেশিকা জারি করে এমনটাই জানিয়েছে রাজ্যের শিক্ষা দফতর।

অভিযোগ উঠেছিল, বিভিন্ন জেলায় নিয়মের তোয়াক্কা না করে গৃহশিক্ষকতা করছেন সরকারি স্কুলের শিক্ষকরা। এ বার এই নিয়ে কড়া পদক্ষেপ করল রাজ্য। স্কুল শিক্ষা দফতরের অধীন নির্দেশালয় এই বিজ্ঞপ্তিটি জারি করার পাশাপাশি মধ্যশিক্ষা পর্ষদের অধীনস্থ জেলার আধিকারিকদের মারফত স্কুলগুলির প্রধান শিক্ষকদের কাছেও সেই নির্দেশ দিয়েছেন।

‘রাইট অব চিল্ড্রেন টু ফ্রি এন্ড কম্পালসারি এডুকেশন অ্যাক্ট ২০০৯-এর ২৮ নম্বর ধারা অনুযায়ী এই নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। ২৭ জুন জারি করা হয়েছে ওই নির্দেশিকা।

*পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অধীনস্থ স্কুলগুলিতে কর্মরত শিক্ষকরা গৃহশিক্ষকতা বা অন্য কোনো ধরনের শিক্ষকতার সঙ্গে যুক্ত থাকতে পারবেন না।

*কোনো ধরনের কোচিং সেন্টারের সঙ্গেও তাঁরা যুক্ত থাকতে পারবেন না।

*বিনা পারিশ্রমিকে কোথাও ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াতেও পারবেন না।

উল্লেখ্য, রাজ্যের সরকারি ও সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত স্কুলগুলির শিক্ষক-শিক্ষিকাদের প্রাইভেট টিউশনি নিয়ে অভিযোগ দীর্ঘদিনের। অতীতেও স্কুলের শিক্ষকদের টিউশন বন্ধ করার জন্য উদ্যোগী হয়েছিল রাজ্য সরকার। কিন্তু তার পরেও একই ধরনের অভিযোগ উঠছে। কিছুদিন আগেই পাঁচটি জেলার স্কুল পরিদর্শককে অ্যাকশন টোকেন জমা দেওয়ার কথা বলা হয়েছিল। সে ক্ষেত্রে এই জেলাগুলির ৬১ জন শিক্ষকের প্রসঙ্গ উল্লেখ ছিল। তাঁদের গৃহশিক্ষকতা ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। এই মর্মে তাঁদের মুচলেকাও জমা দিতে বলা হয়।

আরও পড়তে পারেন:

‘মমতায় পুনর্জন্ম মা সারদার’, নির্মলের বক্তব্য খণ্ডন করে বিবৃতি বেলুড় মঠের

‘শুধু শুভেন্দু নন, সারদার টাকা নিয়েছেন মুকুল-অধীর’, ফের বিস্ফোরক সুদীপ্ত সেন

রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে জমা পড়ল অন্তত ১১৫টি মনোনয়ন, লড়াইয়ে রয়েছেন মুম্বইয়ের এক বস্তিবাসী, লালুপ্রসাদ যাদব-সহ আরও অনেকেই

দক্ষিণবঙ্গে সক্রিয় হচ্ছে বর্ষা, আগামী এক সপ্তাহ ভালো বৃষ্টির সম্ভাবনা

আবেগ নয়, বাস্তব বুঝে রাজনীতি করার ফলেই বাজিমাত্র বিজিপিএমের, বলছেন অনীত থাপা

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন