দু’-চার দিনের মধ্যেই সব স্পষ্ট হয়ে যাবে, আচমকা সাংসদপদ ছাড়ার পর জানালেন অর্পিতা ঘোষ

0
অর্পিতা ঘোষ। প্রতীকী ছবি

কলকাতা: আচমকা রাজ্যসভার সাংসদপদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী অর্পিতা ঘোষ (Arpita Ghosh)। জল্পনা ছড়ায়, দলের নির্দেশেই তিনি ইস্তফা দিয়েছেন। তবে সেই জল্পনা উড়িয়ে দিয়ে অর্পিতা বলেন, দল তাঁকে এমন কোনো নির্দেশ দেয়নি।

২০১৪ সালে বালুরঘাট থেকে জিতে সাংসদ হয়েছিলেন অর্পিতা। ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটে বালুরঘাট লোকসভা আসন থেকে লড়াই করেছিলেন তিনি। কিন্তু পরাজিত হন। ২০২০ সালে অর্পিতাকে রাজ্যসভার সাংসদ করেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। ফলে তাঁর রাজ্যসভার সাংসদপদের মেয়াদ এখনও প্রায় সাড়ে চার বছর বাকি। তার আগেই কেন তিনি ইস্তফা দিলেন?

রাজনৈতিক মহলের অনুমান, বাংলার পর সর্বভারতীয় রাজনীতিতে নিজেদের গুরুত্ব বাড়াতে চাইছে তৃণমূল। তাই অর্পিতার ছেড়ে যাওয়া আসনে সর্বভারতীয় স্তরের কোনো নেতাকে রাজ্যসভায় পাঠানো হতে পারে বলেই জল্পনা। বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের মন্তব্যেও উঠে আসে সেই যুক্তি।

অর্পিতার ইস্তফার পর পরই তৃণমূল সূত্রে জানা যায়, দলের তরফে ইস্তফা দেওয়ার কোনও নির্দেশ দেওয়া হয়নি তাঁকে। ব্যক্তিগত কারণেই ইস্তফা দিয়েছেন তিনি। আবার অন্য একটি একটি সূত্র বলছে, সংগঠনের কাজে আরও বেশি সময় দেওয়ার কারণেই রাজ্যসভার সাংসদপদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন অর্পিতা ঘোষ। দলের ওই অংশের মতে, অর্পিতাকে আসলে তৃণমূলের ‘পুবে তাকাও’ নীতিতে কাজে লাগানো হবে। তাই সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার পর অর্পিতাকে আরও বেশি করে কাজে লাগানো হবে সংগঠনের কাজে।

আরেকটি সূত্রের মতে, অর্পিতাকে এ বার উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতে আরও বেশি করে সাংগঠনিক কাজে লাগানো হবে। এ বারের বিধানসভা ভোটে ওই জেলাগুলিতে তৃণমূলকে কিছুটা হতাশই হতে হয়েছে। উল্টো দিকে, অধিকাংশ আসনে সাফল্যের পর উত্তরবঙ্গ নিয়ে একাধিক পদক্ষেপ নিচ্ছে বিজেপি। সেখানে অর্পিতার মতো নেত্রীর সাংগঠনিক দায়িত্ব বাড়াতে পারে দল।

তেমনই সব ইঙ্গিতকেই আরও জোরদার করলেন অর্পিতা। নিজের সিদ্ধান্তে দলের কোনো নির্দেশ নেই জানিয়ে তিনি বলেন, “পার্টি আমার কাজে খুশি কি না, তা দু’-চার দিনের মধ্যেই জানতে পারবেন। পার্টি একটা পদ দেয়, একটা দায়িত্ব দেয়। সেই দায়িত্ব দেখেই বুঝতে পারবেন পার্টি খুশি কি না। দরকার হলে শীর্ষ নেতৃত্বকে প্রশ্ন করে দেখুন”।

উল্লেখ্য, সাংসদপদে ইস্তফা নিয়ে দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠিও দিয়েছেন অর্পিতা। অন্য কোনো কারণ নয়, অর্পিতা চিঠিতে জানিয়েছেন দলের কাজ করতে চান বলেই ইস্তফা দিয়েছেন।

আরও পড়ুন: সাংসদপদ থেকে ইস্তফা দিলেন অর্পিতা ঘোষ, চিঠি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন