Connect with us

রাজ্য

মুখ্যমন্ত্রী কবে ছাড়া পাবেন, আজ বৈঠকের পর সিদ্ধান্ত

মমতা এখন শারীরিক ভাবে স্থিতিশীল হলেও তাঁর বাঁ পায়ের গোড়ালির আঘাত কিছুটা চিন্তায় রাখছে চিকিৎসকদের।

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ১৩ তারিখ, অর্থাৎ শনিবার থেকেই প্রচারের কাজে নেমে পড়তে চান। কিন্তু তিনি কবে ছাড়া পাবেন, সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন এসএসকেএম হাসপাতালের চিকিৎসকরা। শুক্রবার বেলা ১১টায় বৈঠকের বসবেন মেডিক্যাল বোর্ডের সদস্যরা। তার পরেই মমতাকে ছাড়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত।

মমতা এখন শারীরিক ভাবে স্থিতিশীল হলেও তাঁর বাঁ পায়ের গোড়ালির আঘাত কিছুটা চিন্তায় রাখছে চিকিৎসকদের। তাঁর শারীরিক পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন চিকিৎসকরা। হাসপাতাল সূত্রে খবর, মমতাকে যে সব ওষুধ দেওয়া হয়েছে তা কাজ করছে আর সে কারণেই চিকিৎসকরা আপাতত সন্তুষ্ট। তবে গোড়ালিতে ব্যাথা থাকায় ফের এক বার মমতার সিটি স্ক্যান এবং এক্স রে করা হয়েছে।

Loading videos...

মুখ্যমন্ত্রী ভরতি রয়েছেন এসএসকেএম হাসপাতালের উডবার্ন ওয়ার্ডের সাড়ে ১২ নম্বর ওয়ার্ডে। তাঁর জন্য গঠিত মেডিক্যাল বোর্ডে এসএসকেএম-এর অধ্যক্ষ মণিময় বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াও ৩ বিভাগীয় প্রধান এবং আরও ৫ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক রয়েছেন। রয়েছেন অর্থোপেডিক, নিউরো সার্জারি, নিউরো মেডিসিন, জেনারেল সার্জারি, কার্ডিয়োলজি, এন্ডোক্রিনোলজি, জেনারেল মেডিসিন এবং অ্যানাস্থেসিয়া বিভাগের বিশেষজ্ঞরা।

বুধবার এসএসকেএম-এ আনার পর, ওই দিন রাতেই তাঁকে বাঙুর ইনস্টিটিউড অব নিউরোসায়েন্সে নিয়ে গিয়ে এমআরআই করা হয়। হাড়ে চিড় ধরা পড়ায় পায়ে প্লাস্টার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার হাসপাতাল থেকেই একটি ভিডিও বার্তা দেন মমতা। তাতে পায়ে এবং লিগামেন্টে চোটের কথা উল্লেখ করেন তিনি।

তবে, যন্ত্রণা কিছুটা কম বলেই হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে। পায়ের আঘাতে ক্ষতি কতটা হয়েছে তা জানতে ফের বাঙুরে এমআরআই-সহ একাধিক ইমেজিং পরীক্ষা করার কথা চিকিৎসকদের। এ দিকে মুখ্যমন্ত্রী নিজে চান তাঁর সূচিতে একটুও পরিবর্তন না করে তিনি যেন শনিবার থেকেই প্রচারের কাজে নেমে পড়তে পারেন। প্রয়োজনে হুইল চেয়ারে বসে প্রচার করবেন বলেও জানান মমতা। সেটা তিনি করতে পারবেন কি না, শুক্রবার চিকিৎসকরা সিদ্ধান্ত নেবেন।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্র এখন ‘নির্বাচনী স্বৈরতন্ত্র’-এর দেশ, বলছে সুইডিশ রিপোর্ট

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

রাজ্য

দিব্যেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ জেলা তৃণমূলের

কী ব্যবস্থা নিতে পারে তৃণমূল?

