Connect with us

রাজ্য

কোভিড-১৯ রোগীর নাম প্রকাশ করলে কার কী লাভ?

একটি মহল থেকে দাবি উঠেছে, জনস্বার্থে কোভিড-১৯ রোগীর নাম প্রকাশ করা হোক।

Published

on

Coronavirus

কলকাতা: কোভিড-১৯ (Covid-19) রোগী অথবা মৃতের নাম প্রকাশ করা কি উচিত?

করোনাভাইরাস (Coronavirus) সংক্রমণ ঠেকাতে নেওয়া হয়েছে একাধিক পদক্ষেপ। তবে নিত্য দিন যে হারে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে, সেই পদক্ষেপগুলি পর্যাপ্ত কি না, তা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। এরই মধ্যে একটি মহল থেকে দাবি উঠেছে, জনস্বার্থে কোভিড-১৯ রোগীর নাম প্রকাশ করা হোক।

Loading videos...

বর্তমান পরিস্থিতি

কোথাও কোথাও ভুক্তভোগীদের দাবি, করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর শুনে প্রতিবেশী অথবা সমাজের কাছ থেকে সহযোগিতার পরিবর্তে অন্য নজরে দেখার মতো পরিস্থিতির শিকার হচ্ছেন তাঁরা। ঘটনাপ্রবাহে কোভিড-১৯ ‘ছোঁয়াচে রোগে’র তকমা আদায় করে নিয়েছে। স্বাভাবিক ভাবেই পাশের বাড়িতে কেউ করোনা আক্রান্ত হয়েছে শুনলেই প্রতিবেশীকে অন্য চোখে দেখার প্রবণতা বাড়ছে। বেমানান ঠেকলেও একাধিক ক্ষেত্রে এই ঘটনার পর্যাপ্ত প্রমাণও রয়েছে।

শুধু কি তাই? সাধারণ জ্বর, সর্দি-কাশি হলেও নিমেষে খবর রটে যাচ্ছে, অমুকের করোনা হয়েছে। উত্তর ২৪ পরগনার বাসিন্দা মধ্যবয়সি সুনন্দা জানা বলেন, “ভাড়া বাড়িতে থাকি। পাশের ঘরে একজনের জ্বর হতেই প্রতিবেশীরা আমাদের রীতিমতো সামাজিক ভাবে বয়কট করার মনোভাব নিয়ে ফেলেন। বাড়ি থেকে বেরোনো মাত্রই হুঁশিয়ারি উড়ে আসতে শুরু করে। এমনকি রাস্তার কল থেকে খাবার জল নেওয়ার ব্যাপারে বিরূপ মন্তব্য উড়ে আসে। তবে কয়েক জন বাড়িতে খাবার-দাবার পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগও নিয়েছিলেন। দু’ সপ্তাহ এ ভাবেই কাটিয়েছি। শেষমেশ নমুনা পরীক্ষায় জানা যায়, ওই ব্যক্তি করোনা নেগেটিভ। তখন থানা, স্থানীয় ক্লাব এবং কাউন্সিলারের কাছে সেই রিপোর্টের জেরক্স জমা দেওয়া হয়”।

অন্য দিকে ওই ব্যক্তির বাড়িওয়ালার বক্তব্য, “পাঁচ জনকে নিয়ে সমাজ। আড়ালে-আবডালে কেউ আলোচনা করলেও মুখোমুখি কোনো আপত্তিজনক কথা সরাসরি আমাদের বলেনি”।

মামলা এবং আদালতের পর্যবেক্ষণ

ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চের (ICMR) নির্দেশিকা অনুযায়ী কোভিড-১৯ রোগীর নাম প্রকাশ করা হয় না। রোগীকে যাতে সামাজিক ভাবে কোনো রকমের ‘অনভিপ্রেত ঘটনা’র মুখোমুখি হতে হয়, সে দিকে তাকিয়েই এই সিদ্ধান্ত।

