ওয়েবডেস্ক: কলকাতা তথা সমগ্র রাজ্যে হঠাৎ করে বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের স্থায়ী সমাধান করতে বিশেষ উদ্যোগ নিল রাজ্য। পুরুলিয়ার অযোধ্যা পাহাড়ে তৈরি হচ্ছে দু’টি ইলেকট্রো পাম্পিং স্টেশন। রাজ্যের বিদ্যুৎ দফতরের শীর্ষ আধিকারিকরা জানিয়েছেন, এই পাম্পিং স্টেশন চালু হলে লোডশেডিংয়ের কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই স্বয়ংক্রিয় ভাবে ফের বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু হয়ে যাবে।

এই দু’টি স্টেশনের একটির নাম তুর্গা পাম্পিং স্টেশন, অপরটি বন্ধুনালা। প্রথমটি ৯০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে, আর দ্বিতীয়টির উৎপাদনক্ষমতা প্রায় এক হাজার মেগাওয়াট।

তবে শুধুমাত্র আপৎকালীন পরিস্থিতির জন্যই এই প্রকল্পের উদ্যোগ নিয়েছে রাজ্য সরকার৷ ওই দু’টি পাম্পিং স্টেশন থেকে নিয়মিত বিদ্যুৎ সরবরাহ করা যাবে না৷ আচমকা বিদ্যুৎবিভ্রাট মোকাবিলা করার জন্য এই ব্যবস্থা।

উল্লেখ্য, ২০০৮ সালে অযোধ্যা পাহাড়েই তৈরি হয় পুরুলিয়া পাম্পিং স্টেশন, যার উৎপাদন ক্ষমতা ৯০০ মেগাওয়াট। কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বিদ্যুতের চাহিদা বেড়েছে। তাই আরও দু’টি পাম্পিং স্টেশন তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের কথায়, “শুধুমাত্র পুরুলিয়া পাম্পিং স্টেশনের উপর ভরসা করে বিদ্যুৎবিভ্রাট মোকাবিলা কার্যত অসম্ভব। তাই অযোধ্যা পাহাড়ের নীচে আরও দু’টি হাইড্রোইলেকট্রিক পাম্পিং স্টেশন তৈরি করা হবে।”

আরও পড়ুন লোকাল ট্রেনের কামরায় পোস্টার সাঁটলেই এ বার শাস্তির খাঁড়া!
প্রশাসন সূত্রে খবর, আগামী বছর এই দু’টি হাইড্রোইলেকট্রিক পাম্পিং স্টেশন তৈরির কাজ শুরু হবে৷ আট বছরের মধ্যেই উৎপাদন শুরু হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে৷ এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হয়ে গেলে আচমকা বিদ্যুৎবিভ্রাট ঠেকানো যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here