Published

on

খবর অনলাইন ডেস্ক: বিধানসভা ভোটের আগেই আনুষ্ঠানিক ভাবে তৃণমূল ছেড়েছিলেন নন্দীগ্রামের বিজেপি বিধায়ক এবং বিধানসভার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari)। তার পর ছোটো ভাই সৌম্যেন্দু এবং বাবা শিশির অধিকারীও সঙ্গী হয়েছেন শুভেন্দুর । তবে তাঁর সেজভাই, তমলুকের সাংসদ দিব্যেন্দু অধিকারী (Dibyendu Adhikari) এখনও বিজেপিতে যোগ দেননি। এ বার তাঁর বিরুদ্ধেই কঠোর ব্যবস্থা নিতে রাজ্য কমিটিকে সুপারিশ করলেন দলের জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব।

জেলা তৃণমূল নেতৃত্বের অভিযোগ, বিধানসভা ভোটের সময় প্রায় ‘নিষ্ক্রিয়’ ছিলেন তমলুকের তৃণমূল সাংসদ দিব্যেন্দু অধিকারী। ভোট মিটতেই দিন তিনেক আগে তাঁর ব্যাপারে রাজ্য তৃণমূল নেতৃত্বকে রিপোর্ট দিয়েছিল দলের জেলা কমিটি। সোমবার শুভেন্দুকে পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা বিরোধী দলনেতা ঘোষণা করে বিজেপি। তার পরেই দিব্যেন্দুর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে রাজ্য কমিটিকে সুপারিশ করল পূর্ব মেদিনীপুর জেলা কমিটি।

Loading videos...

শুভেন্দুর দলবদল পর্ব থেকেই তৃণমূলের সঙ্গে দিব্য়েন্দুরও দূরত্ব ধরা পড়ে। শুভেন্দুকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের সংঘাত কার্যত ‘অধিকারী পরিবারে’র বিরুদ্ধে পর্যবসিত হয়। যদিও পুরো ঘটনা নিয়ে দিব্যেন্দুকে সে ভাবে প্রকাশ্যে মুখ খুলতে দেখা যায়নি। কিন্তু বিধানসভা নির্বাচনে দলের হয়ে কোনো প্রচারেও দেখা যায়নি তাঁকে। স্বাভাবিক ভাবেই তাঁর এই নিষ্ক্রিয়তা অনেক প্রশ্নেরই জন্ম দিয়েছে। তার পরেই জেলা নেতৃত্বের এই পদক্ষেপ। যা নিয়ে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা তৃণমূলের সভাপতি সৌমেন মহাপাত্র আনন্দবাজার অনলাইনের কাছে বলেছেন, “আমরা আমাদের সুপারিশ রাজ্য নেতৃত্বের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছি। এ বার তাঁরা যা সিদ্ধান্ত নেবেন, তাই চূড়ান্ত হবে”।

একেবারেই কি ‘নিষ্ক্রিয়’ ছিলেন দিব্যেন্দু?

দলের কাজে দিব্যেন্দু যদি নিষ্ক্রিয় থেকেও থাকেন, তাঁর বেশ কিছু পদক্ষেপে আবার সক্রিয়তার নমুনাও মিলেছে। বিধানসভা ভোট চলাকালীন করোনা মোকাবিলায় হস্তক্ষেপ চেয়ে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়কে চিঠি লিখেছিলেন দিব্যেন্দু। এমনিতে রাজ্যপালের কাছে এ ধরনের আর্জি জানানোয় কোনো বাধা নেই ঠিকই, কিন্তু দলে থেকেও দলনেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রীর বদলে রাজ্যপালের কাছে এই আর্জি জানানোয় জল্পনা ছড়িয়েছিল।

আবার গত এপ্রিলের শুরুতেই নন্দীগ্রামের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিঘ্নিত হতে পারে, এই আশঙ্কা করে পূর্ব মেদিনীপুরের জেলাশাসককে চিঠি দিয়েছিলেন দিব্যেন্দু। জেলাশাসককে উপযুক্ত সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন জানিয়েছিলেন তিনি।

কী ব্যবস্থা নিতে পারে তৃণমূল?

তমলুকের তৃণমূল সাংসদ দিব্যেন্দু সাংসদপদে মেয়াদ শেষ হতে এখনও তিন বছর বাকি। এমন অবস্থায় তাঁকে যদি দলের তরফে বহিষ্কার করা হয়, তা হলে বাকি সময় তিনি সহজেই সাংসদ থেকে যেতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে সাংসদপদ ধরে রাখলেও তিনি তৃণমূলের কোনো হুইপ মানতে বাধ্য থাকবেন না। স্বাভাবিক ভাবে তাঁর বিরুদ্ধে কোনো কঠোর ব্যবস্থা নিতে হলে আগুপিছু ভাবতে হবে তৃণমূল নেতৃত্বকে।

অন্যদিকে, ২০১৯-এর লোকসভা ভোটে ২২টি আসনে জিতলেও তৃণমূলের সাংসদ সংখ্যা এখন অঙ্কের হিসেবে ২০-তে নেমে এসেছে। বর্ধমান পূর্বের সাংসদ সুনীল মণ্ডল আনুষ্ঠানিক ভাবে নাম লিখিয়েছেন গেরুয়া শিবিরে। আবার কাঁথির সাংসদ শিশির অধিকারীও বিজেপির ভোটপ্রচারের সভায় অংশ নিয়েছিলেন। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে তৃণমূলের সাংসদ তালিকা থেকে দিব্য়েন্দুর নাম কেটে দিলে, সংখ্যাটা ২০-এর নীচে নেমে যাবে। পাশাপাশি ২০১৯-এ ১৮ আসনে জেতা বিজেপি সাংসদ সংখ্যার দিক থেকে টপকে যেতে পারে তৃণমূলকে!

আরও পড়তে পারেন: বিধায়ক পদ ছাড়ছেন রাজ্যের দুই বিজেপি নেতা

Continue Reading

রাজ্য

বিধায়ক পদ ছাড়ছেন রাজ্যের দুই বিজেপি নেতা

সাংসদই থাকবেন দু’জন।

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক: শেষমেশ সাংসদ পদেই বহাল থাকবেন নিশীথ প্রামাণিক এবং জগন্নাথ সরকার। এর ফলে তাঁরা ছেড়ে দেবেন যথাক্রমে দিনহাটা ও শান্তিপুরের বিধায়ক পদ। এমনই খবর আনন্দবাজার ডিজিটাল সূত্রে।

নিশীথ এবং জগন্নাথকে সাংসদ পদেই বহাল রাখতে চেয়েছিল বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। যদিও রাজ্য নেতৃত্ব চেয়েছিল দু’জনকে বিধায়ক হিসেবেই ধরে রাখতে। কিন্তু কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সিদ্ধান্তই মেনে নিয়েছে রাজ্য নেতৃত্ব।

Loading videos...

গত শনিবার দিল্লিতে রাজ্য নেতাদের সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনার পরেই সিদ্ধান্ত পাকা হয়েছে। সোমবার কলকাতায় দলের বিধায়কদের নিয়ে বৈঠকে এই বিষয়ে বিশেষ আলোচনা না হলেও দিনহাটা ও শান্তিপুরে উপনির্বাচনের জন্য ভিতরে ভিতরে প্রস্তুতি শুরু করে দেওয়ার চিন্তা ভাবনা রয়েছে বিজেপির।

এ বারের নির্বাচনে নির্বাচনে লোকসভার ৪ সাংসদকে প্রার্থী করেছিল বিজেপি। ফলাফলে দেখা গিয়েছে, তাদের মধ্যে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় ও হুগলির সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় পরাজিত হয়েছেন। কিন্তু মাত্র ৫৯ ভোটের ব্যবধানে হলেও তৃণমূলের উদয়ন গুহকে হারিয়ে দিনহাটা থেকে বিধায়ক হয়েছেন নিশীথ। আবার শান্তিপুরে রানাঘাটের সাংসদ জগন্নাথ ১৫,৮৭৮ ভোটে জয়ী হয়েছেন।

বিজেপির ৭৭ জন বিধায়কের সিংহভাগই বিধানসভায় এসে শপথ নিয়েছেন। কিন্তু সেই তালিকায় এখনও পর্যন্ত নেই নিশীথ ও জগন্নাথ। তা নিয়ে জল্পনা চললেও দু’জনেই সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, দল‌ যা সিদ্ধান্ত নেবে তাই মেনে নেবেন তাঁরা।

নিশীথ এবং জগন্নাথ বিধায়ক পদ ছেড়ে দিলে দিনহাটা ও শান্তিপুরে উপনির্বাচন হবে। তবে রাজ্যে আরও কমপক্ষে দু’টি আসনে উপনির্বাচন হবেই। খড়দহ আসনে জয়ী তৃণমূলের কা‌জল সিংহের মৃত্যু হয়েছে ফল ঘোষণার আগেই। সেখানে উপনির্বাচন করতে হবে। অন্যদিকে নন্দীগ্রামে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হেরে যাওয়ায় তাঁকেও কোনো একটি কেন্দ্র থেকে জিতে আসতে হবে।

আরও পড়তে পারেন আক্রান্ত কর্মীদের দেখতে গিয়ে হামলার শিকার ত্রিপুরার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার, অভিযুক্ত বিজেপি

Continue Reading

রাজ্য

Vaccination Drive: এ রাজ্যে কমবয়সিদের টিকাকরণ শুরু নিয়ে কী বললেন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়?

