arrested husband
ধৃত স্বামী। নিজস্ব চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা, জলপাইগুড়ি: আত্মীয়স্বজন মিলে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগে ফালাকাটা থানার পুলিশ এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করল। পুলিশ জানায়, ধৃত ব্যাক্তির নাম মোহন মণ্ডল। ফালাকাটা থানার অধীন ভুটনির ঘাটের বাসিন্দা বাসুদেব দাসের স্ত্রী ববিতা দাস থানায় অভিযোগ করেন যে তাঁর মেয়ে চন্দনা দাসকে (২২) মানসিক এবং শারীরীক অত্যাচার করে তার স্বামী শিবনাথপুরের বাসিন্দা মোহন মণ্ডল এবং আত্মীয়স্বজনেরা মিলে মেরে ফেলেছে।

মারা যাওয়ার পর তার দেহ পাওয়া যাচ্ছিল না। ইতিমধ্যে চন্দনার শ্বশুরবাড়ির সবাই আত্মগোপন করে। পুলিশ অভিযোগ পাওয়ার পর তদন্ত করে চন্দনা দাসের দেহর খোঁজ পায়। দেখা যায় তার দেহ তাদের বাড়ির কাছেই পুঁতে রাখা হয়েছে। ফালাকাটার বিডিওর উপস্থিতিতে দেহটি তোলা হয় এবং ময়না তদন্তের জন্য উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। ময়না তদন্ত রিপোর্টে জানা যায় যে চন্দনাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছিল এবং তার পেটে সাত মাসের একটি বাচ্চা ছিল।

আরও পড়ুন নাবালককে অপরহণের পর বিয়ে! জেলে ঠাঁই পাঁচ মাসের কন্যাসন্তান কোলে ২২ বছরের যুবতীর

গোপন সূত্রে খবর পেয়ে শুক্রবার তার স্বামী মোহন মণ্ডলকে ধরা হয়। তাকে শনিবার আলিপুরদুয়ার আদালতে পাঠানো হবে। ফালাকাটা থানার আইসি সৌম্যজিত রায় বলেন, “জেরায় মোহন মণ্ডল তার দোষ স্বীকার করেছে। আদালতের কাছে তাকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়ার জন্য আবেদন করা হবে। অন্য অভিযুক্তদের এখনও গ্রেফতার করা বাকি আছে। কী ভাবে চন্দনাকে সে মেরেছে মোহন মণ্ডলকে দিয়ে তার পুনর্নির্মাণ করা হবে।”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here