বেইরুট : সিরিয়ায় রাসায়নিক গ্যাস হামলায় মৃত্যু হল ৫৮ জনের। মৃতদের মধ্যে ১১ জনই শিশু, যাদের বয়স ৮ বছরেরও কম। আহত বহু। মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকাল ৬টা ৪৫ মিনিটে হামলা হয় উত্তরপশ্চিম সিরিয়ার খান সেইখুনে। হামলার সময় প্রায় গোটা শহর ছিল ঘুমন্ত। সিরিয়ার মানবাধিকার পর্যবেক্ষকদের দাবি, সিরিয়া সরকার খান সেইখুনের ওপর হামলা করে। তাতেই বহু মানুষের ক্ষতি হয়। খান সেইখুন ইডলিব শহর থেকে ৫০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত।

সিরিয়া সরকার এই অভিযোগ অস্বীকার করেছ। তাদের দাবি তারা এমন কোনো অস্ত্র ব্যবহার করেনি। পাশাপাশি সিরিয়ার সেনাবাহিনীরও দাবি, রাসায়নিক গ্যাস ব্যবহার করা হয়নি। বিরোধী পক্ষ ঘটনাটিকে ‘ভয়ঙ্কর অপরাধ’ বলে বর্ণনা করেছে। তারা রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদের কাছে এই ঘটনার দ্রুত তদন্তের আর্জি জানিয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, বিগত ছ’ বছরে সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে মারাত্মক রাসায়নিক হামলাগুলোর মধ্যে এটা একটা।

 

ইডলিবের স্বেচ্ছাসেবক সংস্থার অ্যাম্বুলেন্স চালক মহম্মদ রাসুল বলেন, হঠাৎ বিমান হামলার শব্দ পান। তার ২০ মিনিট পরে যখন ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছোন তখন পথের ধারে বহু মানুষকে শ্বাসকষ্টে ভুগতে দেখেন, অনেকে অজ্ঞান হয়ে যান। কারো কারো মুখ থেকে ফ্যানাও বেরোতে থাকে। সব থেকে বেশি কষ্ট পাচ্ছিল ছোটোরা। তিনি জানান, মৃতের সংখ্যা আসলে ৬৭ আর আহতের সংখ্যা প্রায় ৩০০। অবশ্য মৃত আর আহতের সংখ্যা নিয়ে নানা সূত্র নানা কথা বলছে। একটি সংবাদ মাধ্যমের হিসাব বলছে মৃতের সংখ্যা ১০০ ছাড়িয়েছে।

হাসপাতাল সূত্রের খবর, সকলেই বমি, শ্বাসকষ্ট বা অজ্ঞান হয়ে যাওয়া, মুখ থেকে ফেনা ওঠা নিয়ে ভর্তি হয়েছেন।    

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here