দ্বিতীয় ডোজকেই অগ্রাধিকার দিচ্ছে রাজ্য আপাতত।

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক: কেন্দ্র তো ঘটা করে ১ মে থেকে কমবয়সিদের টিকাকরণ শুরু করার কথা ঘোষণা করে দিয়েছে। কিন্তু মাত্র গুটিকতক রাজ্য ছাড়া এই টিকাকরণ শুরুই করতে পারেনি কেউ। যেখানে শুরু হয়েছে, সেখানেও টিকার অভাবে খুব ধীরগতিতে চলছে টিকাকরণ প্রক্রিয়া।

পশ্চিমবঙ্গে তো শুরুই হয়নি। এর ফলে কমবয়সিরা অধৈর্য হয়ে পড়ছেন। এই প্রসঙ্গেই মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় একটি তাৎপর্যপূর্ণ মন্তব্য করেছেন। তাঁর কথায়, কেন্দ্র পর্যাপ্ত টিকা সরবরাহ করলে এবং যে টিকার বরাত দেওয়া হয়েছে, তা আসতে শুরু করলেই চালু হবে টিকাকরণ।

Loading videos...

সুতরাং অন্তত সপ্তাহ দুয়েক রাজ্যে কমবয়সিদের টিকাকরণ যে শুরু হবে না, সেটা মুখ্যসচিবের কথাতেই পরিষ্কার। তবে টিকাকরণ নিয়ে রাজ্যবাসীকে অযথা আতঙ্কিত হতেও বারণ করেছেন আলাপনবাবু। অযথা হাসপাতালে টিকার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে ভিড় করার দরকার নেই বলে জানিয়েছেন তিনি।

টিকার আকালের মধ্যে আপাতত দ্বিতীয় ডোজই যে রাজ্যের অগ্রাধিকার সেটা বুঝিয়ে দিয়েছেন আলাপনবাবু। তিনি বলেন, ‘‘বেসরকারি হাসপাতাল থেকে যাঁরা প্রথম ডোজ পেয়েছিলেন, তাঁরাও দ্বিতীয় ডোজ পাবেন এবং সঠিক সময়েই যাতে পান, তা নিশ্চিত করতে একটি নির্ঘন্ট তৈরি করছে সরকার।’’

প্রথম ডোজ কবে দেওয়া হয়েছিল, তার ভিত্তিতেই দ্বিতীয় ডোজের দিনক্ষণ ঠিক করা হচ্ছে, জানান মুখ্যসচিব। মুখ্যমন্ত্রীও সোমবার বলেন, বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে রাজ্য সরকারের তরফে ১ কোটি টিকা দেওয়া হবে।

আরও পড়তে পারেন Covid Crisis: সংক্রমণের ধার কমাতে একটি বিশেষ ওষুধে ছাড়পত্র দিল গোয়া, খেতে হবে সবাইকে

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
দেশ5 mins ago

Telangana Lockdown: ১২ মে থেকে ১০ দিনের শর্তসাপেক্ষ লকডাউন জারি হচ্ছে তেলঙ্গানায়

প্রযুক্তি30 mins ago

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কোভিড অ্যাপ, সহজে জানা যাবে যাবতীয় তথ্য

রাজ্য1 hour ago

দিব্যেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ জেলা তৃণমূলের

বিজ্ঞান2 hours ago

রক্তের গ্রুপের উপর কি কোভিড আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে, গবেষণায় জানাল সিএসআইআর

বিদেশ3 hours ago

স্বাস্থ্যকর্মীর ভুলে ইতালির এক মহিলাকে কোভিড টিকার ৬টি ডোজ, তার পর কী হল

রাজ্য4 hours ago

বিধায়ক পদ ছাড়ছেন রাজ্যের দুই বিজেপি নেতা

দেশ5 hours ago

আক্রান্ত কর্মীদের দেখতে গিয়ে হামলার শিকার ত্রিপুরার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার, অভিযুক্ত বিজেপি

