কলকাতা: টেস্ট খেলতে খেলতে হঠাৎ করে টি-২০ মেজাজে ব্যাটিং করা শুরু করেছে উত্তুরে হাওয়া। তার প্রভাবে কলকাতা সর্বনিম্ন তাপমাত্রা নেমে গেল স্বাভাবিকের নীচে। আবহাওয়া দফতরের কথায়, সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৪ ডিগ্রিতে নামলে সরকারি ভাবে শীত ঘোষণা করা হয় কলকাতায়।

বুধবার কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১৪.৪ ডিগ্রিতে, স্বাভাবিকের থেকে যা এক ডিগ্রি কম। পৌষের আগেই যে কলকাতায় শীত পড়তে পারে তা কিছু দিন আগেও আন্দাজ করা যায়নি। এর মূলে ছিল ঘূর্ণিঝড় বর্ধা। উত্তর অন্ধ্রপ্রদেশের দিকে অভিমুখ থাকলেও, শেষ মুহূর্তে পথ পরিবর্তন করে চেন্নাইয়ের দিকে নেমে আসাই ভাগ্য খুলল কলকাতা তথা দক্ষিণবঙ্গের।

আলিপুর আবহাওয়া দফতরের অধিকর্তা গণেশ কুমার দাসের কথায়, বর্ধা যদি উত্তর অন্ধ্র প্রদেশের দিকে যেত, তা হলে দক্ষিণবঙ্গে ঢুকত জলীয় বাষ্প। এর প্রভাবে বাধাপ্রাপ্ত হত উত্তুরে হাওয়া। কিন্তু সে চেন্নাইয়ের দিকে চলে যাওয়ায় দক্ষিণবঙ্গে নতুন করে জলীয় বাষ্প তো ঢোকেইনি, উলটে যেটুকু জলীয় বাষ্প অবশিষ্ট ছিল তাও নিজের কাছে টেনে নিয়েছে। বর্ধা এখন দুর্বল হয়ে ক্রমশ কর্নাটক হয়ে আরব সাগরের দিকে সরে যাচ্ছে। কোনো ভাবেই এর প্রভাব এ রাজ্যের দিকে পড়বে না।

শুধু কলকাতাই নয়, তাপমাত্রা নেমেছে গোটা রাজ্যে। দক্ষিণবঙ্গে এ দিন শীতলতম জায়গা ছিল বোলপুর। সেখানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯.৯ ডিগ্রি, স্বাভাবিকের থেকে যা তিন ডিগ্রি কম। উপকূলবর্তী জায়গা দিঘা, কাঁথি, হলদিয়া আর ডায়মন্ড হারবারে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১১ থেকে ১৪ ডিগ্রির মধ্যে। কৃষ্ণনগর, বহরমপুর, বর্ধমান, বাঁকুড়া আর আসানসোলে তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে যথাক্রমে ১০ থেকে ১২ ডিগ্রির মধ্যে। দক্ষিণের পাশাপাশি উত্তরবঙ্গেও ক্রমশ কামড় বসাতে শুরু করেছে শীত। দার্জিলিং-এ বুধবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৪ ডিগ্রি। শিলিগুড়ি, জলপাইগুড়ি, কোচবিহারেও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রির আশাপাশে ঘোরাফেরা করেছে।

সর্বনিম্ন তাপমাত্রার কমে যাওয়ার সঙ্গে সর্বোচ্চ তাপমাত্রাও বেশি বাড়ছে না। এর ফলে সারাদিনই শীত শীত ভাব বহাল গোটা রাজ্যে। কিন্তু কলকাতার শীতের সমস্যা হল, এখানে শীত টানা বেশি দিন থিতু হতে পারে না। বঙ্গোপসাগরে কোনো ঘূর্ণাবর্ত বা উত্তর ভারত থেকে বয়ে আসা পশ্চিমী ঝঞ্ঝা শীতের পথে বাধা সৃষ্টি করেই। তবে এখনই এমন কোনো আশঙ্কা নেই বলে জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। গণেশবাবুর কথায়, “বঙ্গোপসাগরে আপাতত কোনো ঘূর্ণাবর্ত বা নিম্নচাপ তৈরি হওয়ার আশঙ্কা নেই যা শীতের পথে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে। তাই আগামী কয়েক দিন সর্বনিম্ন তাপমাত্রার কোনো পরিবর্তন ঘটবে না।”

আলিপুর আবহাওয়া দফতরের সঙ্গে একমত বিবিসিও। কলকাতার আবহাওয়া সংক্রান্ত তাদের যা তথ্য, তাতে জানা যাচ্ছে আগামী এক সপ্তাহ শহরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে ২৫ থেকে ২৬ ডিগ্রি আর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৩ থেকে ১৫ ডিগ্রির মধ্যে ঘোরাফেরা করবে। সুতরাং নরমে রোদে পিঠ দিয়ে বাঙালির শীত উপভোগ করার দিন অবশেষে হাজির।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here