Connect with us

পশ্চিম মেদিনীপুর

ঘাটালে অ্যাম্বুলেন্সের চাকা খুলে ধাক্কা ডিভাইডারে

ঘাটাল: হাসপাতালে যাওয়ার পথে চাকা খুলে দুর্ঘটনার শিকার হল রোগী-সহ একটি অ্যাম্বুলেন্স। তবে গাড়ির গতিবেগ বেশি না থাকায়, আরোহীরা প্রত্যেকই সুস্থ আছেন।

ঘটনায় প্রকাশ, ঘাটালের বাসিন্দা ৭০ বছরের বৃদ্ধা দুলারানি সামন্তকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল কলকাতায়। পথিমধ্যে দুপুর ১টা নাগাদ কোনা এক্সপ্রেসওয়েতে অ্যাম্বুলেন্সের চাকা খুলে গিয়ে দুর্ঘটনার সৃষ্টি হয়। তৎক্ষণাৎ গাড়িটি ধাক্কা মারে পাশের ডিভাইডারে। সামান্য চোট পান রোগী এবং তাঁর দুই ছেলে।

অ্যাম্বুলেন্সটিকে ডিভাইডারে ধাক্কা মারতে দেখেই সেখানে ছুটে আসেন কর্তব্যরত পুলিশ কর্মীরা। তাঁদের সাহায্যে অ্যাম্বুলেন্সটিকে রাস্তার এক পাশে নিয়ে আসা হয়।

চালক অবশ্য দাবি করেছেন, চাকা খুলে যায়নি। বিয়ারিং এবং বুশ ভেঙে গাড়িটি হেলে গিয়েছিল। তিনি এই ধরনের দুর্ঘটনার জন্য রাস্তার বেহাল অবস্থাকে দায়ী করেন। তাঁর অভিযোগ, রাস্তা সারাই নিয়ে হেলদোল নেই। একই সঙ্গে গাড়ির রক্ষণাবেক্ষণে আরও নজর দেওয়ার কথাও স্বীকার করেন চালক।

আরও পড়ুন লড়াই শেষ, পোলবাকাণ্ডে গুরুতর আহত পড়ুয়া ঋষভের মৃত্যু

প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, গাড়িটি খুব একটা জোরে যাচ্ছিল না। যদি গতি বেশি থাকত, তা হলে বড়োসড়ো দুর্ঘটনা ঘটে যেত।

পশ্চিম মেদিনীপুর

শারীরিক দূরত্ব মানা হচ্ছে কি না বলে দেবে খড়গপুর আইআইটির নতুন যন্ত্র

iit kharagpur

খবরঅনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাসকে (Coronavirus) ঠেকিয়ে লকডাউনের পাশাপাশি যে কয়েকটি মোক্ষম ওষুধ রয়েছে তার মধ্যে শারীরিক দুরত্ববিধি বজায় রাখার ব্যাপারটি সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু আনলকের (Unlock 1) আবহে অনেকেই সেই দূরত্ববিধি বজায় রাখতে ভুলে যাচ্ছেন।

এই সমস্যার সমাধান করতে এ বার বিশেষ জন্ত্রের আবিষ্কার করল আইআইটি খড়গপুর (IIT Kharagpur)। শারীরিক দুরুত্ববিধি মানা হচ্ছে কি না, এই যন্ত্রই বুঝিয়ে দেবে।

এই যন্ত্রটি তৈরি করতে খুব বেশি খরচও হয়নি বলে জানিয়েছেন আইআইটি খড়গপুরের গবেষকরা। দুই অধ্যাপক দেবাশিস চক্রবর্তী এবং আদিত্য বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে তৈরি গবেষকদের একটি দল যন্ত্রটির জন্ম দিয়েছেন। কিন্তু ঠিক কীভাবে কাজ করবে এটি?

গবেষক দলের এক সদস্য এই প্রসঙ্গেই বলেন, “স্বাস্থ্য মন্ত্রকের নির্দেশ মেনে যন্ত্রটির মধ্যে শারীরিক সামাজিক দূরত্বের পরিমাপ করা আছে। সেই মাপটি কেউ লঙ্ঘন করলেই অডিওর মাধ্যমে পৌঁছোবে সতর্কবার্তা।”

যে সব জায়গায় সাধারণ ভাবে ভিড় বেশি হয়, সেখানে এই যন্ত্রটি কাজে লাগতে পারে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

Continue Reading

পশ্চিম মেদিনীপুর

কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই পশ্চিম মেদিনীপুরে ভেঙে পড়ল তিন তলা পাকা বাড়ি

খেলনার মতো হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ল আস্ত একটি তিন তলা পাকা বাড়ি

মেদিনীপুর: শনিবার সাতসকালে চোখের সামনে খেলনার মতো হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ল আস্ত একটি তিন তলা পাকা বাড়ি। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার দাসপুরে এই ঘটনা ক্যামেরাবন্দি হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

দাসপুরের নিশিন্তপুর গ্রামের বাড়িটে চোখে নিমেষে গুঁড়িয়ে যায় বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। এমনকি ৩০ সেকেন্ডের একটি ভিডিও ক্লিপেও সেই দুর্ঘটনা ধরা পড়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, বাড়িটিতে কেউ বসবাস করতেন না। গুদামঘর হিসাবে ভাড়া দেওয়া ছিল। ফলে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি বলেই জানা গিয়েছে। তবে আচমকা হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ায় বাড়ির ভিতর থেকে কোনো জিনিসপত্রই বের করে আনা সম্ভব হয়নি।

জানা গিয়েছে, এলাকার পুরোনো খালের পাড়ে বাড়িটি তৈরি করেছিলেন নিমাই প্রামাণিক নামে এক স্থানীয় ব্যক্তি। বর্ষার কথা ভেবে গত শুক্রবার গোমড়াই খালের একাংশ সংস্কার করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে, বেশ কয়েক দিনের টানা বর্ষণের ফলে মাটি আলগা হয়ে গিয়েছিল, যে কারণে বাড়িটি আচমকা ভেঙে পড়ে। একই সঙ্গে এটাও জানা গিয়েছে, কয়েক দিন আগে বাড়িটিতে মেরামতের কাজ চলাকালীন ফাটল দেখা দেয়।

Continue Reading

পশ্চিম মেদিনীপুর

ইদের দিন দুঃস্থ আদিবাসী ও মুসলিম বিধবাদের হাতে সাহায্য তুলে দিল ‘সিমপ্যাটিকো’

খবর অনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাস (coronavirus) জনিত পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে দু’ মাসেরও বেশি হয়ে গেল চলছে লকডাউন (lockdown)। কর্মহীন বহু পরিবার অভুক্ত অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে। খড়গপুরের (Kharagpur) এমনই কিছু আর্ত মানুষের সেবায় এগিয়ে এল ‘সিমপ্যাটিকো’ (SIMPATICO) অর্থাৎ ‘সমমনস্ক’।

বেলুড় ও নরেন্দ্রপুর রামকৃষ্ণ মিশনের প্রাক্তনী ও পেশায় শিক্ষক খড়গপুরের সুমন কল্যাণ ধাড়া তাঁর সহকর্মী, সহপাঠী, নরেন্দ্রপুর রামকৃষ্ণ মিশনের প্রাক্তনী ও অধ্যাপক এবং নিকট মানুষদের একত্রিত করে গড়েছেন ‘সিমপ্যাটিকো’।

‘সিমপ্যাটিকো’ পবিত্র ইদের দিন খড়গপুর অঞ্চলের পৃথিমপুর, বহড়াপাট, আশাপুর, কুশমাবাগ, কামারপাড়া ও গোকুলপুর গ্রামের সর্বমোট ২২৫ জন সহায়সম্বলহীন আদিবাসী ও মুসলিম বিধবার হাতে ১২টি করে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী তুলে দিল।

সুমনবাবুর আবেদনে সাড়া দিয়ে মেদিনীপুর হোমিওপ্যাথি মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের (Medinipur Homoeopathy Medical College &Hospital) অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ শ্রীমন্ত সাহা নিজে উপস্থিত থেকে তাঁর মেডিক্যাল টিমের তত্ত্বাবধানে কোভিড ১৯-এর (Covid 19) প্রতিষেধক হোমিওপ্যাথিক ওষুধ ‘আর্সেনিক অ্যালবাম ৩০’ (Arsenic Album 30) বিতরণ করেন। ডাঃ সাহা এই ধরনের উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়ে আরও মানুষকে এই কাজে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

সুমনবাবু এর আগেও লকডাউন চলাকালীন ব্যক্তিগত ভাবে ৫৪টি আদিবাসী পরিবারকে সাহায্য করেছিলেন ও তাঁর পরিচিতদের সহযোগিতায় ১ মে আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবসের দিন ৮৮টি আদিবাসী পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন ১২টি নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী বিতরণ করে।

Continue Reading
Advertisement

কেনাকাটা

কেনাকাটা1 day ago

হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ৩১ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

অনলাইনে খুচরো বিক্রেতা অ্যামাজন ক্রেতার চাহিদার কথা মাথায় রেখে ঢেলে সাজিয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সম্ভার।

DIY DIY
কেনাকাটা6 days ago

সময় কাটছে না? ঘরে বসে এই সমস্ত সামগ্রী দিয়ে করুন ডিআইওয়াই আইটেম

খবর অনলাইন ডেস্ক :  এক ঘেয়ে সময় কাটছে না? ঘরে বসে করতে পারেন ডিআইওয়াই অর্থাৎ ডু ইট ইওরসেলফ। বাড়িতে পড়ে...

smartphone smartphone
কেনাকাটা1 week ago

লকডাউনের মধ্যে ফোন খারাপ? রইল ৫ হাজারের মধ্যে স্মার্টফোনের হদিশ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনা সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে ঘরে বসে যতটা কাজ সারা যায় ততটাই ভালো। তাই মোবাইল ফোন খারাপ...

কেনাকাটা1 week ago

১০টি ওয়াশেবল মাস্ক দেখে নিন

খবর অনলাইন ডেস্ক : বাইরে বেরোচ্ছেন। মাস্ক অবশ্যই ব্যবহার করুন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনাভাইরাসের হাত থেকে বাঁচতে তিন স্তর বিশিষ্ট মাস্ক...

নজরে