দেশ5 hours ago

Corona Update: দৈনিক সংক্রমণকে ছাপিয়ে গেল সুস্থতা, দু’মাস ধরে টানা বৃদ্ধির পর অবশেষে কমল সক্রিয় রোগী

দেশ3 days ago

Covid Crisis: জলে গুলে খেতে হবে, করোনারোধী ওষুধে ছাড়পত্র দিল ডিজিসিআই

বিজ্ঞান2 days ago

কোভিডের ভাইরাস বায়ুবাহিত, ৬ ফুট পর্যন্ত ছড়াতে পারে, দাবি শীর্ষ মার্কিন সংস্থার

রাজ্য2 days ago

Bengal Corona Update: নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় একই, রাজ্যে বাড়ল সুস্থতা

রাজ্য3 days ago

Bengal Corona Update: সংক্রমণের হার ফের ৩০ শতাংশ পার, বাড়ল মৃতের সংখ্যাও, তবে কলকাতা-সহ ৯ জেলায় কমল সক্রিয় রোগী

দেশ2 days ago

ভ্যাকসিন এবং কোভিডের চিকিৎসা সরঞ্জামে ট্যাক্স কেন? মমতার চিঠির পর ১৬টা টুইট কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর

রাজ্য2 days ago

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃতীয় মন্ত্রীসভায় একাধিক নতুন মুখ

দেশ3 days ago

Vaccination Drive: শীঘ্রই চতুর্থ কোভিড-টিকা পেয়ে যেতে পারে ভারত

বিজ্ঞান2 days ago

পৃথিবীতে ফিরে এল চিনা রকেটের অবশিষ্টাংশ, পড়ল ভারত মহাসাগরে

ভিডিও

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 months ago

বাজেট কম? তা হলে ৮ হাজার টাকার নীচে এই ৫টি স্মার্টফোন দেখতে পারেন

আট হাজার টাকার মধ্যেই দেখে নিতে পারেন দুর্দান্ত কিছু ফিচারের স্মার্টফোনগুলি।

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজোর পোশাক, ছোটোদের জন্য কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সরস্বতী পুজোয় প্রায় সব ছোটো ছেলেমেয়েই হলুদ লাল ও অন্যান্য রঙের শাড়ি, পাঞ্জাবিতে সেজে ওঠে। তাই ছোটোদের জন্য...

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজো স্পেশাল হলুদ শাড়ির নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই সরস্বতী পুজো। এই দিন বয়স নির্বিশেষে সবাই হলুদ রঙের পোশাকের প্রতি বেশি আকর্ষিত হয়। তাই হলুদ রঙের...

কেনাকাটা4 months ago

বাসন্তী রঙের পোশাক খুঁজছেন?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই আসছে সরস্বতী পুজো। সেই দিন হলুদ বা বাসন্তী রঙের পোশাক পরার একটা চল রয়েছে অনেকের মধ্যেই। ওই...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরদোরের মেকওভার করতে চান? এগুলি খুবই উপযুক্ত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘরদোর সব একঘেয়ে লাগছে? মেকওভার করুন সাধ্যের মধ্যে। নাগালের মধ্যে থাকা কয়েকটি আইটেম রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার...

কেনাকাটা4 months ago

সিলিকন প্রোডাক্ট রোজের ব্যবহারের জন্য খুবই সুবিধেজনক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী এখন সিলিকনের। এগুলির ব্যবহার যেমন সুবিধের তেমনই পরিষ্কার করাও সহজ। তেমনই কয়েকটি কাজের সামগ্রীর খোঁজ...

কেনাকাটা4 months ago

আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজ রইল আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার সময় যে দাম ছিল...

কেনাকাটা4 months ago

রান্নাঘরের এই সামগ্রীগুলি কি আপনার সংগ্রহে আছে?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরে বাসনপত্রের এমন অনেক সুবিধেজনক কালেকশন আছে যেগুলি থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যেতে পারে। এমনকি দেখতেও সুন্দর।...

কেনাকাটা4 months ago

৫০% পর্যন্ত ছাড় রয়েছে এই প্যান্ট্রি আইটেমগুলিতে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলির মধ্যে বেশ কিছু এখন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫০% বা তার বেশি ছাড়ে। তার মধ্যে...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরের জন্য কয়েকটি খুবই প্রয়োজনীয় সামগ্রী

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ও সুবিধাজনক বেশ কয়েকটি সামগ্রীর খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদনটি লেখার সময় যে দাম ছিল তা-ই...

নজরে