নিজস্ব সংবাদদাতা, জলপাইগুড়ি: সোমবার জলপাইগুড়িতে পালিত হল বিশ্বপ্রতিবন্ধী দিবস।

এই উপলক্ষে এ দিন প্রতিবন্ধীদের নিয়ে একটি মিছিল জলপাইগুড়ি শহর পরিক্রমা করে। প্রতিবন্ধীদের নাম নথিভুক্ত করণ কর্মসূচি পালিত হয়। প্রতিবন্ধীদের নিয়ে একটি হস্তশিল্প প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। এ ছাড়া সেচ্ছায় রক্তদান শিবির অনুষ্ঠিত হয়। দুপুরে সন্মিলিতভাবে খাওয়া-দাওয়া হয়। প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করে স্বনির্ভর হওয়ার স্বীকৃতি স্বরূপ ১০ জনকে অপরাজেয় সন্মান প্রদান করা হয়। সন্ধ্যায় কুইজ প্রতিযোগিতা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এরই মাঝে জেলাশাসকের কাছে প্রতিবন্ধীদের বিভিন্ন দাবিদাওয়া নিয়ে একটি স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। জলপাইগুড়ি ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশনের উদ্যোগে এ দিন এভাবেই নানা কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে পালিত হল বিশ্বপ্রতিবন্ধী দিবস।

Jalpaiguri

জলপাইগুড়ি ক্লাব রোডে জলপাইগুড়ি ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশনের অফিসের সামনে সমস্ত কর্মসূচি পালিত হয়। সকাল সাড়ে ১০টায় প্রতিবন্ধীদের নিয়ে একটি মিছিল জলপাইগুড়ি শহর পরিক্রমা করে। সাড়া ফেলে দেয় প্রতিবন্ধীদের হাতে তৈরি জিনিসপত্র নিয়ে একটি হস্তশিল্প প্রদর্শনী। এ ধরনের মোট চারটি স্টল ছিল। পাশাপাশি চলতে থাকে স্বেচ্ছায় রক্তদান শিবির। এ দিন মোট ৪০ জন স্বেচ্ছায় রক্তদান করে। দুপুর সাড়ে ১২টায় জেলাশাসকের কাছে প্রতিবন্ধীদের ন’টি দাবি নিয়ে একটি স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

দাবিগুলি ছিল- ১) প্রতিবন্ধী প্রশংসাপত্র পাওয়ার ক্ষেত্রে নিয়মের সরলিকরণ করতে হবে। তাদের জন্য প্রত্যন্ত এলাকায় বিশেষ শিবিরের ব্যবস্থা করতে হবে। ২) সরকার থেকে নিম্ন আয়ের সমস্ত প্রতিবন্ধীকে অক্ষম ভাতার আওতায় আনতে হবেল। ৩) প্রত্যেক প্রতিবন্ধী মানুষ যাতে শৌচাগার-সহ থাকার ঘর পেতে পারেন তার ব্যবস্থা করতে হবে। ৪) বিভিন্ন সরকারি এবং আধা-সরকারি দফতরে নির্ধারিত প্রতিবন্ধী শূন্য পদগুলি পূরণ করতে হবে। ৫) প্রতিবন্ধী পুনর্বাসন কেন্দ্রটি আবিলম্বে চালু করতে হবে। ৬) বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন ছাত্রছাত্রীদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার জন্য বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিক্ষকদের নিয়োগ করতে হবে। ৭) সরকারি এবং বেসরকারি বাসে প্রতিবন্ধীদের চলাচলের অধিকারকে সুরক্ষিত করতে হবে। ৮) আগের মতো ভারতীয় রেলে প্রত্যেক প্রতিবন্ধীকে বিনামূল্যে/স্বল্পমূল্যে দেশের সর্বত্র যাতায়াত করতে পারে তার ব্যবস্থা করতে হবে। ৯) যে কোনো উন্নয়নমূলক সরকারি কাজের ৩ শতাংশ অর্থ প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে ব্যয় করতে হবে।

আরও পড়ুন: বাঘে-মানুষে টানাটানি, সুন্দরবনে প্রাণ গেল মৎস্যজীবীর

দুপুরে ভাত, ডাল, তরকারি, ডিমের ঝোল এবং চাটনি সহযোগে সকলে মিলে খাওয়াদাওয়া সারেন। বিকেল ৪টের সময় ১০ জনকে অপরাজেয় সন্মান প্রদান করা হয়। এর পরই কুইজ এবং সাংস্কৃতিক কর্মসূচি পালিত হয়। জলপাইগুড়ি ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশনের সম্পাদক সঞ্জয় চক্রবর্তী বলেন, “সমস্ত জেলা থেকে মোট ১ হাজার প্রতিবন্ধী এ দিনের কর্মসূচিতে অংশ নেয়।”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here