চোখের জল আর গান স্যালুটে শেষ বিদায় সুব্রত মুখোপাধ্যায়কে

0

কলকাতা: শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টে নাগাদ কেওড়াতলা মহাশ্মশানে পৌঁছোয় প্রয়াত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের মরদেহ। দেওয়া হয় গান স্যালুট। এর পরই সম্পন্ন হয় শেষকৃত্য।

রবীন্দ্র সদন থেকে বিধানসভা, তার পরে বালিগঞ্জ হয়ে কেওড়াতলা মহাশ্মশান পর্যন্ত সুব্রতর শেষযাত্রায় শামিল হন অগণিত সুব্রত-অনুরাগী, পরিবার-পরিজন। ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। কেওড়াতলা মহাশ্মশানে মালা দেওয়ার পর পা ছুঁয়ে প্রয়াত মন্ত্রীকে প্রণাম করেন অভিষেক।

বিধানসভা থেকে একডালিয়ার বাড়িতে পৌঁছোয় প্রয়াত মন্ত্রীর মরদেহ। সেখানে বেশ কিছুক্ষণ শায়িত থাকার পর তাঁর মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় একডালিয়া এভারগ্রিন ক্লাবে। এই ক্লাব এবং ক্লাবের পুজোর সঙ্গে অবিচ্ছেদ্য ভাবে জড়িয়ে গিয়েছে তাঁর নাম। শেষ বারের মতো প্রিয় নেতাকে চোখে দেখতে ভিড় জমিয়েছিলেন তাঁর অগণিত অনুরাগী।

রবীন্দ্র সদনে চার ঘণ্টা শায়িত থাকার পর শুক্রবার বেলা ২টো নাগাদ বিধানসভায় পৌঁছোয় প্রয়াত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের মরদেহ। সেখানে বেশ কিছুক্ষণ থাকার পর নিয়ে যাওয়া হয় বালিগঞ্জে। বিধানসভায় তাঁকে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন বিভিন্ন দলের বিধায়করা এবং অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। এসেছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখর।

হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার কথা ছিল রাজ্যের পঞ্চায়েতমন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের। কিন্তু তার আগেই দীপাবলির আলোর উৎসবে নেমেছে আঁধার।

বৃহস্পতিবার রাত ৯টা ২২ মিনিটে এসএসকেএম হাসপাতালে জীবনাবসান হয় সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের। রাতে পার্ক সার্কাসের পিস ওয়ার্ল্ডে রাখা হয় তাঁর মরদেহ। শুক্রবার সকালেই দেহ নিয়ে যাওয়া হয় রবীন্দ্র সদনে। দুপুর ২টো পর্যন্ত রবীন্দ্রসদনে শ্রদ্ধা জানানোর জন্য রাখা হয় মরদেহ।

মন্ত্রীকে শ্রদ্ধা জানান শাসক-বিরোধী নেতারা। বাম নেতা কান্তি গঙ্গোপাধ্যায়, সুজন চক্রবর্তী, সূর্যকান্ত মিশ্র। রবীন্দ্র সদনে গিয়ে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিশীথ প্রামাণিক, মেদিনীপুরের সাংসদ দিলীপ ঘোষ, শমীক ভট্টাচার্য, জিতেন্দ্র তিওয়ারি, রাহুল সিনহা-সহ বিজেপির নেতারা। শ্রদ্ধা জানান কংগ্রেস নেতা আবদুল মান্নান।

রবীন্দ্র সদনে সুব্রত মুখোপাধ্যায়কে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সী, প্রাক্তন সাংসদ এবং অভিনেত্রী মুনমুন সেন। ছিলেন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, অরূপ বিশ্বাস, মদন মিত্র, ইন্দ্রনীল সেন, দেবাশিস কুমার, তাপস রায়, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, মালা রায়, শশী পাঁজা, কুণাল ঘোষ-সহ অন্যরা। শেষ শ্রদ্ধা জানাতে সেখানে ভিড় করেন অগণিত অনুরাগী।

দুপুর ২টোয় রবীন্দ্র সদন থেকে গন্তব্য বিধানসভা। প্রয়াত নেতার মৃতদেহ বিধানসভা থেকে নিয়ে যাওয়া হয় বালিগঞ্জের বাড়িতে। তার পর তাঁর বালিগঞ্জ কেন্দ্রের বিভিন্ন জায়গায়। একডালিয়া এভারগ্রিন ক্লাবে যায় তাঁর দেহ। এর পর কেওড়াতলা মহাশ্মশানে হয় তাঁর শেষকৃত্য।

আরও পড়তে পারেন

রবীন্দ্র সদনে সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের দেহ, থাকবে দুপুর ২টো পর্যন্ত

প্রয়াত সুব্রত মুখোপাধ্যায়

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন