নয়াদিল্লি: অরুণাচল প্রদেশে একটি ৬০০ মেগাওয়াট জলবিদ্যুৎ প্রকল্পে ৪৫০ কোটিরও বেশি টাকার দুর্নীতিতে যুক্ত থাকার অভিযোগ উঠল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেন রিজিজু, তাঁর ভাইপো এবং কয়েক জন সরকারি আধিকারিকের বিরুদ্ধে। এই সংক্রান্ত একটি খবর প্রকাশ করেছে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস সংবাদপত্র। অভিযোগ অস্বীকার করে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও অরুণাচল পশ্চিম কেন্দ্রের সাংসদ রিজিজু বলেছেন, “এটা তৈরি করা খবর। যারা এ সব খবর বানাচ্ছে, তারা এখানে এলে জুতো খাবে। মানুষের সেবা করাটা কি দুর্নীতি”?

 

ইস্টার্ন ইলেকট্রিক পাওয়ার কর্পোরেশনের চিফ ভিজিল্যান্স অফিসার সতীশ ভার্মা ২০১৫ সালের জুলাই মাসে এই দুর্নীতির কথা জানিয়ে কেন্দ্রীয় ভিজিল্যান্স কমিশন, সিবিআই ও শক্তি মন্ত্রকে অরুণাচলের কামেং জলবিদ্যুৎ প্রকল্প নিয়ে একটি ১২৯ পাতার রিপোর্ট পাঠান। সেই রিপোর্টে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর নাম উল্লেখ ছিল।

রিপোর্ট পাওয়ার পর সিবিআই দু’বার অরুণাচলে তদন্তকারী দল পাঠায় কিন্তু এখনো কোনো মামলা দায়ের করেনি। অন্য দিকে ১২৯ পাতার রিপোর্ট পাঠানোর পর কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকার কারণে ভার্মাকে ত্রিপুরায় সিআরপিএফ-এ বদলি করে দেওয়া হয়। ভার্মার দাবি, ঘটনার তদন্তের জন্যই কাজে অনুপস্থিত ছিলেন তিনি।

ভার্মা আরও বলেছেন, প্রকল্পের ঠিকেদার প্যাটেল ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড ‘কয়েকশো কোটি টাকা’-র পরিবহণ সংক্রান্ত খরচের বহু ভুয়ো বিল ও নথি পেশ করেছিল। ভার্মার রিপোর্টের পর, সংস্থার বিল মেটানো বন্ধ করে দেওয়া হয়। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সেই সময় ওই ঠিকেদার সংস্থাকে বিল মিটিয়ে দেওয়ার জন্য শক্তি মন্ত্রকে চিঠি লেখেন রিজিজু।

সতীশ ভার্মা রিপোর্ট পাঠানোর পর, রিজিজুর ভাইপো ও প্রকল্পের সাব কন্ট্রাক্টর গোবোই রিজিজু, ভার্মার সঙ্গে দেখা করে জানতে চান, তিনি গোবোইয়ের কাকার (কিরেন রিজিজু) কাছ থেকে কোনো সাহায্য চান কি না ? সেই বৈঠকের কথোপকথনের অডিও রেকর্ডও ভার্মা পাঠিয়ে দেন সিভিসি ও সিবিআই-কে।

কামেং জলবিদ্যুৎ প্রকল্পটি অরুণাচলের অন্যতম বৃহৎ সরকারি জলবিদ্যুৎ প্রকল্প। বিচোম ও তেঙ্গা নদীর ওপর এই প্রকল্পটির কাজ চলছে ২০০৫ সাল থেকে। কাজ প্রায় শেষের মুখে। প্রকল্পের অধীনে দু’টি বাঁধ তৈরির কাজেই উঠেছে এই দুর্নীতির অভিযোগ।

অভিযোগের তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত রিজিজুর পদত্যাগ বা তাঁকে মন্ত্রিসভা থেকে সরিয়ে দেওয়ার দাবি তুলেছে কংগ্রেস।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here