যদিও বোম্বে হাইকোর্টে (Bombay High Court) জমা পড়া একটি জনস্বার্থ মামলায় দাবি করা হয়েছে, আইসিএমআরের এই নির্দেশ শুধুমাত্র মৃতদের জন্যই কার্যকর। ফলে “জীবনধারণের মৌলিক অধিকার এবং স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের অধিকারের সঙ্গে গোপনীয়তার মৌলিক অধিকারের সংঘাত বাঁধলে আদালতকে দেখতে হবে, এই অধিকারগুলির মধ্যে কোনটি জনসাধারণের স্বার্থকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে”।

এই মামলার শুনানিতেই বোম্বে হাইকোর্ট সরকারের কাছে জানতে চায়, কোভিড-১৯ (Covid-19) আক্রান্ত রোগীর নাম কেন প্রকাশ করা উচিত? উচ্চ আদালত বলে, এই সমস্যাটিতে এ জাতীয় রোগীদের গোপনীয়তা বজার রাখার অধিকারের প্রসঙ্গটি জড়িত রয়েছে।

নাম প্রকাশে লাভ হবে কি?

এ প্রসঙ্গে বিশিষ্ট আইনজীবী অরুণাভ ঘোষ বলেন, “যে কেউ যে কোনো আবেদন নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হতে পারেন। চাইলে কেউ এমনও আবেদন করতে পারেন, তাজমহলটা তাঁর। কিন্তু লকডাউনের কারণে যখন দেশের আদালতগুলিতে পাহাড়প্রমাণ মামলার শুনানি স্থগিত হয়ে রয়েছে, তখন এমন আবেদনের যৌক্তিকতা কী, তা আমার বোধগম্য নয়”।

অরুণাভবাবু বলেন, “হাইকোর্ট ঠিকই বলেছে। যখন কেউ করোনা আক্রান্ত হন, তখন তো তাঁর বাড়ি অথবা এলাকাকে কনটেনমেন্ট জোন হিসাবে ঘোষণা করে প্রশাসন। এটা যেমন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ তেমনই একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নমুনা পরীক্ষা আরও বাড়ানো। তা হলেই হয়তো মারণ ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানো যেতে পারে। কিন্তু করোনায় আক্রান্ত অথবা মৃতের নাম প্রকাশ করলেই সমস্ত সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে, তার কোনো গ্যারান্টি নেই”।

তাঁর কথায়, “কেউ আক্রান্ত হলেন, তাঁর নাম প্রকাশ করতেও প্রশাসনের একাধিক ধাপ অতিক্রম করতে হবে। অযথা সময় নষ্ট হতে পারে। আবার মৃত্যুর পর কারও নাম প্রকাশ করাতেও বেশি কিছু এসে-যায় বলে মনে হয় না। আসল বিষয়টা হল, সংক্রমণ ঠেকানোর প্রয়োজনীয় পদক্ষেপগুলি নিতে হবে। কেউ আক্রান্ত হলে, প্রশাসনের তরফে সংক্রমণের উৎস অথবা আক্রান্তের সংস্পর্শে কারা এসেছিলেন, তাঁদের চিহ্নিত করে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেওয়াটাই সঠিক পরিকল্পনা”।

প্রসঙ্গত, গত ১১ জুলাই বোম্বে হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলাটির শুনানিতে উভয়পক্ষের মন্তব্য শোনার পর উচ্চআদালত দু’ সপ্তাহের জন্য শুনানি স্থগিত করে। এই সময়ের মধ্যে মহারাষ্ট্র সরকারকে জবাব দিতে বলে।

রাজ্য

‘আপনি আমাকে স্বার্থপর বলতেই পারেন কিন্তু…’, বিজেপিতে যোগ দেওয়ার কারণ জানালেন মিঠুন চক্রবর্তী

কীসের স্বার্থে বিজেপিতে যোগ দিলেন মিঠুন, খোলসা করে জানালেন নিজেই!

Published

on

খবর অনলাইন ডেস্ক: রবিবার বিজেপির ব্রিগেড সমাবেশের মঞ্চ থেকেই আনুষ্ঠানিক ভাবে গেরুয়া শিবিরে নাম লেখানে অভিনেতা এবং প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ মিঠুন চক্রবর্তী (Mithun Chakraborty)। একই সঙ্গে বছর ছয়েক আগে তাঁর তৃণমূলে যোগ দেওয়ার বিষয়টিকে ‘খারাপ সিদ্ধান্ত’ হিসেবেই অভিহিত করলেন অভিনেতা।

এ দিন বিজেপিতে যোগ দিয়ে সাংবাদিকদের সামনে মিঠুন বলেন, এর আগে তিনি নিজে থেকে কোনো রাজনৈতিক দলে যুক্ত হননি। তৃণমূল তাঁকে রাজ্যসভায় পাঠিয়েছিল এবং সেটা ছিল তাঁর একটা ‘খারাপ সিদ্ধান্ত’।

Loading videos...

রাজ্যসভার সদস্য হয়েছিলেন মিঠুন। তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁকে সংসদের উচ্চকক্ষে পাঠিয়েছিলেন ২০১৪-র এপ্রিল। তবে বছর দুয়েক পরেই শারীরিক অসুস্থতার কারণে তিনি পদত্যাগ করেন। ২০১৬-র ডিসেম্বর মাসে তিনি রাজ্যসভা থেকে ইস্তফা দেন।

তিনি বলেন, “আমি রাজ্যসভার সাংসদপদ ছেড়ে দিলাম, আমি কারও দিকে আঙুল তুলতে চাই না যে এটা তাঁদের দোষ ছিল। এটা আমার একটা খারাপ সিদ্ধান্ত ছিল। তা যাইহোক, এই বিষয়টাকে এখানেই শেষ করা যাক”।

বিজেপিতে যোগ দেওয়ার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, “আমি গরিবের সঙ্গে থাকব। গরিবকে সাহায্য করব। এবং গরিবদের সম্মান ফিরিয়ে দেব। ছোটোবেলা থেকেই সেই স্বপ্ন দেখতাম। আমার স্বপ্ন সার্থক করতে হলে একটা রাজনৈতিক দলের হাত ধরতেই হতো। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীই (Narendra Modi) সেই যোগ্য ব্যক্তিত্ব”।

৭০ বছর বয়সি অভিনেতা বলেন, “আপনি আমাকে স্বার্থপর বা অন্য যা কিছু বলতে পারেন। কিন্তু আমার স্বার্থপরতার পিছনে মূল কারণ হল আমি গরিব মানুষের সঙ্গে থাকতে চাই, আমি তাঁদের পক্ষে লড়াই করতে চাই”।

তিনি আরও বলেন, বিজেপির সিনিয়র নেতারা পশ্চিমবঙ্গে দলকে দুর্দান্ত সাফল্য এনে দিয়েছেন। তিনি আত্মবিশ্বাসী, ২৭ মার্চ থেকে শুরু হওয়া আট দফার বিধানসভা নির্বাচনে জিতবে বিজেপি।

তাঁর কথায়, “বিজেপি যে সরকার তৈরি করছে, এটা নিশ্চিত। এবং আমরা সবাই মিলে যদি প্রধানমন্ত্রীর ‘সোনার বাংলা’র স্বপ্ন পূরণ করতে পারি তবে আমার তো গর্ব হবেই”।

প্রসঙ্গত, কয়েক সপ্তাহ আগেই মুম্বইয়ে তাঁর বাড়িতে গিয়ে দেখা করেন আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত (Mohan Bhagwat)। তার পর থেকেই জল্পনা ক্রমশ গাঢ় হয়। এ দিন জল্পনাই পরিণত হল বাস্তবে।

আরও পড়তে পারেন: ‘রাবণকে সাহায্য করে রামকে মারতে চাইছেন’? মিঠুন চক্রবর্তীর ১০টি জনপ্রিয় সংলাপ

Continue Reading

জলপাইগুড়ি

‘নরেন্দ্র মোদী আপনার দাম কত টাকা’? জানতে বললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়!

ব্রিগেডে নরেন্দ্র মোদী, শিলিগুড়ি থেকে জবাব চাইলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

Published

on

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ছবি: তৃণমূল কংগ্রেসের সৌজন্যে

খবর অনলাইন ডেস্ক: রবিবার শিলিগুড়ির দার্জিলিং মোড় থেকে শুরু করে ভেনাস মোড় পর্যন্ত পদযাত্রা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ব্রিগেডে তখন সমাবেশে বক্তব্য রাখছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। রান্নার গ্যাস, পেট্রোল, ডিজেলের দামবৃদ্ধির বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে মোদীর জবাব চাইলেন মমতা।

পদযাত্রা শেষে মমতা বলেন, “গ্যাস সিলিন্ডার নিয়ে প্রতীকী মিছিল করেছি। প্রধানমন্ত্রী আপনি তো বাংলায় কোনো কাজ করতে আসেন না। কুৎসা, অপপ্রচার করতে আসেন। রাজনৈতিক কারণে আসতেই পারেন, আমাদের কোনো আপত্তি নেই। আজ আপনি বাংলায় প্রচার করতে এসেছেন, জবাব দিন কেন এলপিজি গ্যাসের দাম ৯০০ টাকা হয়েছে। জবাব আপনাকে দিতেই হবে। পেট্রোল, ডিজেলের দাম কেন বাড়ছে জবাব দিন”।

Loading videos...

আক্রমণ তীব্র করে মমতা বলেন, “বিনা পয়সার চাল ফোটাতে গ্যাসের দাম ৯০০ টাকা। নরেন্দ্র মোদী আপনার দাম কত টাকা? আপনারা জিজ্ঞাসা করুন। বাংলায় এসে বলছে এখানে পরিবর্তন হবে। আরে বাংলায় তৃণমূল থাকবে, দিল্লিতে পরিবর্তন হবে। আপনাকেই চলে যেতে হবে। যে পাঁচটা রাজ্যে ভোট আছে, প্রতিটা জায়গায় হারবেন। লজ্জা নেই, চলে এসে বলছে, বাংলায় মহিলাদের সম্মান দেওয়া হয় না। গ্যাসের দাম বাড়িয়ে দিয়ে বলছে মহিলাদের অপমান করা হচ্ছে। এখানকার মেয়েরা বাইরে রাতের রাস্তায় বেরোতে পারে, বিজেপিশাসিত রাজ্যে যা পারে না। এখানে এসে বড়ো বড়ো কথা বলছেন। বাংলাকে সোনার বাংলা বানাবে বলছে, সমস্ত রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাকে বিক্রি করে দিয়ে এ সব কথা আসে কোথা থেকে”।

তোলাবাজি অভিযোগের পাল্টা দিয়ে তিনি বলেন, “কোভিডের সময় ভয়ে এক দিনের জন্যেও আসেনি। আর এখন ঘনঘন আসছেন। কোভিডের ভ্যাকসিনেও নিজের মুখ লাগিয়ে দিয়েছে। এ রকম হয় । রাস্তা, ঘরবাড়ি, স্টেডিয়াম নিজের নামে করে নিয়েছে। এখন শুধু ভারতের নাম বদলটাই বাকি। তাই বাংলায় বারবার এসে বলে তোলাবাজি। সব থেকে বড়ো তোলাবাজ তো আপনি। দেশে একটাই সিন্ডিকেট চলছে। নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহের সিন্ডিকেট।”।

মোদীর ব্রিগেড সমাবেশকে নিশানা করে মমতা বলেন,  “একগাড়ি কয়লার কত দাম, একটা ট্রেনের কত দাম। লক্ষ লক্ষ কোটি টাকার দূর্নীতি হয়েছে। মানুষের রান্না ঘরে আগুন জ্বলছে। মানুষের সমস্যার কথা বলতে এসেছি। ভোট চাইতে আসিনি। মোদী যখন ফাঁকা ব্রিগেডে বক্তৃতা করেন, তখন আমি রাস্তায় থাকি। রাস্তাই আমাকে রাস্তা দেখা যায়”।

আরও পড়তে পারেন: বিজেপির ব্রিগেড: বাংলা চায় প্রগতিশীল বাংলা, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

Continue Reading

রাজ্য

বিজেপির ব্রিগেড: বাংলা চায় প্রগতিশীল বাংলা, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

রইল গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা এবং বক্তব্যের আপডেট-

Published

on

খবর অনলাইন ডেস্ক: বিধানসভা ভোটের আগে বিজেপির মেগা ইভেন্ট। সভায় দলীয় কর্মী-সমর্থকদের ভিড় দেখে উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন বিজেপি নেতৃত্ব। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উপস্থিতিতে এ দিনের ব্রিগেড সমাবেশ থেকে রাজ্যের পরিবর্তনের জোরালো আওয়াজ তুললেন তাঁরা। রইল গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা এবং বক্তব্যের আপডেট-

বিজেপির ব্রিগেড সমাবেশ মঞ্চে ‘বাঙালিবাবু’ মিঠুন চক্রবর্তী। এ দিনই তিনি বিজেপিতে যোগ দিলেন। তাঁকে উত্তরীয় পরিয়ে দেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এবং পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়।

Loading videos...

গত শনিবার কলকাতায় আসেন মিঠুন। এ দিন ধুতি-পাঞ্জাবি পরিহিত মিঠুনের ব্রিগেডে পৌঁছনোর পথে বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা একাধিক বার তাঁর গাড়ি ঘিরে ধরেন। বিপিন বিহারী গাঙ্গুলি স্ট্রিটে সমর্থকদের বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসে আটকে পড়েছিল তাঁর গাড়ি। নিরাপত্তারক্ষীরা রাস্তা পরিষ্কার করে মিঠুনের গাড়ি রওনা করে দেওয়ার চেষ্টা করেন। মঞ্চে পৌঁছানোর পর তাঁকে স্বাগত জানান কৈলাস।

মিঠুন ছাড়াও বিজেপির ব্রিগেডে রয়েছেন একাধিক অভিনেতা।  যশ দাশগুপ্ত, হিরণ চট্টোপাধ্যায়, রিমঝিম মিত্র, পায়েল সরকার, শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়রা উপস্থিত রয়েছেন সেখানে। রয়েছেন লকেট চট্টোপাধ্যায়, রূপা গঙ্গোপাধ্যায়ও।

কে কী বললেন?

সায়ন্তন বসু:  টিএমসি মানে টাকা মারো কোম্পানি। চাকরির নামে প্রতারণা করেছে তৃণমূল। মোদি দিচ্ছেন টাকা, দিদি নিচ্ছেন কমিশন। কেন্দ্রের বিভিন্ন প্রকল্পের নাম বদলে টাকা লুঠ করছে তৃণমূল।

লকেট চট্টোপাধ্যায়: বাংলায় কোনো শিল্প নেই। সিঙ্গর থেকে টাটাদের তাড়িয়েছিল। কথায় কথায় খেলা হবে, মানুষ কি ফুটবল? উন্নয়ন না করে এখন ভয় দেখাচ্ছে মানুষ। ২ মে ম্যাজিক হবে ইভিএম-এ। কাকে খেলা বলে, বাংলার মানুষ দেখিয়ে দেবেন

অর্জুন সিংহ: ভোটের ফল ঘোষণার আগে পিসি-ভাইপো ব্যাঙ্ককে পালাবেন। রাজ্যে ৯৫ হাজার কলকারখানা বন্ধ। বাংলায় শিল্প বলে কিছু নেই।   স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্প নিয়ে রাজ্যের মানুষকে ভাঁওতা দেওয়া হচ্ছে। এই সরকার ভাতা ও ভাঁওতার সরকার।

শমীক ভট্টাচার্য: তৃণমূল চলে যাবে। কেউ আর আটকাতে পারবে না। আমরা নিজেদের ক্ষমতাতেই কেন্দ্রে পর পর দু’বার সরকার গঠন করেছি। পশ্চিমবঙ্গেও বিজেপি সরকার গঠন করবে। সাত আগে একটা ব্রিগেড হয়েছিল, সেখান থেকে পরিষ্কার ভাবে ভাগিদারির ডাক দেওয়া হয়েছিল। তাদের ট্র্যাডিশন বদলায়নি। বাংলাকে ভাগ করতে চাইছে। তার বিরুদ্ধেই আমাদের লড়াই। কংগ্রেস-সিপিএম এতদিন মালাবদল করেছেন, এখন সঙ্গে ভাইজান।ভাইজানকে উপ-মুখ্যমন্ত্রী তৈরি করার চেষ্টা হচ্ছে।

শুভেন্দু অধিকারী: হয়বরল জোট হয়েছে। বিজেপির বিরুদ্ধে ওরা একজোট হয়েছে। দার্জিলিং সুইজারল্যান্ড হয়নি, কলকাতা লন্ডন হয়নি। কিন্তু তৃণমূল যদি ফিরে আসে, তা হলে পশ্চিমবঙ্গ কাশ্মীর হয়ে যাবে। তাই এই সরকারকে তুলে ফেলতে হবে। আমরা প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি থেকে এখানে এসেছি, আপনাদের সমূলে তুলে ফেলে দিতে। তোলাবাজ ভাইপো শুনে রাখুন। বাংলা মানুষ জেনে রাখুন ওরা ফিরলে মানুষের কিডনি পাচার করবে। দিল্লি এবং কলকাতায় একই সরকার চাই। নন্দীগ্রামে আমি মাননীয়াকে হারাবোই।

মিঠুন চক্রবর্তী: বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের সব থেকে নেতা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এখানে আসছেন। আজকের দিনটা আমার কাছে স্বপ্নের মতো। কানাগলিতে জন্মে মোদির সঙ্গে এক মঞ্চে। এটা স্বপ্ন ছাড়া আর কি? আমি যা বলি, তা করে দেখাই। আমি জলঢোড়াও নয়, বেলোবোড়াও নই। আমি একটা কোবরা। আমি জাত গোখরো। এক ছোবলে ছবি। এ বার কিন্তু সেটাই হবে। 

মুকুল রায়: মাঠটা কানায় কানায় পরিপূর্ণ হয়ে গিয়েছে। আমাদের প্রিয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিমানের আওয়াজ পাওয়া যাচ্ছে। এত ক্ষণ ধৈর্য্য ধরেছেন, আর একটু ধরুন। আজকের এই সমাবেশের আওয়াজ পৌঁছে যাক নবান্নে। পশ্চিমবঙ্গকে বাঁচানোর যোগ্য ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী মোদী।

দিলীপ ঘোষ: আগামী নির্বাচনে ২০০-র বেশি আসনে জিতে সরকার গড়বে বিজেপি। এই বার, ২০০ পার।

নরেন্দ্র মোদী: কলকাতা এবং বাংলা পুরো ভারতের প্রেরণা। বাংলার মাটি আমাদের সংস্কার তুলে ধরেছে। স্বাধীনতা সংগ্রামে বাংলার মাটি প্রেরণা যুগিয়েছে। বাংলার মহাপুরুষরা এক ভারত, শ্রেষ্ঠ ভারত ভাবনাকে মজবুত করেছিলেন।

বাংলার মানুষ মমতার উপর ভরসা করেছিলেন। দিদি আর তাঁর সাঙ্গপাঙ্গরা সেই ভরসা ভেঙে চুরমার করে দিয়েছেন। বাংলাকে অপমান করেছেন। কিন্তু বাংলার মানুষ পরিবর্তনের আশা ছাড়েনি। বাংলা চায় উন্নতি, সম্প্রতি, শান্তি। বাংলা চায় প্রগতিশীল বাংলা।

আমরা কাজ, সমর্পণ, পরিশ্রমের মাধ্যমে এখানে বিজেপির সরকার গড়ব। আসল পরিবর্তনই আমাদের মন্ত্র। আসল পরিবর্তন মানে, এমন একটা বাংলা যেখানে যুবদের হাতে কাজ থাকবে, শিক্ষার অভাব হবে না। যেখানে ব্যবসা-বাণিজ্য উপচে পড়বে। বিনিয়োগ আসবে।

উত্তর হোক বা দক্ষিণ বঙ্গ, পশ্চিম অংশ হোক বা জঙ্গলমহল, সব জায়গাতেই সমান ভাবে উন্নয়ন হবে। যেখানে সব কা সাথ, সব কা বিকাশ, সব কা বিশ্বাসই রাজ্য পরিচালনার মন্ত্র হবে। বাংলার ক্ষমতা, সামর্থ্যকে দমাতে পারেনি স্বাধীনতার আগে।

বাংলার সরকার পরিবর্তনের জন্য নয়, বাংলার উন্নয়নের জন্য এবং বাংলাকে শীর্ষে নিয়ে যাওয়ার জন্য ভোট দিন। বাংলার সমস্ত শিল্পের উপযুক্ত পরিবেশ রয়েছে। সেই কাজকে সফল করে সামনে এগিয়ে যেতে হবে। যে কোনো মূল্যে এগিয়ে যেতে হবে। কলকাতার যেমন ঐতিহাসিক ঐতিহ্য রয়েছে, তাকে সুরক্ষিত রাখতে হবে। ২০৪৭ সালে স্বাধীনতার ১০০তম পূর্তিতে বাংলা আবার ফের দেশের মধ্যে শীর্ষস্থান দখল করবে।

গোটা বাংলা এক স্বরে বলছে, আর নয় অন্যায়। তৃণমূল সরকারের আয়ু কমে আসছে। আজ গোটা দেশ শুনুক, দুর্নীতি আর নয়, তোলাবাজি আর নয়, কাটমানি আর নয়, সিন্ডিকেট আর নয়, বেকারত্ব আর নয়, হিংসা আর নয়, আতঙ্ক আর নয়, তুষ্টিকরণ আর নয়, অন্যায় আর নয়।

এত জোরে বলুন যাতে আপনাদের রাগ, ক্ষোভ দেশের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে।…শুনলেন তো দিদি! এটা বাংলার মানুষের আওয়াজ। ১০ বছর পর মানুষ জানতে চাইছেন, দিদি হিসেবে আপনাকে বেছে নিয়েছিলেন সকলে। কিন্তু আপনি নিজেকে শুধু ভাইপোর পিসি হিসেবেই সীমাবদ্ধ করে রেখেছিলেন।

আরও পড়তে পারেন: ‘নরেন্দ্র মোদী আপনার দাম কত টাকা’? জানতে বললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়!.

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
দেশ1 hour ago

জরুরি অবস্থার সময় এখনকার চেয়ে ভালো ছিল, নরেন্দ্র মোদীকে নিশানা শিবসেনার

রাজ্য2 hours ago

‘আপনি আমাকে স্বার্থপর বলতেই পারেন কিন্তু…’, বিজেপিতে যোগ দেওয়ার কারণ জানালেন মিঠুন চক্রবর্তী

শিল্প-বাণিজ্য3 hours ago

৩১ মার্চের আগে সেরে ফেলতে হবে এই ৫টি কাজ, নইলে বড়োসড়ো জরিমানা

বিনোদন3 hours ago

‘রাবণকে সাহায্য করে রামকে মারতে চাইছেন’? মিঠুন চক্রবর্তীর ১০টি জনপ্রিয় সংলাপ

দেশ4 hours ago

ব্রিগেডে শুভেন্দু অধিকারীর মন্তব্যে বিতর্ক গড়াল কলকাতা থেকে কাশ্মীর, তিরস্কার ওমর আবদুল্লার

জলপাইগুড়ি6 hours ago

‘নরেন্দ্র মোদী আপনার দাম কত টাকা’? জানতে বললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়!

প্রবন্ধ6 hours ago

গুরু শিষ্য সংবাদ

রাজ্য9 hours ago

বিজেপির ব্রিগেড: বাংলা চায় প্রগতিশীল বাংলা, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

রাজ্য2 days ago

পূর্ণাঙ্গ প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করল তৃণমূল

গাড়ি ও বাইক3 days ago

আরটিও অফিসে আর যেতে হবে না! চালু হল আধার ভিত্তিক যোগাযোগহীন পরিষেবা

রাজ্য2 days ago

বিধান পরিষদ গঠন করে প্রবীণদের স্থান দেওয়া হবে, প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করে বললেন মমতা

রাজ্য1 day ago

কেন তড়িঘড়ি প্রার্থী তালিকা প্রকাশ তৃণমূলের, সরব পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির সহ-পর্যবেক্ষক অমিত মালব্য

রাজ্য1 day ago

লড়াই মুখোমুখি! নন্দীগ্রামে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে দাঁড়াচ্ছেন শুভেন্দু অধিকারী

দেশ3 days ago

দেশের পরিস্থিতি একটু ভালো হলেও পঞ্জাবে মারাত্মক ভাবে বাড়ল দৈনিক সংক্রমণ

রাজ্য1 day ago

অস্বস্তি বাড়াচ্ছে রাজ্যের করোনা সংক্রমণ, কলকাতাতেও বাড়ল আক্রান্তের সংখ্যা

রাজ্য2 days ago

বাম-কংগ্রেস-আইএসএফ জোটের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা

কেনাকাটা

কেনাকাটা4 weeks ago

সরস্বতী পুজোর পোশাক, ছোটোদের জন্য কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সরস্বতী পুজোয় প্রায় সব ছোটো ছেলেমেয়েই হলুদ লাল ও অন্যান্য রঙের শাড়ি, পাঞ্জাবিতে সেজে ওঠে। তাই ছোটোদের জন্য...

কেনাকাটা4 weeks ago

সরস্বতী পুজো স্পেশাল হলুদ শাড়ির নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই সরস্বতী পুজো। এই দিন বয়স নির্বিশেষে সবাই হলুদ রঙের পোশাকের প্রতি বেশি আকর্ষিত হয়। তাই হলুদ রঙের...

কেনাকাটা1 month ago

বাসন্তী রঙের পোশাক খুঁজছেন?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই আসছে সরস্বতী পুজো। সেই দিন হলুদ বা বাসন্তী রঙের পোশাক পরার একটা চল রয়েছে অনেকের মধ্যেই। ওই...

কেনাকাটা1 month ago

ঘরদোরের মেকওভার করতে চান? এগুলি খুবই উপযুক্ত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘরদোর সব একঘেয়ে লাগছে? মেকওভার করুন সাধ্যের মধ্যে। নাগালের মধ্যে থাকা কয়েকটি আইটেম রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার...

কেনাকাটা1 month ago

সিলিকন প্রোডাক্ট রোজের ব্যবহারের জন্য খুবই সুবিধেজনক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী এখন সিলিকনের। এগুলির ব্যবহার যেমন সুবিধের তেমনই পরিষ্কার করাও সহজ। তেমনই কয়েকটি কাজের সামগ্রীর খোঁজ...

কেনাকাটা2 months ago

আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজ রইল আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার সময় যে দাম ছিল...

কেনাকাটা2 months ago

রান্নাঘরের এই সামগ্রীগুলি কি আপনার সংগ্রহে আছে?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরে বাসনপত্রের এমন অনেক সুবিধেজনক কালেকশন আছে যেগুলি থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যেতে পারে। এমনকি দেখতেও সুন্দর।...

কেনাকাটা2 months ago

৫০% পর্যন্ত ছাড় রয়েছে এই প্যান্ট্রি আইটেমগুলিতে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলির মধ্যে বেশ কিছু এখন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫০% বা তার বেশি ছাড়ে। তার মধ্যে...

কেনাকাটা2 months ago

ঘরের জন্য কয়েকটি খুবই প্রয়োজনীয় সামগ্রী

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ও সুবিধাজনক বেশ কয়েকটি সামগ্রীর খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদনটি লেখার সময় যে দাম ছিল তা-ই...

কেনাকাটা2 months ago

৯৯ টাকার মধ্যে ব্র্যান্ডেড মেকআপের সামগ্রী

খবর অনলাইন ডেস্ক : ব্র্যান্ডেড সামগ্রী যদি নাগালের মধ্যে এসে যায় তা হলে তো কোনো কথাই নেই। তেমনই বেশ কিছু...

নজরে