এক সপ্তাহের মধ্যেই মুকুল রায়ের হাত ফসকাল ৪ রাঘব-বোয়াল!

0

ওয়েবডেস্ক: বিজেপি নেতা মুকুল রায় যে ভিন দলের নেতা-নেত্রীদের বিজেপিতে আসার আহ্বান জানান, সেটা তিনি নিজে মুখেই স্বীকার করেছেন। গত মঙ্গলবারই তিনি দলে টেনেছেন তৃণমূল ও সিপিএমের দুই বিধায়ক এবং এক তৃণমূল বহিষ্কৃত সাংসদকেও। যদিও বিজেপি সূত্রে যে সব বড়োসড়ো নেতা-নেত্রীর যোগদানের কথা ওই দিন ছিল, তাঁদের ত্রিসীমানায় দেখতে পাওয়া যায়নি।

বুধবার কালীঘাটে তৃণমূলের ৪২ জন প্রার্থীকে নিয়ে বৈঠকের পর তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাংবাদিকদের সামনে বলেন, “দু’জনের প্রার্থী হওয়ার খুব লোভ ছিল। কারা তাঁদের নিল, সে নিয়ে কিছু যায়-আসে না”। অর্থাৎ, কয়েক জন যে বিজেপিতে যাওয়ার জন্য পা বাড়িয়ে ছিলেন, সে খবর তাঁর কাছেও ছিল।

দুই বিধায়ক ও এক সাংসদের বিজেপিতে যোগদান

মঙ্গলবার দিল্লিতে মুকুলবাবু ও বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের উপস্থিতিতে দলবদল করেন দুই বিধায়ক। বাগদার তৃণমূল (কংগ্রেসের প্রতীকে জয়ী) বিধায়ক দুলাল বর এবং হবিবপুরের সিপিএম বিধায়ক খগেন মুর্মু। একই সঙ্গে তৃণমূলের সাসপেন্ডেড সাংসদ অনুপম হাজরাও ওই দিন বিজেপিতে যোগ দেন। যদিও এঁদের নিয়ে ততটা মাথাব্যথা দেখা যায়নি খোদ বিজেপি সমর্থকদেরও।

অর্জুন সিং। ফাইল ছবি

কিন্তু প্রচারে অবশ্য ছিল অন্য মুখ। শোনা গিয়েছিল, মুকুলবাবুর ‘ডাকে’ সাড়া দিয়ে বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন তৃণমূল বিধায়ক অর্জুন সিং। বিজেপি সূত্র উদ্ধৃত করে গত সোমবার থেকেই সে খবর চাউর হয়ে যায়। ভাটপাড়ার তৃণমূল বিধায়ককে দলে টেনে তাঁকে বারাকপুর কেন্দ্র থেকে তৃণমূল প্রার্থী দীনেশ ত্রিবেদীর বিরুদ্ধে পদ্ম-প্রতীকে প্রার্থী করার কথাও তুলে ধরা হয়। উত্তেজনা চরমে তুলে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী তালিকা ঘোষণার সঙ্গেই যে তিনি দিল্লিতে বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন, তেমন খবরে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। জল্পনা এখনও চলছে।

সব্যসাচী দত্ত। ফাইল ছবিএকই ভাবে গত রবিবার ফাঁস হয়ে গিয়েছে লুচি-আলুরদম কাণ্ড। তৃণমূল বিধায়ক তথা বিধাননগর পুরসভার মেয়র সব্যসাচী দত্তের বাড়ি গিয়ে লুচি-আলুরদম খেয়ে এসেছিলেন মুকুলবাবু। সঙ্গে যে তিনি সব্যসাচীকে দলবদলের প্রস্তাবটাও দেননি, সেটা উভয়পক্ষই স্বীকার করেছেন। তবুও শোনা যায়, তাঁকে বিজেপি প্রার্থী হওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে। বারাসতে তৃণমূল প্রার্থী কাকলি ঘোষদস্তিদারের বিরুদ্ধে তাঁকে প্রার্থী করা হতে পারে বলে জানা যায়। তবে রবিবার দলের কাউন্সিলার এবং কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিমের পাশে দাঁড়িয়ে তিনি বলেন, তিনি তৃণমূলে ছিলেন, আছেন, থাকবেন।

Baishakhi Banerjee and Sovan Chatterjee
শোভন ও বৈশাখী। ফাইল ছবি

সর্বশেষ সংযোজন শোভন-বৈশাখী। কলকাতার প্রাক্তন মেয়র তথা রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং তাঁর অসময়ের বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দফায় দফায় গোপন বৈঠকের কথা শোনা যায় বিজেপি এবং আরএসএস নেতৃত্বের। বুধবার সাংবাদিক সম্মেলনে নিজে মুখেই বৈশাখী স্বীকার করেছেন, এক বিজেপি নেতা তাঁদের প্রার্থী হওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিলেন ফোন করে। তবে তিনি আপাতত প্রার্থী হবেন না। সম্ভাবনা সব সময়ই তিনি যেমন খোলা রেখেছেন, তেমনই শুধু বিজেপি নয়, সব দলের জন্যও। তেমন হলে তৃণমূলেও ফিরতে পারেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here