কলকাতা: “সরকার এমন কোনো প্রতিশ্রুতি দিতে চায় না, যা পূরণ করতে পারবে না”। অল বেঙ্গল স্টেট গভর্নমেন্ট কলেজ টিচার্স অ্যাসোসিয়েশনের ৩৫তম বার্ষিক সভায় এসে সপ্তম বেতন কমিশন চালু করার প্রসঙ্গে এমনই মন্তব্য করেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

এ দিনের অনুষ্ঠানে অল বেঙ্গল স্টেট গভর্নমেন্ট কলেজ টিচার্স অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক সুশান্ত রায় কর্মকার শিক্ষামন্ত্রীর সামনে ২৮ দফা দাবি পেশ করেন। যেগুলির মধ্যে ছিল সপ্তম বেতন কমিশন চালু করার দাবি। এই দাবি প্রসঙ্গে পার্থবাবু বলেন, “আমরা আপনাদের দাবি সম্পর্কে অবহিত। সপ্তম পে কমিশন চালু করলে এক লাফে রাজ্যের খরচ আড়াই হাজার কোটি টাকা বৃদ্ধি পাবে। বর্তমানে রাজ্যের যা অবস্থা, তাতে এই কাজ করতে হলে বাজার থেকে এই অর্থ ঋণ হিসাবে নিতে হবে। আমাদের রাজস্ব স্থিতপ্রায় হলে নিশ্চয়ই করা হবে”।

শিক্ষকদের উদ্দেশে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “আমাদের এই বিষয়ে হিসেবও আছে, নজরও আছে। কিন্তু এ রকম কোনো পদক্ষেপ নিতে চাই না, যে ঘোষণা করব এখন আর পাওয়া যাবে পাঁচ বছর বাদে। আমরা যা পারব, তা সরাসরি করব। আমরা এই বিষয়টি নিয়ে নিসন্দেহে আলোচনা করেছি, এমনকী অর্থ বিভাগের সঙ্গেও আলোচনা করেছি”।

পার্থবাবু কেন্দ্রীয় বঞ্চনার প্রসঙ্গ টেনে বলেন, “এই পে কমিশনের ৫০ শতাংশ দেবে কেন্দ্র আর ৫০ শতাংশ দেবে রাজ্য। শুধু তাই নয়, তিন বছর বাদে ওই ৫০ শতাংশও দেবে না কেন্দ্র। আমরা সব দিকগুলিই বিবেচনা করছি”।

[ আরও পড়ুন: ডানকুনিতে কারখানায় বিধ্বংসী আগুন, ছড়াচ্ছে দ্রুতগতিতে ]

অধ্যাপকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, “দাবি-দাওয়া থাকবেই। কিন্তু গুণগত শিক্ষা দিন। শুধু আসলাম আর বাড়ি চলে গেলাম- সেটা চলবে না”।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here